| প্রচ্ছদ

খারাপ হলো না জিম্বাবুয়ের ব্যাটিং প্রস্তুতি

পুণ্ড্রকথা ডেস্ক
পঠিত হয়েছে ৬৩ বার। প্রকাশ: ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ।

মিরপুর টেস্টের আগে মঙ্গলবার থেকে বিসিবি একাদশের বিপক্ষে দুই দিনের প্রস্তুতি ম্যাচ খেলছে সফরকারী জিম্বাবুয়ে ক্রিকেট দল। অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপজয়ী ছয় ক্রিকেটার বিসিবি একাদশে থাকায় ম্যাচটা বেশ আলোচিত। ‘বিশ্বজয়ী’ অফ স্পিনার শাহাদাত হোসেন দারুণ বোলিংয়ে আলোও কাড়লেন। তবে প্রথম দিনে জিম্বাবুয়ের ব্যাটিং প্রস্তুতিটাও খারাপ হয়নি।

বিকেএসপির ৩ নম্বর গ্রাউন্ডে টস জিতে ব্যাটিং বেছে নেয় জিম্বাবুয়ে। পুরো ৯০ ওভারই খেলা হয়েছে প্রথম দিন। যেখানে জিম্বাবুয়ের পুঁজি ৭ উইকেটে ২৯১।

কোনো সিরিজে প্রস্তুতি ম্যাচ মানেই সফরকারী দলের কন্ডিশনের সঙ্গে মানিয়ে নেওয়া ও নিজেদের ব্যাটিং-বোলিং ঝালিয়ে নেওয়া। সেই হিসেবে জিম্বাবুয়ে এদিন ব্যাট করতে নেমে শুরুটা করে মনের মতো। উদ্বোধনী জুটিতে ১০৫ রান যোগ করেন দুই ওপেনার প্রিন্স মাসভরে ও কেভিন কাসুভা।

প্রথম সেশন অবিচ্ছিন্ন থাকার পর দ্বিতীয় সেশনের শুরুতে তারা বিচ্ছিন্ন হন। মাসভরেকে ফিরিয়ে জুটি ভাঙেন আল-আমিন জুনিয়র। ৭৭ বলে ৭ চারে ৪৫ রান করেন মাসভরে। ফিফটি ‍তুলে নেওয়া কাসুভাও তখন মাঠ ছাড়েন পরবর্তী ব্যাটসম্যানদের সুযোগ করে দিতে।

বিসিবি একাদশ সেই সুযোগে দারুণভাবে ম্যাচে ফেরে। বিনা উইকেটে ১০৫ থেকে ৬ উইকেটে ১৭৭ রানে পরিণত হয় জিম্বাবুয়ে। শাহাদাত তুলে নেন ৩ উইকেট। প্রথমে ক্রেইগ আরভিনকে (১০) ফেরান। পরে একই ওভারে নেন রেজিস চাকাভা (১৩) ও তিনোতেন্দা মুতোমবোজি (০)। মাঝে শরিফুল নিয়েছিলেন ব্রায়ান মুদজিঙ্গানায়ামার (১৭) উইকেট।

চাপের মুখে উইকেট ছেড়ে যাওয়া কাসুজা আবার ব্যাটিংয়ে নামের। ৫১ রান নিয়ে মাঠ ছেড়েছিলেন। পরে এসে আরো ১৯ রান যোগ করতে পেরেছেন। বিসিবি একাদশের ষষ্ঠ শিকার হয়ে ফিরতে হয়েছে তাকে। রান আউটের শিকার হওয়ার আগে ১৩০ বলে ৭০ রান করেন তিনি ১২ চারে।

১৭৭ রানে ৬ উইকেট হারানোর পর জিম্বাবুয়ে সপ্তম উইকেট হারায় ২২৬ রানে। মারুমাকে ফেরান আল-আমিন। দিনের বাকি সময় চার্ল মুম্বা ও এন্ডলোভু পার করে দিয়েছেন অবিচ্ছিন্ন থেকে।

মুম্বা ফিফটি তুলে নিয়েছেন। ১০৫ বলে ৪ চার ও ১ ছক্কায় অপরাজিত ৫৪ রান করে মাঠ ছেড়েছেন তিনি। এন্ডলোভু অপরাজিত ২৫ রানে।

বিসিবি একাদশের পক্ষে ৩ উইকেট নিয়ে সবচেয়ে সফল শাহাদাত। এদিন তার বোলিং স্পেল- ৮-২-১৬-৩। আল-আমিন ২টি ও শরিফুল নিয়েছেন ১ উইকেট।

মন্তব্য