| প্রচ্ছদ

বগুড়ার অবৈধভাবে পুকুর খনন: ২টি ড্রেজার ভেঙে দিলেন ভ্রাম্যমান আদালত

শেরপুর(বগুড়া) প্রতিনিধি
পঠিত হয়েছে ১৫৮০ বার। প্রকাশ: ০৬ মার্চ ২০২০ ।

বগুড়ার শেরপুরে অবৈধভাবে জমির শ্রেণী পরিবর্তন করে পুকুর খনন করায় ২টি ড্রেজার ভেঙে দিয়েছে ভ্রম্যামান আদালত। এছাড়া জড়িতদের  অর্থদন্ডও করা হয়। শুক্রবার (৬মার্চ )দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে উপজেলার খানপুর ইউনিয়নের শুবলী এলাকায় এ অভিযান পরিচালনা করেন উপজেলা সহকারি কমিশনার ভূমি জামশেদ আলাম রানা ।
জানা যায়, শুবলী গ্রামের জালাল উদ্দিনের ছেলে আব্দুস সামাদ সরকারি নিয়ম না মেনে আবাদি জমির মাটি কেঁটে পুকুর খনন করছিল। এমন সংবাদের ভিত্তিতে উপজেলা সহকারি কমিশনার ভূমি জামশেদ আলাম রানা শেরপুর থানা পুলিশের সহযোগিতায় ভ্রাম্যামান আদালত পরিচালনা করেন। এসময় পুকুর খননের কাজে ব্যবহৃত দুটি  ড্রেজার ভেঙে দেয়া হয় এবং ৫ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়। 

উপজেলা সহকারি কমিশনার ভূমি জামশেদ আলাম রানা জানান, জমির প্রকৃতি পরিবর্তন করে পুকুর খননকারীদের বিরুদ্ধে অভিযান চালানো হচ্ছে। এরই অংশ হিসেবে এই অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে। কারণ যাঁরা পুকুর খনন করছিলেন তারা জমির প্রকৃতি পরিবর্তনের জন্য কোনো আবেদন করেননি।
তিনি আরও জানান, জরুরী প্রয়োজনে পুকুর কাটার প্রয়োজন হলে রাষ্ট্রীয় অধিগ্রহণ ও প্রজাস্বত্ব আইন, ১৯৫০ এর ১০৭ ধারা মোতাবেক নির্ধারিত পদ্ধতি অনুসরণ করে জেলা প্রশাসক বরাবর আবেদন করেঅনুমোদন নিতে হয়। পূর্বানুমোদন ব্যাতীত আবাদি জমি নষ্ট করে মাটি কাটা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ। বালু মহল ও মাটি ব্যবস্থাপনা আইন, ২০১০ এর ১৫ ধারার ১ উপধারা অনুসারে যথাযথ কর্তৃপক্ষের পূর্বানুমোদন ব্যাতীত আবাদি জমি নষ্ট করে মাটি কাটলে ২ বছরের কারাদন্ড বা সর্বনিম্ন ৫০ হাজার টাকা থেকে ১০ লক্ষ টাকা পর্যন্ত অর্থদন্ড বা উভয়দন্ডের বিধান রয়েছে। জনস্বার্থে সকলকে এধরনের কার্যক্রম থেকে বিরত থাকার জন্য আহবান জানান তিনি।

মন্তব্য