| প্রচ্ছদ

৬০তম বিয়ে করে ধরা খেলেন আবু বক্কর

পুণ্ড্রকথা ডেস্ক
পঠিত হয়েছে ৪০২ বার। প্রকাশ: ০৩ নভেম্বর ২০১৯ ।

নাম তার আবু বক্কর। বয়স ৪৫। এরইমধ্যে বিয়ে করেছেন ৬০ টি। বিয়ে করাই তার পেশা ও নেশা।

দেশের বিভিন্ন জেলায় নানা পরিচয়ে ভুয়া ঠিকানা ব্যবহার করে মোটা অঙ্কের টাকা হাতিয়ে নেওয়াই তার পেশা। বিপত্তি ঘটে নেত্রকোণার পূর্বধলা গ্রামের ৬০ নম্বর বিয়ে করতে গিয়ে। মাস্টার্স পড়ুয়া ৬০তম স্ত্রী রোজী খানম ধরে ফেলেন তার প্রতারণা।

অবশেষে তার দায়ের করা মামলায় শনিবার রাতে জামালপুরের ইসলামপুর উপজেলার গোয়ালের চর ইউনিয়নের সভারচর গ্রামের নিজ বাড়ি থেকে আবু বক্কর(৪৫) কে গ্রেপ্তার করে পূর্বধলা থানা পুলিশ। তাকে আটকের পর বেরিয়ে আসে প্রতারক বক্করের আসল রূপ।  সে সভারচর গ্রামের বাদশা মিয়ার পুত্র।

পূর্বধলা থানায় আবু বক্করের ৬০তম স্ত্রী রোজী বেগমের দায়ের করা মামলায় জানা যায়, আবু বক্কর (৪৫) রোজী বেগমের আত্মীয়রে সাথে পূর্ব পরিচিত হওয়ায় ওই এলাকায় যাতায়াত করতো। সে একটি ওষুধ কোম্পানির জেলা এরিয়া ম্যানেজার পরিচয় দিত। নিজেকে অবিবাহিত পরিচয় দিয়ে গত আগস্ট মাসে নাম শাহিন আলম, পিতা আকরাম, গ্রাম কুতুবেরচর, সাধুরপাড়া,  বকসীগঞ্জ ঠিকানা ব্যবহার করে রোজীকে বিয়ে করে। সেই থেকে রোজীর বাড়িতে বসবাস করে আসছিল বক্কর। এ সময় রোজীর পরিবারের কাছে যৌতুকের ২ লাখ টাকা দাবি করে। এতে রোজীর পরিবার অপারগতা প্রকাশ করে।

এরপরে বক্কর কৌশলে শ্যালককে ঔষধ কোম্পানির চাকরি দেওয়ার কথা বলে শ্বশুরের নিকট ৮০ হাজার টাকা নিয়ে চম্পট দেয়। কয়েকদিন পর থেকেই তাদের সাথে সকল যোগাযোগ বন্ধ করে দেয়। পরে স্ত্রী রোজীর পরিবার খোঁজ খবর নিয়ে জানতে পারে ভুয়া ঠিকানা ব্যবহার করে বিয়ের নামে প্রতারণা করেছে বক্কর।

আটক আবু বক্কর জানায়, সে ৬০বিয়ে করলেও ৭ সন্তানের জনক। টাকার লোভেই সে বিয়ে করেছে। টাকা পেলেই ফেলে এসেছে বিবাহিত স্ত্রীদের। বক্কর পেশায় ব্যবসা কোথাও রিপ্রেজেন্টেটিভ চাকরি, কোথাও ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা, অবিবাহিত, বউ মারা গেছে এসব কথা বলে বিভিন্ন নাম ঠিকানা ব্যবহার করে বিয়ে করতো। নিজ উপজেলা ইসলামপুরের ঠিকানা সে কখনোই ব্যবহার করতো না। বর্তমানে নিজ বাড়িতে প্রথম স্ত্রী সাজেদা বেগমসহ দুই স্ত্রী ও সাত সন্তান রয়েছে।  

ইসলামপুর থানা ওসি তদন্ত আনছার আলী জানান, প্রতারণা করে বক্কর প্রায় ৬০টি বিয়ে করেছে। সে নিজের দোষ স্বীকার করেছে। এলাকায় তাকে চিটার বক্কর বলে চিনে। পূর্বধলা থানায় স্ত্রী রোজী খানমের মামলায় ইসলামপুর থানা পুলিশের সহায়তায় তাকে আটক করে পূর্বধলা থানায় পাঠানো হয়েছে।

মন্তব্য