| প্রচ্ছদ

অভিনব জুতো! হাটাও হবে, মোবাইল চার্জও হবে।

পুন্ড্রকথা ডেস্ক
পঠিত হয়েছে ৫০ বার। প্রকাশ: ১৩ মার্চ ২০২০ ।

ফোন চার্জ দিলেই ফিট হয়ে যাবেন আপনি। অবাক লাগছে?
ফোন চার্জ দিতে গিয়ে কী ভাবে ফিটনেস ধরে রাখা যায়, পাঁচ বছর আগেই তার একটা উপায় আবিষ্কার করেছেন ভারতের দুই কিশোর।

দিল্লির বাসিন্দা মোহাক এবং আনন্দ। দু’জনেরই বয়স এখন ২০ বছর। দশম শ্রেণিতে পড়ার সময়ই পদার্থবিদ্যার একটি থিয়োরি কাজে লাগিয়ে তাঁরা একটি অভিনব মোবাইল চার্জার বানিয়ে ফেলেন। তাঁদের আবিষ্কারের নাম ওয়াকি মোবি চার্জার। যন্ত্রটি জুতোয় লাগানো থাকবে। এটা এমন একটা যন্ত্র যা আপনার হাঁটার গতিশক্তিকে বিদ্যুৎ শক্তিতে রূপান্তরিত করবে। সাধারণ বৈদ্যুতিক চার্জারের তুলনায় মোবাইল ফোন চার্জ হবে ২০ গুন দ্রুতগতিতে। তবে এখনই ইচ্ছা করলে কেউ যন্ত্রটি কিনতে পারবেন না। কারণ যন্ত্রটি বাজারজাত করার উপযোগী হয়ে ওঠেনি এখনও। পড়াশোনার ফাঁকে ফাঁকে তারা এই যন্ত্রটিকে আরও আপগ্রেড করে সাধারনের ব্যবহারের উপযোগী করার আপ্রাণ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। আর এক-দু’বছরের মধ্যেই যন্ত্রটি বাজারজাত করতে পারবেন বলে তাদের আশা।
কী ভাবে মাথায় এমন পরিকল্পনা ?

দু’জনেই অনুপ্রাণিত হয়েছিলেন এক গল্প শুনে। তারা শুনেছিলেন কোন এক দেশে এমন একটি রেলের প্লাটফর্ম রয়েছে যা আলোকিত হয় যাত্রীদের চলাফেরা থেকে উৎপন্ন বিদ্যুৎ শক্তি দিয়েই।
মোবাইল ফোনকেই কেন বেছে নিলেন এ প্রশ্নের উত্তরে তাঁরা জানান, ছোট থেকে বড় সকলেই হাতেই এখন মোবাইল ফোন। তাঁরাও এমন কিছু নিয়ে কাজ করতে চেয়েছিলেন, যার চাহিদা এই মুহূর্তে সবচেয়ে বেশি।

এটি বানাতে তারা প্রয়োজনীয় আর্থিক সহযোগিতা পেয়েছিলেন পরিবার থেকেই। তিন মাস লেগেছিল এটি শেষ করতে।

যেভাবে কাজ করে যন্ত্রটি?
জুতোর সাথে তার দিয়ে যন্ত্রটি লাগানো থাকবে। হাঁটাচলার সময় যে বিদ্যুৎশক্তি তৈরি হবে তা ব্যাটারিতে জমে থাকবে। সেই ব্যাটারির মাধ্যমেই চার্জ হবে ফোন। প্রথম যখন এই মডেলটি বানিয়েছিলেন তাঁরা, খরচ হয়েছিল দু’হাজার টাকা। কিন্তু যন্ত্রটি বাণিজ্যিকভাবে তৈরি করা গেলে, খরচ পাঁচশো টাকায় নেমে আসবে।  
তথ্য: আনন্দবাজার পত্রিকা

মন্তব্য