| প্রচ্ছদ

স্তন ক্যানসার নির্ণয় বাড়িতেই

ডাঃ মো. ইয়াকুব আলী
পঠিত হয়েছে ১০১ বার। প্রকাশ: ২২ নভেম্বর ২০১৯ ।

বিশ্বে নারীমৃত্যুর অন্যতম কারণ হলো স্তন ক্যানসার। সাম্প্রতিক পরিসংখ্যান বলছে প্রতি ৮ জন নারীর মধ্যে অন্তত একজনের স্তন ক্যানসার হতে পারে এবং আক্রান্ত প্রতি ৩৬ জন নারীর মধ্যে মৃত্যুর সম্ভাবনা একজনের। আমাদের দেশে ক্যানসারে যত নারীর মৃত্যু হয়, তার অন্যতম কারণ স্তন ক্যানসার। সারা বিশ্বে প্রতি ৬ মিনিটে একজন নারী এতে আক্রান্ত হয় এবং প্রতি ১১ মিনিটে স্তন ক্যানসারে আক্রান্ত একজন নারী মারা যায়।

পরিসংখ্যানে ভয়াবহ চিত্র দেখা গেলেও বাংলাদেশে স্তন ক্যানসার নিয়ে পর্যাপ্ত সচেতনতার অভাব রয়েছে। তাই অনেকের একেবারে শেষ পর্যায়ে গিয়ে ধরা পড়ে রোগটি। তখন মৃত্যুর প্রহর গোনা ছাড়া আর কোনো উপায় থাকে না। অথচ ঘরে বসেই সহজে একজন নারী তার স্তন ক্যানসারের প্রাথমিক লক্ষণগুলো শনাক্ত করতে পারেন। প্রাথমিক পর্যায়ে রোগটি নির্ণয় করা সম্ভব হলে ক্যানসারের সঙ্গে লড়াইয়ে জিতে যাওয়ার সম্ভাবনা অনেক বেড়ে যায়।

স্তন ক্যানসারের প্রাথমিক লক্ষণ :

কোনো নারী গর্ভবতী না হলেও বা সদ্য মা না হলেও যদি তার স্তনবৃন্ত থেকে কোনো ধরনের রস জাতীয় পদার্থ বা অন্য কোনো তরল পদার্থ বের হয়, যদি রক্ত বের হয়, তবে এটি মোটেও হেলাফেলা করার মতো বিষয় নয়। এমন হলে যত দ্রুত সম্ভব চিকিৎসকের সঙ্গে পরামর্শ করুন।

নারীর স্তনবৃন্তের চারপাশের চামড়া এমননিতেই নরম ও মসৃণ থাকার কথা। কিন্তু স্তন ক্যানসারে আক্রান্ত হলে তা মোটা ও শক্ত হয়ে যায়।

 

অনেক ক্ষেত্রে চামড়াও উঠে যেতে পারে। পাল্টে যেতে পারে স্তনবৃন্তের রঙ। এছাড়া পুরো স্তন যদি ফুলে যায় বা স্তনের একাংশও যদি ফুলে যায়, তা হলে শিগগিরই চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।

মাঝে মধ্যে যদি স্তনে ব্যথা করে বা হঠাৎ করেই স্তন নরম বা টেন্ডার হয়ে ওঠে, তা হলেও ডাক্তারের পরামর্শ নিতে হবে। কারণ স্তন ক্যানসারের ফলে স্তনের টিস্যুর মধ্যে বদল ঘটে এ ধরনের ব্যথা হতে পারে।

স্তনবৃন্ত সাধারণত বাইরের দিকে বেরিয়ে থাকে। তাতে কোনো ধরনের ব্যথা, যন্ত্রণা বা ইরিটেশন হয় না। কিন্তু হঠাৎ করে যদি স্তনবৃন্তে কোনো ধরনের ইরিটেশন অনুভব বা স্তনবৃন্ত ভেতরের দিকে ঢুকে যায়, তা হলে তা ক্যানসারের লক্ষণ হতে পারে।

স্তনে কোনো ধরনের লাম্প বা মাংসপি- গললে সময় নষ্ট না করে ক্যানসার রোগ বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন। এ লাম্পে ব্যথা হতে পারে বা নাও হতে পারে।

মাঝে মধ্যে আয়নার সামনে নগ্ন হয়ে দাঁড়িয়ে হাত ওপরের দিকে তুলে অন্য হাত দিয়ে ভালো করে স্তনের ওপর হাত বুলিয়ে দেখুন কোনো ধরনের লাম্প বা মাংসপি- গজিয়েছে কি না। শুধু স্তন নয়, বগলেও যদি কোনো ধরনের লাম্প বা মাংসপি- গজায় তা হলেও স্তন ক্যানসারের লক্ষণ হতে পারে। এ অবস্থায় দ্রুত চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।

হঠাৎ করে যদি স্তনের আকার ও আকৃতিতে পরিবর্তন ঘটে, তাও হতে পারে স্তন ক্যানসারের লক্ষণ।

অতএব খেয়াল রাখুন এবং সুস্থ থাকুন। বিশ্বে নারীমৃত্যুর অন্যতম কারণ হলো স্তন ক্যানসার। সাম্প্রতিক পরিসংখ্যান বলছে প্রতি ৮ জন নারীর মধ্যে অন্তত একজনের স্তন ক্যানসার হতে পারে এবং আক্রান্ত প্রতি ৩৬ জন নারীর মধ্যে মৃত্যুর সম্ভাবনা একজনের। আমাদের দেশে ক্যানসারে যত নারীর মৃত্যু হয়, তার অন্যতম কারণ স্তন ক্যানসার। সারা বিশ্বে প্রতি ৬ মিনিটে একজন নারী এতে আক্রান্ত হয় এবং প্রতি ১১ মিনিটে স্তন ক্যানসারে আক্রান্ত একজন নারী মারা যায়।

পরিসংখ্যানে ভয়াবহ চিত্র দেখা গেলেও বাংলাদেশে স্তন ক্যানসার নিয়ে পর্যাপ্ত সচেতনতার অভাব রয়েছে। তাই অনেকের একেবারে শেষ পর্যায়ে গিয়ে ধরা পড়ে রোগটি। তখন মৃত্যুর প্রহর গোনা ছাড়া আর কোনো উপায় থাকে না। অথচ ঘরে বসেই সহজে একজন নারী তার স্তন ক্যানসারের প্রাথমিক লক্ষণগুলো শনাক্ত করতে পারেন। প্রাথমিক পর্যায়ে রোগটি নির্ণয় করা সম্ভব হলে ক্যানসারের সঙ্গে লড়াইয়ে জিতে যাওয়ার সম্ভাবনা অনেক বেড়ে যায়।

স্তন ক্যানসারের প্রাথমিক লক্ষণ :

কোনো নারী গর্ভবতী না হলেও বা সদ্য মা না হলেও যদি তার স্তনবৃন্ত থেকে কোনো ধরনের রস জাতীয় পদার্থ বা অন্য কোনো তরল পদার্থ বের হয়, যদি রক্ত বের হয়, তবে এটি মোটেও হেলাফেলা করার মতো বিষয় নয়। এমন হলে যত দ্রুত সম্ভব চিকিৎসকের সঙ্গে পরামর্শ করুন।

নারীর স্তনবৃন্তের চারপাশের চামড়া এমননিতেই নরম ও মসৃণ থাকার কথা। কিন্তু স্তন ক্যানসারে আক্রান্ত হলে তা মোটা ও শক্ত হয়ে যায়। অনেক ক্ষেত্রে চামড়াও উঠে যেতে পারে। পাল্টে যেতে পারে স্তনবৃন্তের রঙ। এছাড়া পুরো স্তন যদি ফুলে যায় বা স্তনের একাংশও যদি ফুলে যায়, তা হলে শিগগিরই চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।

মাঝে মধ্যে যদি স্তনে ব্যথা করে বা হঠাৎ করেই স্তন নরম বা টেন্ডার হয়ে ওঠে, তা হলেও ডাক্তারের পরামর্শ নিতে হবে। কারণ স্তন ক্যানসারের ফলে স্তনের টিস্যুর মধ্যে বদল ঘটে এ ধরনের ব্যথা হতে পারে।

স্তনবৃন্ত সাধারণত বাইরের দিকে বেরিয়ে থাকে। তাতে কোনো ধরনের ব্যথা, যন্ত্রণা বা ইরিটেশন হয় না। কিন্তু হঠাৎ করে যদি স্তনবৃন্তে কোনো ধরনের ইরিটেশন অনুভব বা স্তনবৃন্ত ভেতরের দিকে ঢুকে যায়, তা হলে তা ক্যানসারের লক্ষণ হতে পারে।

স্তনে কোনো ধরনের লাম্প বা মাংসপি- গললে সময় নষ্ট না করে ক্যানসার রোগ বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন। এ লাম্পে ব্যথা হতে পারে বা নাও হতে পারে।

মাঝে মধ্যে আয়নার সামনে নগ্ন হয়ে দাঁড়িয়ে হাত ওপরের দিকে তুলে অন্য হাত দিয়ে ভালো করে স্তনের ওপর হাত বুলিয়ে দেখুন কোনো ধরনের লাম্প বা মাংসপি- গজিয়েছে কি না। শুধু স্তন নয়, বগলেও যদি কোনো ধরনের লাম্প বা মাংসপি- গজায় তা হলেও স্তন ক্যানসারের লক্ষণ হতে পারে। এ অবস্থায় দ্রুত চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।

হঠাৎ করে যদি স্তনের আকার ও আকৃতিতে পরিবর্তন ঘটে, তাও হতে পারে স্তন ক্যানসারের লক্ষণ।

অতএব খেয়াল রাখুন এবং সুস্থ থাকুন।

টিউমার ও ক্যানসার রোগ বিশেষজ্ঞ

বিভাগীয় প্রধান (মেডিকেল আনকোলজি)

শহীদ সোহরা্ওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ ্ও হাসপাতাল।

মন্তব্য