| প্রচ্ছদ

বগুড়ায় ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তফা জব্বার

শিক্ষার্থীদের জন্যই অভিভাবকদের তথ্যপ্রযুক্তি সম্পর্কে অভিজ্ঞতা অর্জন করতে হবে

স্টাফ রিপোর্টার
পঠিত হয়েছে বার। প্রকাশ: ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ১৬:৩৭:২১ ।

শিক্ষার্থীরা ইন্টারনেট আর স্মার্টফোনকে যাতে মন্দ কাজে ব্যবহার করতে না পারে সেজন্য অভিভাবকদের তথ্যপ্রযুক্তি সম্পর্কে অভিজ্ঞতা অর্জনের পরামর্শ দিয়েছেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তফা জব্বার। তিনি বলেন, ‘স্কুলের শিক্ষার্থীদের কেউ যাতে ইন্টারনেট আর স্মার্টফোনকে মন্দ কাজে ব্যবহার করতে না পারে সেজন্য  বাবা-মাসহ অভিভাবকদের তথ্যপ্রযুক্তি সম্পর্কে অভিজ্ঞতা অর্জন করতে হবে। তবেই ছেলে- মেয়েদেরকে মন্দ কাজ থেকে বিরত রাখা সহজ হবে।’ শনিবার সকালে বগুড়া করতোয়া মাল্টিমিডিয়া স্কুল ও কলেজের বার্ষিকী ক্রীড়া প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এ কথা বলেন।
মোস্তফা জব্বার ছেলে-মেয়েদেরকে ভালভাবে গাইড করার পরামর্শ দিয়ে বলেন, ‘ছেলে-মেয়েরা কখনও এমনি এমনি বা নিজের ইচ্ছায় খারাপ কাজে জড়িয়ে পড়ে না। বাবা-মাসহ অভিভাবকদের অবহেলা, তাদের বুঝতে না পারা বা সময় না দেওয়ার কারণে সন্তানদের মধ্যে এক ধরনের নেতিবাচক প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয় এবং তারা মন্দকাজের দিকে ধাবিত হতে থাকে। কিন্তু অভিভাবকরা যদি সন্তানদের সঠিকভাবে গাইড করতে পারেন, নিয়মিত খোঁজ-খবর নিতে পারেন এবং তাদের পর্যাপ্ত সময় দিতে পারেন তাহলে তারা কখনোই মন্দকাজে যুক্ত হতে পারে না।
ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তফা জব্বার শিক্ষার্থীদেরকে প্রোগ্রামিং শেখার আহবান জানিয়ে বলেন, ‘প্রতিনিয়ত তথ্য প্রযুক্তি খাতে যে বিকাশ ঘটছে তাতে আগামীতে পড়ালেখা শুধু পাঠ্য পুস্তুকের মধ্যে সীমাবদ্ধ রাখলে চলবে না। ডাক্তার কিংবা ইঞ্জিনিয়ারÑএসব হলে কি হলে না তার চেয়েও যে বিষয়টি গুরুত্ব পাবে তা হলো তোমরা প্রোগ্রামিং জান কিনা? এজন্য সরকার তথ্যপ্রযুক্তির উন্নয়নের পাশাপাশি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে তা ছড়িয়ে দেওয়ার জন্য কাজ করে যাচ্ছে।’
করতোয়া মাল্টিমিডিয়া স্কুল ও কলেজের চেয়ারম্যান মোজাম্মেল হক লালুর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তৃতা করেন বগুড়ার জেলা প্রশাসক ফয়েজ আহাম্মদ, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার গাজিউর রহমান, তথ্যপ্রযুক্তি বিষয়ক প্রতিষ্ঠান বিজয় ডিজিটাল-এর প্রধান নির্বাহী জেসমিন জুই ও প্রতিষ্ঠানটির অধ্যক্ষ ছামসুল আলম।

 

মন্তব্য