| প্রচ্ছদ

এ পর্যন্ত ২২৮জনকে নেওয়া হলো

বগুড়ায় নতুন করে আরও ১২৫জন হোম কোয়ারেন্টাইনে

পুণ্ড্রকথা রিপোর্ট
পঠিত হয়েছে ১২৫২ বার। প্রকাশ: ১৯ মার্চ ২০২০ ।

বগুড়ায় ২৪ ঘন্টায় নতুন করে বিদেশ ফেরত আরও ১২৫জনকে হোম কোয়ারেন্টাইনে নেওয়া হয়েছে। এর আগে বুধবার বিকেল ৫টা পর্যন্ত ১০৩ জনকে কোয়ারেন্টাইনে নেওয়া হয়। এ নিয়ে বৃহস্পতিবার বিকেল পাঁচটা পর্যন্ত মোট ২২৮জনক হোম কোয়ারেন্টাইনে নেওয়া হল। 
গত ১১ মার্চ থেকে বগুড়ায় হোম কোয়ারেন্টাইন পদ্ধতি চালু করা হয়। প্রথম দিন মাত্র ২জনকে হোম কোয়ারেন্টাইনে নেওয়া হয়। তার পর থেকেই বিদেশ ফেরত লোকজনের সংখ্যা যত বাড়ছে হোম কোয়ারেন্টাইনও তত বাড়ছে।
এদিকে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে বৃহস্পতিবার বগুড়া শহরের কেন্দ্রস্থলে গণজমায়েত এবং শহরজুড়ে ভ্রাম্যমাণ দোকান বসানো পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। সকালে পৌরসভার পক্ষ থেকে এ বিষয়ে মাইকিং করা হয়েছে। 
করোনা পরিস্থিতিতে ভবিষ্যতে দোকান-পাট সব বন্ধ রাখা হবেÑএমন আশঙ্কায় শহরের বাজারগুলোতে মানুষের ভিড় বাড়তে শুরু করেছে। এতে চাল-ডালসহ নিত্য পণ্যের দামও বাড়তে শুরু করেছে। পরিস্থিতি সামাল দিতে বগুড়ার জেলা প্রশাসক ফয়েজ আহাম্মদ চেম্বার নেতৃবৃন্দকে নিয়ে বাজারগুলো মনিটরিংয়ে বের হন।
বগুড়ার সিভিল সার্জন অফিসের কন্ট্রোল রুমের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী বৃহস্পতিবার নতুন করে যে ১২৫জনকে হোম কোয়ারেন্টাইনে নেওয়া হয়েছে তাদের মধ্যে সবচেযে বেশি ৫৮জনকে নেওয়া হয়েছে দুপচাঁচিয়া উপজেলায়। এছাড়া শিবগঞ্জ উপজেলায় ৩৩জন, গাবতলীতে ৯জন, সোনাতলা ও ধুনটে ৭জন করে ১৪জন, নন্দীগ্রামে ৬জন ও বগুড়া সদরে আরও ৫জনকে হোম কোয়ারেন্টাইনে নেওয়া হয়েছ। বগুড়ার সিভিল সার্জন ডা. গাওসুল আজিম চৌধুরী জানান, স্বাস্থ্য দপ্তরের কর্মীরা অত্যন্ত সজাগ রয়েছেন। যেখানেই তারা বিদেশ থেকে ফেরা লোকজনের খবর পাচ্ছেন সেখানেই তারা ছুটে গিয়ে তাদেরকে হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার পদ্ধতিগুলো শিখিয়ে দিচ্ছেন।

 

মন্তব্য