| প্রচ্ছদ

এমপি সিরাজ বগুড়ার উন্নয়ন নিয়ে অপরাজনীতি করছেন: আ’লীগ

স্টাফ রিপোর্টার
পঠিত হয়েছে ১১৫ বার। প্রকাশ: ১২ অক্টোবর ২০১৯ ।

বগুড়া-৬ (সদর) আসনের সংসদ সদস্য ও জেলা বিএনপির আহ্বায়ক গোলাম মোহাম্মদ সিরাজ জেলার উন্নয়ন নিয়ে অপরাজনীতি করছেন বলে অভিযোগ করেছে আওয়ামী লীগ।

শুক্রবার এক সংবাদ সম্মেলনে বগুড়া জেলা আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে বলা হয়, জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ডা. মকবুল হোসেনকে সঙ্গে নিয়ে বগুড়ার উন্নয়ন বিষয়ে গত ১ অক্টোবর এমপি সিরাজের সংবাদ সম্মেলনটি ছিল এক ধরনের অপকৌশল ও ষড়যন্ত্রের রাজনীতির অংশ।

শহরের সাতমাথার দলীয় কার্যালয়ে জেলা আওয়ামী লীগের সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে ডা. মকবুল হোসেন বলেন, বিএনপিদলীয় এমপি বগুড়ার উন্নয়ন বিষয়ে তার সংবাদ সম্মেলনে আমাকে কৌশলে নিয়ে যান। তিনি সেখানে আওয়ামী লীগ সরকারের সময়কার উন্নয়নের বিষয়টি আড়াল করে বিএনপির সময়কার উন্নয়নের বিষয়গুলো তুলে ধরেন। তাৎক্ষণিক আমি এর প্রতিবাদও জানিয়েছি, তথাপি বিষয়টি তিনি এড়িয়ে যান।

এমপি গোলাম মোহাম্মদ সিরাজ বগুড়া প্রেস ক্লাবে ওই সংবাদ সম্মেলন করেন। এতে আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে অন্য কোনো নেতা উপস্থিত না হলেও ডা. মকবুল হোসেন উপস্থিত থেকে বিএনপির এমপির বক্তব্যের সঙ্গে একাত্মতা ঘোষণা করেছেন বলে গণমাধ্যমে সংবাদ প্রচার হয়। এরপর বিষয়টি জেলা আওয়ামী লীগ স্বাভাবিকভাবে নেয়নি।

দুপুরে সংবাদ সম্মেলনে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মজিবুর রহমান মজনু বলেন, এমপি গোলাম মোহাম্মদ সিরাজ বগুড়ার উন্নয়ন নিয়ে নিজের দলের ফিরিস্তি তুলে ধরেছেন। আওয়ামী লীগ সরকারের উন্নয়নকে তিনি বিএনপি সরকারের সময়ের উন্নয়ন বলে চালিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করছেন।

মজিবুর রহমান মজনু বলেন, জেলা আওয়ামী লীগের প্রয়াত সভাপতি মমতাজ উদ্দিন ঐতিহাসিক আলতাফুন্নেছা খেলার মাঠে ২০১৫ সালের ১২ নভেম্বর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জনসভায় যেসব দাবি উত্থাপন করেছিলেন সেই দাবির পরিপ্রেক্ষিতে বগুড়ায় উন্নয়ন কর্মকাণ্ড চলছে; অথচ সেগুলোই এমপি সিরাজ তার সংবাদ সম্মেলনে তুলে ধরে এসব বিএনপির দাবি বলে অপপ্রচার করেছেন।

মজনু আরও বলেন, বগুড়ার দৃশ্যমান উন্নয়নের মধ্যে সম্প্রতি শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ৫০০ থেকে ১২০০ শয্যায় উন্নীত করা হয়, যার ব্যয় হচ্ছে প্রায় ১০০ কোটি টাকা। সিরাজগঞ্জ থেকে বগুড়া হয়ে কুড়িগ্রাম পর্যন্ত রেল সংযোগ জাতীয় অর্থনৈতিক নির্বাহী কমিটিতে (একনেকে) পাস হয়েছে। বগুড়া জজ আদালতে ১০ তলা বিশিষ্ট সুবিশাল অবকাঠামো নির্মিত হয়েছে আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে, যা ১৮ তলা করার প্রস্তাবনা সরকারের বিবেচনায় রয়েছে। এর আগে আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে চারমাথায় কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল, দ্বিতীয় বাইপাস সড়ক নির্মাণ সরকারের উন্নয়নের অনন্য উদাহরণ। বগুড়াকে বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল ঘোষণা করা হয়েছে। যার ফলে বগুড়া শিল্পনগরী হিসেবে আরও সমৃদ্ধ হবে এবং মানুষের কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হবে।

সংবাদ সম্মেলনে আওয়ামী লীগের সময়ে বগুড়ার বিভিন্ন উন্নয়ন চিত্র তুলে ধরেন মজিবুর রহমান মজনু। তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ সরকারের এত উন্নয়নের পরও গোলাম মোহাম্মদ সিরাজ বগুড়ার উন্নয়ন নিয়ে রাজনৈতিক স্টান্টবাজি করছেন।

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগ নেতা অ্যাডভোকেট মকবুল হোসেন মুকুল, রাগেবুল আহসান রিপু, টি জামান নিকেতা, আসাদুর রহমান দুলু, সুলতান মাহমুদ খান রনি, কামরুন নাহার পুতুল, এবিএম জহুরুল হক বুলবুল, মাশরাফী হিরো, মাফুজুল ইসলাম রাজ, আলরাজী জুয়েল, শুভাশীষ পোদ্দার লিটন, আমিনুল ইসলাম ডাবলু প্রমুখ।

মন্তব্য