| প্রচ্ছদ

করোনা প্রতিরোধে বগুড়া জেলা পুলিশের সচেতনতামূলক সভা

স্টাফ রিপোর্টার
পঠিত হয়েছে ৩১৬ বার। প্রকাশ: ১১ মার্চ ২০২০ ।

জেলা পুলিশ বগুড়ার উদ্যোগে নোভেল করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে বুধবার সকালে শহরের মালতীনগর বগুড়া মহিলা ডিগ্রি কলেজের হল রুমে শিক্ষার্থীদের সাথে সচেতনতামূলক সভা করা হয়েছে। সচেতনতামূলক সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন বগুড়া পুলিশ সুপার আলী আশরাফ ভূঞাঁ বিপিএম (বার)।  বগুড়া মহিলা ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ মোকাব্বর হোসেনের সভাপতিত্বে আরও বক্তব্য রাখেন বগুড়া সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এসএম বদিউজ্জামান।

এসময় বগুড়া মহিলা ডিগ্রি কলেজের শিক্ষক সহকারী অধ্যাপক একেএম সারোয়ার হোসেন, সিরাজুন নাহার, শামীমা সুলতানা, তাহেরা বেগম, মাহমুদা আখতার বানু, প্রভাষক হরিপদ রায়, প্রভাষক জহুরুল ইসলাম, সেলিমা খাতুন, নাসরিন বেগম, মাসুদ রানা, আব্দুর রাজ্জাক, খাদিজা খানম, রাহেলা খাতুন, তুহিন রানা, শফি মাহমুদ, শ্যামলী রানী সহ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা কর্মচারীরা উপস্থিত ছিলেন। সচেতনতামূলক সভায় শিক্ষার্থীদের মাঝে নোভেল করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে লিফলেট বিতরণ করেন বগুড়া পুলিশ সুপার আলী আশরাফ ভূঞাঁ।

সভায়  প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি বলেন, সচেতনার মাধ্যমে নোভেল করোনা ভাইরাস রুখে দিতে হবে। সচেতনতার অভাবে করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ে। করোনা ভাইরাস ভারি হওয়ায় এটি মাটিতে পড়ে থাকে। হাত পায়ের সংস্পর্শে নাক মুখ দিয়ে শরীরে প্রবেশ করে। তাই বাহিরে যাওয়ার সময় মাস্ক ব্যবহার করতে হবে। আবার বাসায় ফিরে সঠিক ভাবে শরীরের অঙ্গপ্রতঙ্গ পরিস্কার করতে হবে। বাংলাদেশ সরকারের স্বাস্থ্য বিভাগ সর্বদা কাজ করে যাচ্ছে। এই রোগ থেকে বাঁচতে সকলকে সচেতন হতে হবে। সচেতনতায় পারে নোভেল করোনার বিস্তার রোধ করতে। সচেতন মানুষ সব সময় পরিস্কার পরিচ্ছন্ন থাকে, সর্বদা পরিস্কার কাপড় পরিধান করে। সচেতনতা ও ধর্মীয় অনুশাসন মেনে চলাফেরা করা জরুরী। কারণ ধর্মীয় অনুশাসনে পরিস্কার পরিচ্ছন্নতার উপর বিশেষ গুরুত্ব দেয়া হয়েছে। আক্রান্ত ব্যক্তির হাঁচি কাশি থেকে, আক্রান্ত ব্যক্তিকে স্পর্শ করলে এবং গবাদিপশুর মাধ্যমে এই রোগ ছড়ায়। তাই করোনা ভাইরাস আক্রান্ত ব্যক্তি চিকিৎসার জন্য দ্রুত নিকটস্থ সরকার কতৃক স্থাপিত কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে পাঠানোর ব্যবস্থা করতে হবে। শিক্ষার্থীদের লেখাপড়ার তাগিদে বাড়ির বাইরে অবস্থান করতে হয়। তাই তাদের সর্বদা সচেতন থাকতে হবে।

মন্তব্য