| প্রচ্ছদ

মুকেশ আম্বানিকে পেছনে ফেলে এশিয়ার সেরা ধনী জ্যাক মা

পুণ্ড্রকথা ডেস্ক
পঠিত হয়েছে ৫৫ বার। প্রকাশ: ১০ মার্চ ২০২০ ।

ভারতের রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের কর্ণধার মুকেশ আম্বানিকে পেছনে ফেলে এশিয়ার সেরা ধনীর তকমা এখন ই-কমার্স সাম্রাজ্য আলিবাবার প্রধান নির্বাহী চীনের অন্যতম বিত্তশালী জ্যাক মার দখলে।

গত বছর রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের কর্ণধার মুকেশ আম্বানি বিপি পিএলসি সংস্থার দায়িত্ব নিয়ে তার সম্পদের পরিমাণ যেন আরও ফুলিয়ে-ফাঁপিয়ে তোলেন। খবর ব্লুমবার্গের।

রিলায়েন্স গ্রুপের ব্যবসা রাতারাতি ১৩২ বিলিয়ন মার্কিন ডলার থেকে বেড়ে ১৩৮ বিলিয়ন মার্কিন ডলারে দাঁড়ালে গত বছর চীনের ধনকুবের জ্যাক মাকে পেছনে ফেলে এশিয়ার সেরা ধনী হয়েছিলেন মুকেশ আম্বানি।

গত বছর রিলায়েন্সের ব্যবসার হার ৪০ শতাংশ এবং বিপি সংস্থার ব্যবসায় লাভ ১২ শতাংশ বাড়লেও এ বছর জ্বালানি তেলে লোকসান হওয়া আয় ৫.৮ বিলিয়ন ডলার কম হয়েছে।

এ কারণে এশীয়ার ধনীর তালিকায় ২ নম্বরে মেমে গেছে মুকেশের নাম।

জ্বালানি তেল ছাড়াও গত বছর টেলিকম পরিসেবা এবং খুচরা ব্যবসায় আম্বানি সাফল্যের মুখ দেখেছিলেন। বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম মোবাইল গ্রাহকের দেশে টেলিকম পরিসেবা ক্ষেত্রে মুকেশ আম্বানির সংস্থা বিনিয়োগও করেছে বিপুল পরিমাণে।

শুধু আম্বানিই নয়, বিশ্বের অন্য ধনকুবের যাদের তেলের ব্যবসা আছে, তারাও ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। এদের মধ্যে হ্যারোল্ড হ্যাম, জেফ হিল্ডেব্যান্ড প্রমুখ উল্লেখযোগ্য।

এছাড়া, অ্যামাজনের প্রতিষ্ঠাতা জেফ বেজোসের সম্পদ কমেছে প্রায় ৪ দশমিক ৪ বিলিয়ন ডলার, বার্কশায়ার হাথাওয়ের ওয়ারেন বাফেটের ৪ দশমিক ৪ বিলিয়ন ডলার, এলভিএমএইচের প্রধান বার্নার্ড আর্নল্টের সম্পদ কমেছে ৪ দশমিক ২ বিলিয়ন ডলার।

জ্যাক মা তার ক্যারিয়ার শুরু করেছিলেন হাংঝু বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজির শিক্ষক হিসেবে। ১৯৯৯ সালে জ্যাক মাসহ কয়েকজন অংশীদার মিলে প্রতিষ্ঠা করেন আলিবাবা। বর্তমানে আলিবাবা ৪৬০ বিলিয়ন ডলারের কোম্পানি আর জ্যাক মা চীনের শীর্ষ ধনী ব্যক্তি।

মন্তব্য