| প্রচ্ছদ

বগুড়ায় গ্রাহকের ১০ লাখ টাকা নিয়ে এনজিও উধাও

আমিনুল ইসলাম শ্রাবণ. ধুনট (বগুড়া) উপজেলা প্রতিনিধি
পঠিত হয়েছে ৭৮ বার। প্রকাশ: ৩০ জানুয়ারী ২০২০ ।

বগুড়ার ধুনট উপজেলায় আদ্-দ্বীন ওয়েলফেয়ার নামে একটি বেসরকারি সংস্থার (এনজিও) কর্মকর্তারা গ্রাহকদের প্রায় ১০ লাখ টাকা নিয়ে উধাও হওয়ার অভিযোগ উঠেছে। এতে বিপাকে পড়েছেন ওই এনজিওতে সঞ্চয় রাখা কমপক্ষে ৭০ জন গ্রাহক।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, আদ্-দ্বীন ওয়েলফেয়ার নামে একটি বেসরকারি সংস্থা (এনজিও) ধুনট উপজেলার হুকুম আলী বাসষ্ট্যান্ড এলাকার ঠিকানা দিয়ে ৩ দিন থেকে কার্যক্রম শুরু করে। এলাকায় ঋণ দেওয়ার কথা বলে হুকুম আলী বাসষ্ট্যান্ড এলাকায় রুহুল আমিন লিটনের নির্মানাধীন ভবনের একটি কক্ষ ভাড়া নেয়ার কথা বলে সেখানে চেয়ার টেবিল রাখেন।

ধুনট উপজেলার মাটিকোড়া, উল্লাপাড়া, বেলকুচি, পৌর এলাকার ভরনশাহী, পারধুনটসহ বেশ কয়েকটি গ্রামে সাধারণ ঋণ, গাভী ক্রয়, বিভিন্ন যন্ত্র ও সিএনজিচালিত অটোরিকশা কিনতে ঋণ দেওয়ার কথা বলে এনজিও কর্মকর্তরা। একই কৌশলে তারা এই এলাকার প্রায় ৩০০ জনকে সদস্য করে। এরমধ্যে ৭০ জন গ্রাহক এক লাখ টাকা পাওয়ার আশায় ১০ হাজার, দুই লাখ টাকার জন্য ২০ হাজার টাকা করে সঞ্চয় এনজিও কর্মকর্তাদের নিকট জমা দেন। বৃহস্পতিবার গ্রাহকদের মাঝে ঋণ বিতরণের কথা ছিল। এ অবস্থায় গ্রাহকদের কিছু না বলেই বুধবার বিকেলে এনজিও কর্মকর্তারা এলাকা ছেড়ে পালিয়ে গেছে।

উপজেলা মাটিকোড়া গ্রামের গোলাম হোসেন জানান, মুদি দোকানে ব্যবসায় করেন। ওই সংস্থা থেকে বৃহস্পতিবার তাঁকে দুই লাখ টাকা ঋণ দেওয়ার কথা ছিল। সংস্থাটিতে সঞ্চয় হিসাবে তিনি ২০ হাজার টাকা জমা দেন। এনজিও গ্রাহক শাহাদৎ হোসেন, তাহের আলী, সাইফুল ইসলাম, শাহ আলম, রেফাজ উদ্দিন ও আব্দুল মোমিন জানান, বুধবার বিকেল থেকে যোগাযোগের চেষ্টা করেও ওই সংস্থার নামে ব্যবহৃত নাম্বারের মুঠোফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়।

এ বিষয়ে এনজিও কার্যালয়ের ভবন মালিক রুহুল আমিন লিটন বলেন, আমার ভবনের নীচতলা ৫ লাখ টাকা জামানতসহ মাসে ৫ হাজার টাকা করে ভাড়া প্রদানের অলিখিত চুক্তি হয়েছিল। কিন্ত বৃহস্পতিবার পর্যন্ত ওই এনজিওর কর্মকর্তারা আর যোগাযোগ করেনি এবং তাদের মুঠোফোন বন্ধ রয়েছে। তবে ঋণ প্রদানের কথা বলে এলাকার অনেক গ্রাহকের টাকা নিয়ে উধাও হয়ে গেছে কর্মকর্তারা। 

ধুনট থানার ওসি ইসমাইল হোসেন বলেন, এ ঘটনার কথা শুনেছি। কিন্ত এ বিষয়ে কোন গ্রাহক লিখিত অভিযোগ করেনি। তবে অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

মন্তব্য