| প্রচ্ছদ

সংবাদ সম্মেলনে জীবনের নিরাপত্তার দাবি মুতাওয়াল্লীর

শেরপুরে মসজিদ ও মাজারের জমি দখল চেষ্টার অভিযোগ

শেরপুর (বগুড়া) প্রতিনিধি
পঠিত হয়েছে ৪৮ বার। প্রকাশ: ১৪ জানুয়ারী ২০২০ ।

বগুড়ার শেরপুর উপজেলার মির্জাপুর ইউনিয়নের বিরইল পুর্ব পাড়া গ্রামে অবস্থিত শাহতুরকান গ্রামে মাজার ও মসজিদের জমি দখল চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে। শেরপুর বাসষ্ট্যান্ডস্থ প্রেসক্লাব কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করে এ অভিযোগ করেন ওই মাজার ও মসজিদের মুতাওয়াল্লী বিরইল গ্রামের মৃত: খোদাবক্স সরকারের ছেলে ফজলুল করিম।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, তার বাবার জীবিদ্দশায় উক্ত মসজিদের মুতাওয়াল্লী হিসেবে নিযুক্ত ছিলেন এবং মসজিদ সংলগ্ন শাহ তুরকান মাজারের যাবতীয় দায়-দায়িত্ব পালন করতেন। এমনকি বিরইল মৌজার অন্তগত জে,এল নং ১৫৭, এম আর আর ১৬১, মাঠ ৫৩৫ ডিপি নং -৭, সাবেক দাগ নং ৬০৪, হাল দাগ নং ১০৬১ তার পিতার সম্পত্তি হতে .০৭ শতকের কাতে .০৪ শতক জমি ৩১/১০/২০০৭ রেজিষ্ট্রিকৃত ৬৬১৩ নং দলির মূলে শাহ তুরকার মাজার জামে মসেিদর নামে ওয়াক্ফ করেন। তার পিতার মৃত্যুর পর তিনি পরিবারের একমাত্র পরেজগার ও ধর্মভিরু ব্যক্তি হিসেবে উক্ত মসজিদের মুতাওয়াল্লী হিসাবে নিযুক্ত হইয়া যাবতীয় দায়-দায়িত্ব সুষ্ঠ ভাবে পালন করে আসছেন। এমতাবস্থায় কিছু চিহ্ণিত সন্ত্রাসী ওই জায়গা জমি দখলের পায়তারা করছে। এমনকি গত ২ জানুয়ারী সন্ধ্যারাতে তিনি গ্রামের বিশ্বরোডের পূর্বপার্শের মাদকের আস্তানা খ্যাত সমিতি ঘর সংলগ্ন জনৈক রহিমের চা-স্টলে বসে ছিলেন।

এসময় ওই সমিতি ঘর থেকে বের হয়ে সন্ত্রাসী মজনু সরকার, আলাল উদ্দিন সরকার, ওমর ফারুক, আমির সরকার, সবুজ সরকার,  ইদিল আলী শেখ, আব্দুস সালাম সরকার, হায়দার আলী, জাবেদ আলী সরকার ও তার ভাই রহিম উদ্দিন সরকার (৩২)সহ ভাড়াটে সন্ত্রাসীরা তাকে চা-ষ্টলের মধ্যেই হত্যার উদ্দেশ্যে হামলা চালিয়ে পিটিয়ে জখম করে। এমতাবস্থায় তিনি নিজেকে ও গ্রামবাসীকে সন্ত্রাসীদের হাত থেকে রক্ষার জন্য উল্লেখিতদের বিরুদ্ধে বগুড়ার নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট “ক” অঞ্চল আদালতে ফৌজদারী কার্যবিধি আইনের ১০৭/১১৭(গ) ধারায় মামলা করেন। মামলা নং-পি ১০/২০২০। এমতাবস্থায় সন্ত্রাসীদের ভয়ে তিনি এখন ঘড়ছাড়া।  তাই তিনি সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে প্রশাসনসহ সংশ্লিষ্ট সকলের কাছে তার জীবনের নিরাপত্তার দাবি জানান।
 

মন্তব্য