| প্রচ্ছদ

অভ্যুত্থান চেষ্টার অভিযোগে সৌদিতে অন্তত '২০ প্রিন্স আটক'

পুণ্ড্রকথা ডেস্ক
পঠিত হয়েছে ৪৭ বার। প্রকাশ: ০৮ মার্চ ২০২০ ।

সৌদি আরবের যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের বিরুদ্ধে অভ্যুত্থান চেষ্টার অভিযোগে অন্তত ২০ জন প্রিন্সকে 'আটক' করা হয়েছে। শনিবার রাতে মিডল ইস্ট আইয়ের এক প্রতিবেদনে এমনটা দাবি করা হয়েছে।

এর আগে সৌদি বাদশাহর ছোট ভাই আহমেদ বিন আবদুল আজিজসহ তিনজনকে আটকের কথা জানা গিয়েছিল, যাদের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহের অভিযোগ আনা হয়েছে বলে ওয়ালস্ট্রিট জার্নাল ও নিউইয়র্ক টাইমসের খবরে বলা হয়।

মিডল ইস্ট আইয়ের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, অন্তত ২০ জন প্রিন্সকে আটক করার তথ্য তাদের কাছে থাকলেও এখন পর্যন্ত তারা চারজনের নাম জানতে পেরেছে। প্রিন্স আহমেদ ছাড়া বাকি তিনজন হলেন- প্রিন্স আহমেদের ছেলে প্রিন্স নায়েফ বিন আহমেদ বিন আবদুল আজিজ, সাবেক যুবরাজ প্রিন্স মোহাম্মদ বিন নায়েফ ও তার সৎ ভাই নাওয়াফ বিন নায়েফ।

এদের মধ্যে প্রিন্স নায়েফ বিন আহমেদ সৌদি আরবের স্থল বাহিনী গোয়েন্দা ও নিরাপত্তা কর্তৃপক্ষের প্রধান। এখন পর্যন্ত যারা আটক হয়েছেন তাদের মধ্যে তিনিই সৌদি আরবের সামরিক বাহিনীর সবচেয়ে বড় পদে রয়েছেন।

সৌদি আরবের বাদশাহ সালমান বিন আবদুল আজিজ (ডানে) ও যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের সঙ্গে সাবেক যুবরাজ প্রিন্স মোহাম্মদ বিন নায়েফ

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, রাজপরিবারের সদস্যদের আটকের পর যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান সব প্রিন্সদের তার প্রতি আনুগত্য প্রকাশ করে টুইট করতে বলেন। ইতোমধ্যে তিনজন প্রিন্স তা করেছেনও।

এদিকে আঞ্চলিক সূত্রের বরাত দিয়ে রয়টার্সের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, যুবরাজ মোহাম্মদ আটক প্রিন্সদের বিরুদ্ধে অভ্যুত্থানের উদ্দেশ্যে যুক্তরাষ্ট্রসহ বিদেশি শক্তির সঙ্গে যোগাযোগের অভিযোগ এনেছেন।

সূত্রের বরাত দিয়ে রয়টার্সের প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, বাদশাহ সালমান নিজেই প্রিন্সদের গ্রেপ্তারে জারি করা আদেশে সই করেন। এ সময় বাদশাহর মানসিক অবস্থা ভালো ছিল বলেও দাবি করেছে ওই সূত্র। উল্লেখ্য, বাদশাহ সালমান ডিমেনশিয়া বা স্মৃতিভ্রংশ রোগে আক্রান্ত বলে জানা যায়।

মন্তব্য