| প্রচ্ছদ

ব্রিটেনের প্রাসাদে করোনার থাবা! তাড়াতাড়ি সরানো হল রানিকে

পুন্ড্রকথা ডেস্ক
পঠিত হয়েছে ৩৬ বার। প্রকাশ: ২৩ মার্চ ২০২০ ।

ব্রিটেনের রাজপ্রাসাদের এক কর্মীর শরীরে মিলল COVID-19 সংক্রমণের প্রমাণ। তাঁর থেকে কোনওভাবে যাতে ওই ভাইরাস রানির দেহে না ছড়ায়, তাই তাড়াতাড়ি তাঁকে প্রাসাদ থেকে সরিয়ে পাঠানো হয়েছে উইন্ডসর ক্যাসলে। তবে শেষ পাওয়া খবর অনুযায়ী, ৯৩ বছরের রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথ সুস্থই রয়েছেন। এদিকে ওই কর্মী আদৌ রানির কাছাকাছি গিয়েছিলেন কিনা সে সম্পর্কে নিশ্চিত নয় রয়্যাল পরিবারের কেউই। কিন্তু সাবধানের মার নেই। শুধু রানি কেন, ওই মারণ রোগ যাতে প্রাসাদের কারোর শরীরেই না ছড়িয়ে পড়ে তা নিশ্চিত করতে আক্রান্ত কর্মীসহ অন্য পরিচারক-পরিচারিকাদেরও সেল্ফ আইসোলেশনে পাঠানো হয়েছে বলে খবর।

"বাকিংহাম প্যালেসে ৫০০ জন কর্মী রয়েছেন। সুতরাং আক্রান্তের থেকে ওই রোগ যেকারও শরীরেই ছড়াতে পারে, তাই সতর্কতা অবলম্বন করা হচ্ছে", জানিয়েছে ব্রিটেনের সংবাদপত্র "দ্য সান"।

এদিকে বাকিংহাম প্যালেসের তরফ থেকে এই বিষয়টি নিয়ে প্রকাশ্যে কোনও উচ্চবাচ্য করা হচ্ছে না। প্রাসাদের মধ্যেই করোনা সংক্রমণের কথাও একরকম এড়িয়েই গেছে তাঁরা। ব্রিটিশ রাজপরিবারের তরফ থেকে জানানো হয়েছে, ব্রিটেনে করোনা সংক্রমণ ক্রমেই বাড়ছে, ইতিমধ্যেই সেদেশে ২৩৩ জন মারা গেছেন। তাই এই মহামারীর সংক্রমণ এড়াতেই রানিকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে অন্যত্র। 

জানা গেছে, আপাতত অনির্দিষ্টকালের জন্য উইন্ডসর ক্যাসলেই রাখা হবে রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথকে৷তাঁর যাবতীয় কর্মসূচিও বাতিল করে দেওয়া হয়েছে ৷

ব্রিটেনের রাজ পরিবারের পক্ষ থেকে প্রাসাদে করোনা প্রবেশের কথা স্বীকার না করা হলেও ব্রিটেনে যেভাবে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ছড়াচ্ছে, তাতে সেখানে করোনার হানা হয়তো কিছুটা প্রত্যাশিতই ছিল৷ কেননা প্রতিদিনই বহু পরিচারক-পরিচারিকা ওই প্রাসাদে আনাগোনা করেন, আসেন অতিথি-অভ্যাগতরাও। তাই করোনা পরিস্থিতিতে এই মুহূর্তে রয়্যাল পরিবারের আকাশেও দুশ্চিন্তার কালো মেঘ। বিদেশী পত্রিকা অবলম্বনে

মন্তব্য