| প্রচ্ছদ

নওগাঁয় জামাই বাড়িতে বেড়াতে এসে প্রাণ গেল এক বৃদ্ধার: আটক ৪

নওগাঁ প্রতিনিধি
পঠিত হয়েছে ৭৫ বার। প্রকাশ: ১১ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ।

নওগাঁর মান্দায় জামাই বাড়িতে বেড়াতে এসে প্রাণ গেল হালিমা বিবি(৭০) নামে এক বৃদ্ধার। মঙ্গলবার বেলা ১১টার দিকে উপজেলার কালিকাপুর ইউনিয়নের শীলগ্রামে গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নিহত হালিমা বিবি পাশের শ্রীরামপুর গ্রামের মৃত ময়েজ উদ্দিনের স্ত্রী। এদিকে অভিযোগ উঠেছে প্রতিপক্ষের ধাক্কা-ধাক্কি ও মারধরে তিনি মারা গেছেন। এই ঘটনায় পুলিশ চারজনকে আটক করেছে। আটকরা হলেন, শীলগ্রামের আবু সাইদের ছেলে হায়দার আলী (২৫) ও এমদাদুল হক (৪৫), আবু সাইদের  স্ত্রী সায়েরা বিবি (৬০)  ও  হায়দারের স্ত্রী শাকিলা (২০)। ঘটনার পর থেকে আবু সাইদ পলাতক রয়েছেন। এদিকে ঘটনা জানার পর ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন মান্দার সহকারী পুলিশ সুপার মতিয়ার রহমান।


স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, রোববার হালিমা বিবি শীলগ্রামে তার মেয়ে সাজেদার  ও জামাই ইমাজ উদ্দিনের  বাড়িতে বেড়াতে আসেন। সোমবার হালিমার নাতী সাজেদুর রহমান প্রতিবেশী রিফাত নামে এক ছেলেকে দিয়ে খাওয়ার জন্য একই গ্রামের আবু সাইদের গাছের বেল নামান। এরই জের ধরে মঙ্গলবার সকাল ১১ টার দিকে গ্রামের মাঠে আবু সাইদের ছেলে এমদাদুল হকের সাথে সাজেদুর রহমানের দ্বন্দ্ব হয়। এক পর্যায়ে সাজেদুরের সঙ্গে এমদাদুলের মারপিটের ঘটনা ঘটে। সুযোগ পেয়ে সাজেদুর সেখান থেকে পালিয়ে বাড়িতে আসেন। পরে আবু সাইদের নেতৃত্বে তার ছেলে রহিদুল হক, হায়দার আলী ও এমদাদুল হক, স্ত্রী সায়েরা বিবি, হায়দারের স্ত্রী শাকিলাসহ অন্যরা লাঠিসোটা নিয়ে সাজেদুর রহমানের বাড়িতে হামলা চালায়। এসময় হালিমা বিবি ঘরের ভিতর থেকে বের হয়ে সংগর্ষ টেকাতে এগিয়ে আসলে প্রতিপক্ষের লোকজন তাকে ধাক্কা-ধাক্কি করে  চর-থাপ্পর মারার একপর্যায হালিমা বিবি মাটিতে লুটিয়ে পড়ে মারা যান।


এদিকে প্রতিপক্ষের মারপিটে তার মা নিহত হয়েছে বলে সাজেদা দাবি করলের প্রতিপক্ষের লোকজনের মধ্যে আবু সাইদ ও রহিদুল ইসলাম বলেন তাকে কোন মারপিট করা হয়নি। ওই বৃদ্ধা মারপিটের দৃশ্য দেখে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন।


বিষয়টি থানা পুলিশ জানতে পেরে দুপুর ১টার দিকে লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য নওগাঁ সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।
মান্দা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোজাফফর হোসেন বলেন, নিহতের লাশ উদ্ধারসহ ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে চারজনকে আটক করা হয়েছে। লাশের ময়না তদন্তের রিপোর্ট পেলে প্রকৃত রহস্য উদঘাটন করা সম্ভব হবে। এই ঘটনায় থানায় মামলা হত্যা মামলা দায়ের করার প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

 

মন্তব্য