| প্রচ্ছদ

শনিবার প্রতিনিধি সম্মেলনে কর্মপন্থা ঠিক হবে

বগুড়ায় তৃণমুল পর্যায়ে আওয়ামী লীগের পুনর্গঠনের কাজ শুরু হচ্ছে

পুণ্ড্রকথা রিপোর্ট
পঠিত হয়েছে ২৬৯ বার। প্রকাশ: ০৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ।

বগুড়ায় তৃণমুল পর্যায়ে আওয়ামী লীগের পুনর্গঠনের কাজ শুরু হচ্ছে। এ বিষয়ে কর্মপরিকল্পনা চুড়ান্ত করতে আজ শনিবার জেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে প্রতিনিধি সম্মেলন আহবান করা হয়েছে। ওই সম্মেলনে কেন্দ্রীয়ভাবে দায়িত্বপ্রাপ্ত দলের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম কামাল হোসেনসহ আরও একাধিক নেতৃবৃন্দের উপস্থিত থাকার কথা রয়েছে।
শহরের জেলা পরিষদ মিলনায়তনে আয়োজিত ওই সম্মেলনে জেলা আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দের পাশাপাশি দলটির প্রত্যেক উপজেলা, ইউনিয়ন এবং পৌর কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকসহ সহযোগী সংগঠনগুলোর জেলা কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকদের উপস্থিত থাকতে বলা হয়েছে।
সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো জানায়, মূলত ওয়ার্ড থেকে ইউনিয়ন, পৌরসভা এবং উপজেলা কমিটিতে সম্মেলনের মাধ্যমে নেতৃত্ব নির্বাচনের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত গ্রহণের জন্যই প্রতিনিধি সভা আহবান করা হয়েছে। এর পাশাপাশি বগুড়া জেলা আওয়ামী লীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠনের জন্যও তৃণমুলের মতামত নেওয়া হতে পারে। এমনকি পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠনের দিক নিদের্শনাও দেওয়া হতে পারে।  
বগুড়ায় আওয়ামী লীগের নেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, কেন্দ্র থেকে আগামী মার্চের মধ্যে জেলার অন্তত ৪টি উপজেলায় ওয়ার্ড, ইউনিয়ন এবং পৌরসভায় সম্মেলনের মাধ্যমে নেতৃত্ব নির্বাচনের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। এক্ষেত্রে যেসব উপজেলায় নেতৃত্ব নিয়ে বিরোধ তুঙ্গে সেগুলোতেই প্রথমে পুনর্গঠনের কাজ শুরু করার কথা বলা হয়েছে।
বগুড়ায় ওয়ার্ড, ইউনিয়ন, পৌরসভা ও উপজেলা পর্যায়ে আওয়ামী লীগের পুনর্গঠনের কাজ সর্বশেষ প্রায় ৮ বছর আগে ২০১২ সালে সম্পন্ন হয়। তার দু’ বছর পর ২০১৪ সালে জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন করা হয়। ওই সম্মেলনের প্রায় দু’ বছর পর ২০১৬ সালে জেলা আওয়ামী লীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করা হয়। তৃণমুল থেকে জেলাসহ সব কমিটিই মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়ে গেলেও কেন্দ্রের নির্দেশে গত বছর শুধু জেলা কমিটি পুনর্গঠনের উদ্যোগ নেওয়া হয়। ২০১৯ সালের ৭ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত সম্মেলনের মাধ্যমে ৭৫ সদস্যের মধ্যে কেবল সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকসহ ৭ সদস্যকে মনোনীত করা হয়।
তবে জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক উপ-দপ্তর সম্পাদক মাশরাফী হিরো জানিয়েছেন, এতদিন তৃণমুলে সম্মেলন করা না গেলেও দলের সদস্য সংগ্রহ ও নবাবয়নের মত মৌলিক কাজ সম্পন্ন করা সম্ভব হয়েছে। ২০১৭ থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত দু’ বছরে জেলার প্রতিটি ওয়ার্ডে দেড়শ’ জন করে ১০৮টি ইউনিয়ন এবং ১২টি পৌরসভায় সব মিলে প্রায় পৌণে ২ লাখ সদস্য সংগ্রহ ও নবায়ন করা হয়েছে। তিনি বলেন, এসব সদস্যরাই এখন ওয়ার্ড, ইউনিয়ন, পৌরসভা ও উপজেলা কমিটি পুনর্গঠনে ভূমিকা রাখবে।
খোঁজ নিয়ে জান গেছে, কেন্দ্র থেকে আগামী মার্চের মধ্যে ৪টি উপজেলায় ওয়ার্ড, ইউনিয়ন, পৌরসভা এবং উপজেলা কমিটি পুনর্গঠনের নির্দেশনা থাকলেও মুজিব বর্ষের আনুষ্ঠানিকতা এবং বগুড়া-১ আসনে সম্ভাব্য উপ-নির্বাচনের কারণে জেলা নেতৃবৃন্দের পক্ষে সেই লক্ষ্য পুরোপুরি বাস্তবায়ন সম্ভব নাও হতে পারে। তবে জেলার ৪টি না হলেও তিনটি যথাক্রমে দুপচাঁচিয়া, নন্দীগ্রাম ও শিবগঞ্জ উপজেলায় পুনর্গঠনের কাজ শেষ করার লক্ষ্য থাকবে তাদের।
পুনর্গঠনের উদ্যোগ সম্পর্কে জানতে চাইলে বগুড়া জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রাগেবুল আহসান রিপু বলেন, কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ যে নির্দেশনা দিবেন আমরা সেভাবেই কাজ করবো। আমাদের মূল লক্ষ্য হলো সব ভেদাভেদ ভুলে নেতা-কর্মীকে ঐক্যবদ্ধ করা এবং তাদের সবার অংশগ্রহণে দলকে আরও শক্তিশালী করা। 

মন্তব্য