| প্রচ্ছদ

পাকিস্তানকে উড়িয়ে টি-টোয়েন্টি সিরিজ অস্ট্রেলিয়ার

পুণ্ড্রকথা ডেস্ক
পঠিত হয়েছে ৪৩ বার। প্রকাশ: ০৮ নভেম্বর ২০১৯ ।

দাপুটে বোলিংয়ে পাকিস্তানকে স্বল্প রানেই বেঁধে রেখেছিল বোলাররা। এরপর ডেভিড ওয়ার্নার ও অ্যারন ফিঞ্চ করলেন দাপুটে ব্যাটিং। বোলিং-ব্যাটিং দুই বিভাগেই আলো ছড়িয়ে পাকিস্তানকে হারাল অস্ট্রেলিয়া। একই সঙ্গে টি-টোয়েন্টি সিরিজ নিজেদের করে নিল অ্যারন ফিঞ্চের দল।

পার্থে শুক্রবার পাকিস্তানকে ১০ উইকেটে হারায় অস্ট্রেলিয়া। টস হেরে ব্যাট করতে নেমে ৮ উইকেটে ১০৬ রানের বেশি করতে পারেনি পাকিস্তান। জবাবে ১১.৫ ওভারেই জয় নিশ্চিত করে অস্ট্রেলিয়া।

প্রথম টি-টোয়েন্টি বৃষ্টিতে ভেসে যাওয়ার পর দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টি ৭ উইকেটে জিতে নেয় অস্ট্রেলিয়া। এদিন জয় তুলে নিয়ে অন্তত সিরিজ ড্র করার সুযোগ ছিল পাকিস্তানের সামনে। কিন্তু বাবর আজমের নেতৃত্বাধীন দল দাঁড়াতেই পারেনি এদিন। সিরিজ হেরেছে ২-০ তে।

এ বছর ১০টি টি-টোয়েন্টি খেলে মাত্র ১টিতে জয় পেয়েছে পাকিস্তান। অন্যদিকে অস্ট্রেলিয়া এ বছর খেলা ৮ টি-টোয়েন্টিতে হারেনি একটিতেও। ৭টিতে জয় পেয়েছে, একটি ম্যাচ পরিত্যক্ত হয়।

টস হেরে ব্যাট করতে নামা পাকিস্তানের ব্যাটিং মেরুদণ্ড শুরুতেই ভেঙে দেন মিচেল স্টার্ক। তৃতীয় ওভারে তুলে নেন বাবর আজম (৬) ও মোহাম্মদ রিজওয়ানকে (০)। এরপর শন অ্যাবোট ও কেন রিচার্ডসন তোপ। তাতে শুধু আসা-যাওয়া চলতে থাকল পাকিস্তান ইনিংসে।

ইফতিখার আহমেদ ব্যতিক্রম ছিলেন। খেললেন ৩৭ বলে ৪৫ রানের ইনিংস। তাতেই পাকিস্তানের রানটা এক শ ছাড়ায়। অজি বোলারদের মধ্যে উইকেট সংখ্যায় সবচেয়ে সফল রিচার্ডসন। ৪ ওভারে ১৮ রান ব্যয়ে ৩ উইকেট নেন এই পেসার। অ্যাবোট ১৪ রান ব্যয়ে শিকার করেন জোড়া উইকেট। আর স্টার্ক ২৯ রান ব্যয়ে নেন জোড়া উইকেট।

জবাব দিতে নেমে ডেভিড ওয়ার্নারের অপরাজিত ৪৮ ও অ্যারন ফিঞ্চের অপরাজিত ৫২ রানে জয় নিশ্চিত করে অস্ট্রেলিয়া। ওয়ার্নারের ৩৫ বলের ইনিংসে ছিল ৪ চার ও ২ ছক্কা। ফিঞ্চের ইনিংসে ছিল ৪ চার ও ৩ ছক্কা।

পাঁচ বছর পর জাতীয় দলে ফিরেই ম্যাচসেরা হয়েছেন শন অ্যাবোট। সিরিজ সেরার পুরস্কার পেয়েছেন স্টিভেন স্মিথ। সফরে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজও খেলবে পাকিস্তান। যার প্রথমটি ব্রিসবেনে শুরু হবে ২১ নভেম্বর।

মন্তব্য