| প্রচ্ছদ

কবিতা ও কথামালা ঝর্ণাধারায়

শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানালো স্বেচ্ছাব্রতী নাগরিক সংগঠন প্রত্যাশা

প্রেস বিজ্ঞপ্তি
পঠিত হয়েছে ১৫৯ বার। প্রকাশ: ১৬ ডিসেম্বর ২০১৯ ।

ব্যতিক্রমী আয়োজনে দেশের লাখো শহীদের প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা ও ভালবাসায় বিজয় দিবস উদযাপন করেছে স্বেচ্ছাব্রতী নাগরিক সংগঠন প্রত্যাশা ২০২১ ফোরাম।

কবিতা ও কথামালার অমীয় বজ্রধ্বনিতে দেশের সূর্যসন্তানদের স্মরণ করতে পারাও আমাদের জন্য গৌরবের। তাদের মহান আত্মত্যাগ ও গৌরব দীপ্ত সংগ্রাম পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর জুলুম, নির্যাতন, শাসন-শোষণ, বৈষম্য ও বঞ্চনার হাত থেকে মুক্তি দিয়েছে। আমরা পেয়েছি একটি স্বাধীন পতাকা, স্বাধীন রাষ্ট্র ও একটি নতুন লাল সূর্য। 

এমনই সব কবিতা ও কথামালায় জমে ওঠেছিল বিজয়ের উৎসব। স্বাধীনতা ও বিজয়ের চেতনায় কবিদের কলম জেগে ওঠেছে। সবার কণ্ঠে ধ্বনিত হয়েছিল বিজয়ের কবিতা, মুক্তিযুদ্ধের চেতনার বাণী। ফোরামের সাংগঠনিক সচিব কবি মাশুক শাহী, সাংস্কৃতিক সচিব শাহিদা পারভীন, শামসুন নাহার আজিজ লীনা, আসমা আকতার ও পাপ্পী তালুকদার লাখো শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে স্বরচিত বিজয়ের কবিতা আবৃত্তি করেন।

এছাড়াও ফোরামের সদস্য নিপেন চন্দ্র বালা সুকান্ত ভট্টাচার্য্যরে বিক্ষোভ কবিতাটি আবৃত্তি করে শোনান। বিজয়ের কবিতা পাঠ শেষে প্রত্যাশা ২০২১ ফোরামের সভাপতি এস এম আজাদ হোসেন এর সভাপতিত্বে বিজয় দিবস ও মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে আলোচনা করেন, ফোরামের সদস্য সচিব রুহি দাস, মৎস্য অধিদপ্তরের সাবেক মহাপরিচালক ড. আরিফ আজাদ, বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য নেটওয়ার্ক (বিএফএসএন) এর চেয়ারম্যান মহিদুল হক খান, সৈয়দা ইয়াসমিন, মো. সোহেল রানা, মো. রাশেদুল ইসলাম রাশেদ, মোহাম্মদ তূয্য, মোহাম্মদ সুমন শেখ ও পান্না হাসানসহ আরো অনেকেই।

আলোচনা সভায় বক্তারা বলেন, 'মহান বিজয় দিবস বীরের জাতি হিসেবে বাঙালির আত্মপ্রকাশের দিন। পৃথিবীর মানচিত্রে স্বাধীন ভূখণ্ড হিসেবে বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার মাইলফলকের দিন। ৯ মাসের মুক্তিযুদ্ধ শেষে ১৯৭১ সালের এই দিন অপরাহ্নে ঢাকার রেসকোর্স ময়দানে পাকিস্তানি হায়েনার দল আত্মসমর্পণ করেছিল। ৩০ লাখ শহীদের বুকের তাজা রক্ত ও ২ লাখ মা বোনের সম্ভ্রম হারিয়ে দীর্ঘ ৯ মাস রক্তক্ষয়ী সংগ্রাম ও আত্মত্যাগের মাধ্যমে আমরা আজ বাংলার স্বাধীনতা পেয়েছি। চূড়ান্ত বিজয়ের মধ্য দিয়ে অভ্যুদয় ঘটে স্বাধীন রাষ্ট্র বাংলাদেশের। এখন আমাদের এই দেশকে সোনার বাংলা হিসেবে গড়ে তোলার দায়িত্ব আমাদের প্রত্যেকের।' 

মন্তব্য