| প্রচ্ছদ

রাখাইনে শিশুসহ ৫ রোহিঙ্গাকে হত্যা করল মিয়ানমার সেনারা

পুণ্ড্রকথা ডেস্ক
পঠিত হয়েছে ৪৮ বার। প্রকাশ: ০২ মার্চ ২০২০ ।

মিয়ানমারের রাখাইনে শিশুসহ পাঁচ রোহিঙ্গাকে হত্যা করেছে দেশটির সেনাবাহিনী। আহত হয়েছেন বেশ কয়েকজন রোহিঙ্গা।

একজন সংসদ সদস্য ও স্থানীয় দুই বাসিন্দা রবিবার বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে এ তথ্য জানিয়েছে।

জানা গেছে, বৌদ্ধ বিদ্রোহী গোষ্ঠী আরকান আর্মি এবং সেনাবাহিনীর মধ্যে সংঘর্ষের সময় এসব জাতিগত মুসলিম রোহিঙ্গা নিহত হন। রাখাইনে বৃহত্তর স্বায়ত্তশাসনের দাবিতে সশস্ত্র লড়াই করে আসছে আরাকান আর্মি।

আঞ্চলিক সাংসদ তুন থার সেইন এবং বিদ্রোহী গোষ্ঠীর মুখপাত্র খিনে থু খা জানান, ঐতিহাসিক মন্দিরের শহর ম্রাউক উ শহরে অতিক্রম করার সময় একটি সামরিক বহরে বিদ্রোহীরা হামলা চালালে এ সংঘর্ষের শুরু হয়।

দুজন সামরিক মুখপাত্রকে রয়টার্স ফোন করলেও এ বিষয়ে তারা কোনো মন্তব্য করেননি। এ বিষয়ে নিজেদের ওয়েবসাইটে তাৎক্ষণিক কোনো বিবৃতিও দেয়নি সেনাবাহিনী।

আরাকান আর্মির মুখপাত্র খিনে থু খা বেসামরিক নাগরিক হতাহতের জন্য সেনাবাহিনীকে দায়ী করেছেন।

নিহতদের মধ্যে ১২ বছর বয়সী এক রোহিঙ্গা শিশু রয়েছে। তবে আহত রোহিঙ্গাদের সংখ্যা নিয়ে পরস্পর বিরোধী তথ্য পাওয়া যাচ্ছে। এই সংখ্যা ৬ থেকে ১১ জন হতে পারে।

গত ২০১৭ সালের আগস্টে সামরিক অভিযানে বহু রোহিঙ্গা নিহত হন। পালিয়ে প্রতিবেশী বাংলাদেশে আশ্রয় নেয় প্রায় সাড়ে ৭ লাখ রোহিঙ্গা। এ ঘটনায় মিয়ানমারের বিরুদ্ধে গণহত্যার অভিযোগ করেছে জাতিসংঘ।

কয়েক হাজার রোহিঙ্গা এখনো মিয়ানমারে রয়েছেন। তাদের অনেককেই বন্দিশিবির এবং নিজ গ্রামে অবরুদ্ধ করে রাখা হয়েছে। রোহিঙ্গাদের সুরক্ষা দিতে আন্তর্জাতিক বিচার আদালতের (আইসিজে) নির্দেশনা সত্ত্বেও নতুন করে এ হতাহতের ঘটনা ঘটল।

মন্তব্য