| প্রচ্ছদ

১৩ রানে চার উইকেট হারিয়ে বিপাকে বাংলাদেশ

পুণ্ড্রকথা ডেস্ক
পঠিত হয়েছে ৭০ বার। প্রকাশ: ২৩ নভেম্বর ২০১৯ ।

ইন্দোর টেস্টের মতো ইডেন গার্ডেন্সেও ইনিংস পরাজয়ের শঙ্কায় বাংলাদেশ। ইন্দোরে প্রথম টেস্টে ইনিংস ও ১৩০ রানে পরাজিত হওয়া মুমিনুল হকের নেতৃত্বাধীন দলটি ইডেন টেস্টের প্রথম ইনিংসে ১০৬ রানে অলআউট। জবাবে ৯ উইকেটে ৩৪৭ রান করে ইনিংস ঘোষণা করে ভারত।

২৪১ রানে পিছিয়ে থেকে দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাটিংয়ে নেমে মাত্র ২ রানে দুই উইকেট হারিয়ে বিপাকে বাংলাদেশ দল। শূন্য রানে সাজঘরে ফেরেন ওপেনার সাদমান ইসলাম অনিক ও অধিনায়ক মুমিনুল হক সৌরভ। ভারতীয় পেসার ইশান্ত শর্মার শিকারে পরিনত হওয়ার আগে সাদমান ও মুমিনুল ৫ ও ৬ বল খেলার সুযোগ পান।

দলীয় ৯ রানে উমেশ যাদবের বলে মিডউইকেটে দাঁড়িয়ে থাকা মোহাম্মদ সামির হাতে ক্যাচ তুলে দিয়ে ফেরেন মোহাম্মদ মিঠুন। তিনি ১২ বল খেলে করেন মাত্র ৬ রান। এর আগে প্রথম ইনিংসে এই উমেশ যাদবের বলেই স্ট্যাম্প উড়ে যায় মিঠুনের। ফেরেন শূন্য রানে।

এরপর দলীয় ১৩ রানে আউট হন ইমরুল কায়েস। জাতীয় দলের এ ওপেনার ইশান্ত শর্মার তৃতীয় শিকারে পরিনত হন। থার্ড স্লিপে দাঁড়িয়ে থাকা ভারতীয় অধিনায়ক বিরাট কোহলির হাতে ক্যাচ তুলে দিয়ে ফেরেন কায়েস। প্রথম ইনিংসে ৪ রান করা ইমরুল দ্বিতীয় ইনিংসে ফেরেন ৫ রানে।

এর আগে বাংলাদেশকে ১০৬ রানে অলআউট করে ২৪১ রানের লিড নিয়ে ইনিংস ঘোষণা করল ভারত। ইডেন গার্ডেন্স টেস্টে প্রথম ইনিংসে বাংলাদেশের ১০৬ রানের জবাবে ৯ উইকেটে ৩৪৭ রান নিয়ে ইনিংস ঘোষণা করেন ভারতীয় অধিনায়ক বিরাট কোহলি।

কলকাতার ঐতিহ্যবাহী ইডেন গার্ডেন্সে অনুষ্ঠিত ঐতিহাসিক দিবা-রাত্রির টেস্টে টস জিতে প্রথমে ব্যাটিং করে ভারতীয় পেসারদের গতির তাণ্ডবের শিকার হয়ে ১০৬ রানে অলআউট হয় বাংলাদেশ দল।

জবাবে প্রথম ইনিংসে ব্যাটিংয়ে নেমে বিরাট কোহলির সেঞ্চুরি আর আজিঙ্কা রাহানে ও চেতেশ্বর পুজারার জোড়া ফিফটিতে ভর করে ৯ উইকেটে ৩৪৭ রান করে ইনিংস ঘোষণা করে স্বাগতিক ভারত। দলের হয়ে সর্বোচ্চ ১৩৬ রান করেন কোহলি। তার ৮৪তম টেস্টের ১৪১ ইনিংসে ২৭তম সেঞ্চুরি এটি।

এর আগে ওয়ানডে ক্রিকেটে ২৩৯ ম্যাচে ৪৩টি সেঞ্চুরি করেন ভারতীয় এ অধিনায়ক। সবমিলে কোহলির সেঞ্চুরি হলো ৭০টি। কিংবদন্তি শচীন টেন্ডুলকারের শততম সেঞ্চুরি স্পর্শ করতে আরও ৩০টি সেঞ্চুরি করতে হবে বর্তমান সময়ের অন্যতম সেরা ব্যাটসম্যান কোহলিকে।

ইডেন টেস্টের প্রথম ইনিংসে ভারতীয় ব্যাটিংয়ে ধস নামান বাংলাদেশ দলের তিন পেসার আল-আমিন হোসেন, ইবাদত হোসেন ও আবু জায়েদ রাহী। তাদের গতির শিকার হয়ে শূন্য রানে ফেরেন দুই ভারতীয় ব্যাটসম্যান। রবিচন্দ্রন অশ্বিনকে মাত্র ৯ রানে ফেরান আল-আমিন।

সিরিজের প্রথম টেস্টে ইন্দোরে ডাবল সেঞ্চুরি হাঁকানো ভারতীয় ওপেনার মায়াঙ্ক আগারওয়ালকে ইডেনে ১৪ রানের বেশি করতে দেননি আল-আমিন। ২১ রানে ভারতের অন্যতম সেরা ওপেনার রোহিত শর্মাকে ফেরান ইবাদত হোসেন। অলরাউন্ডার রবিন্দ্র জাদেজাকে ১২ রানে বোল্ড করেন আবু জায়েদ রাহী।

মন্তব্য