| প্রচ্ছদ

সিরিয়ার বিমান ভূপাতিত করার পর তুরস্ককে রাশিয়ার হুমকি

পুণ্ড্রকথা ডেস্ক
পঠিত হয়েছে ৫৫ বার। প্রকাশ: ০২ মার্চ ২০২০ ।

ইদলিবে তুরস্কের সেনাবাহিনীর হামলায় সিরিয়ার দুটি জঙ্গিবিমান ভূপাতিত হওয়ার পর দেশটির যুদ্ধ পরিস্থিতি নতুন মোড় নিয়েছে।

এ ঘটনায় রাশিয়া হুশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেছে, সিরিয়ার আকাশে তুরস্কের জঙ্গিবিমানের কোনো নিরাপত্তার নিশ্চয়তা দিতে পারবে না মস্কো। খবর ইতার তাস ও আলজাজিরার।

সিরিয়ার উত্তর-পশ্চিমাঞ্চল বিশেষ করে ইদলিবপ্রদেশের আকাশসীমা বন্ধ ঘোষণার পর রাশিয়ার পক্ষ থেকে এ বক্তব্য দেয়া হলো।

এদিকে সিরিয়ার সরকারি বাহিনীর হামলায় তুরস্কের তিনটি ড্রোন ভূপাতিত হয়েছে বলে দাবি করা হচ্ছে। রোববার তুর্কি বাহিনীর হামলায় সিরিয়ার দুটি জঙ্গিবিমান সিরিয়ার ভূখণ্ডেই ভূপাতিত হয়েছে।

সিরিয়া উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের আকাশসীমা বন্ধ ঘোষণার পাশাপাশি হুশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেছে, যে কোনো বিমান এই নিষেধাজ্ঞা লঙ্ঘন করলে তাকে ভূপাতিত করা হবে।

সিরিয়ার সেনাবাহিনী জানিয়েছে, দেশের সার্বভৌমত্ব, নিরাপত্তা ও ভৌগোলিক অখণ্ডতা রক্ষার সাংবিধানিক এবং জাতীয় দায়িত্ব পালনের জন্য তারা এই পদক্ষেপ নিয়েছে।

রাশিয়ার প্রেসিডেন্টের মুখপাত্র দিমিত্র পেসকভ বলেন, সিরিয়ায় সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে চলমান যুদ্ধ অব্যাহত থাকবে।

তিনি সিরিয়ার ইদলিবপ্রদেশে সে দেশের সেনাবাহিনী ও রুশ অবস্থানে সন্ত্রাসীদের গোলাবর্ষণের কথা উল্লেখ করে বলেন, সন্ত্রাসীরা নির্মূল না হওয়া পর্যন্ত সিরিয়ার সশস্ত্র বাহিনী তাদের বিরুদ্ধে অভিযান চালিয়ে যাবে।

পেসকভ আরও বলেন, সোচি চুক্তি অনুযায়ী সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ নিতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ হয়েছিল তুরস্ক; কিন্তু দেশটি সে প্রতিশ্রুতি রক্ষা করেনি।

সিরিয়ার উত্তরাঞ্চলীয় ইদলিবপ্রদেশে বর্তমানে সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে ব্যাপক অভিযান চালাচ্ছে দামেস্ক। ওই অভিযানে সম্প্রতি ইদলিবে মোতায়েন ৩৪ তুর্কি সেনা নিহত হন।

রোববার তুরস্ক সিরিয়ার দুটি জঙ্গিবিমান ভূপাতিত করে এবং তুরস্কের চারটি ড্রোন গুলি করে নামায় সিরিয়া। সার্বিকভাবে সিরিয়ার ইদলিবপ্রদেশে তুরস্ক ও সিরিয়ার মধ্যে প্রচণ্ড উত্তেজনা বিরাজ করছে এবং দু’দেশ সম্পূর্ণ যুদ্ধাবস্থায় রয়েছে।

মন্তব্য