| প্রচ্ছদ

বাদ এশা মোস্তফাবিয়া মাদ্রাসা মাঠে জানাজা

মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রাজ্জাক আর নেই

স্টাফ রিপোর্টার
পঠিত হয়েছে ৫৩ বার। প্রকাশ: ১০ অক্টোবর ২০১৯ ।

মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক, বাংলাদেশ ওয়ার্কার্স পার্টির পলিট ব্যুরোর সদস্য ও বগুড়া বারের সিনিয়র আইনজীবী আব্দুর রাজ্জাক আর নেই (ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। বৃহস্পতিবার সকাল পৌণে ৮টায় ঢাকার এসআইবিএল ফাউন্ডেশন হাসপাতালে তিনি ইন্তেকাল করেন। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৭৫ বছর। তিনি স্ত্রী এবং দুই ছেলে, আত্মীয়-স্বজনসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। মরহুম আব্দুর রাজ্জাকের স্ত্রী জেবুন্নাহার বাংলাদেশ ব্যাংকে কর্মরত থাকা অবস্থায় দুই বছর আগে অবসর নেন।
ছেলে ডা. শাহরিয়ার মোহাম্মদ কবির হাসান জানান, তাঁর বাবা আব্দুর রাজ্জাক হার্টের রোগী ছিলেন। কিছুদিন আগে তাকে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে অবস্থার অবনতি হলে মঙ্গলবা তাকে ঢাকায় নেওয়া হয়। বৃহস্পতিবার দুপুরে তাঁর মরদেহ বগুড়ায় পৌঁছুবে এবং সন্ধ্যায় সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধা নিবেদনের জন্য শহীদ খোকন পার্কে নেওয়া হবে। এর আগে তাকে গার্ড অব প্রদান করা হবে। পরে বাদ এশা শহরের সুলতানগঞ্জপাড়ায় সরকারি মোস্তাফাবিয়া মাঠে প্রথম এবং গ্রামের বাড়ি সদর উপজেলার বেলাইলে দ্বিতীয় জানাজা নামাজ শেষে সেখানেই পারিবারিক কবরস্থানে তাঁকে দাফন করা হবে।
মুক্তিযুদ্ধকালীন ছাত্র ইউনিয়নের অন্যতম নেতা আব্দুর রাজ্জাক তার সহকর্মীদের নিয়ে বগুড়ায় পাক বাহিনীর বিরুদ্ধে প্রতিরোধ যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েছিলেন। তৎকালীন ছাত্র ইউনিয়নের পাঁচ সদস্যের কমান্ড কাউন্সিলের সদস্য আব্দুর রাজ্জাক পরে ট্রেনিংয়ের জন্য ভারতে যান। আব্দুর রাজ্জাক এক সময় বগুড়ায় কমিউনিস্ট পার্টির নেতৃত্ব গ্রহণ করেন। তিনি ওই দলটির বগুড়ায় সম্পাদক ও সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। কমিউনিস্ট পার্টির মনোনীত প্রার্থী হিসেবে তিনি ১৯৯১ এবং ১৯৯৬ সালে অনুষ্ঠিত সংসদ নির্বাচনে বগুড়া সদর আসনে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করেন। পরবর্তীতে আব্দুর রাজ্জাক ওয়ার্কার্স পার্টিতে যোগ দেন এবং দলটির পলিট ব্যুরোর সদস্য হন।

মন্তব্য