| প্রচ্ছদ

নওগাঁয় শপিং মল চালুর পর আবারও বন্ধ ঘোষণা

নওগাঁ প্রতিনিধি
পঠিত হয়েছে ৪১ বার। প্রকাশ: ১৭ মে ২০২০ ১২:২০:০৭ ।

নওগাঁয় শপিংমল খোলার এক সপ্তাহ যেতেই আবারও বন্ধের সিদ্ধান্ত নিয়েছে জেলা প্রশাসন। শপিংমল গুলোতে স্বাস্থ্যবিধি ও সামাজিক দূরুত্ব না মানায় এমন সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। শনিবার সন্ধায় শপিংমল বন্ধের বিষয়ে এমন সিদ্ধান্ত নিয়ে এক গণবিজ্ঞপ্তি জারি করেন, জেলা প্রশাসক মো. হারুন অর রশীদ। 
জেলার সকল ব্যবসায়ী ও জনসাধারনের দৃষ্টি আর্কষণ করে গণবিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়- পবিত্র রমজান ও ঈদ-উল ফিতরকে সামনে রেখে দোকান পাট, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও অন্যান্য বাজার যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মেনে সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করে সরকার কর্তৃক প্রদত্ত শর্তসমূহ পালন সাপেক্ষে খোলা রাখার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছিল। কিন্তু বিগত কয়েকদিন বাজার ও শপিং মল সমূহ সরেজমিনে পরিদর্শনে প্রতীয়মান হয় যে, বাজার ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে আগত ক্রেতা/বিক্রেতাদের নূন্যতম ৯০ শতাংশ প্রদত্ত শর্ত মেনে চলার বিষয়ে সম্পূর্ন অবহেলা প্রদর্শন করছেন বা নির্লিপ্ত থেকেছেন। সেহেতু জনসাধারণ তথা নওগাঁ জেলাবাসীর স্বাস্থ্য সুরক্ষা ও মৃত্যু ঝুঁকির কথা বিবেচনা করে করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধে রোববার হতে সকল ধরনের দোকানপাট/ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হলো।
গণবিজ্ঞপ্তিতে আরো উল্লেখ করা হয়, নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যাদির দোকান, কাঁচা বাজার এবং ঔষধের দোকানসহ জরুরী পরিষেবা এ নিষেধাজ্ঞার আওতামুক্ত থাকবে।
সামাজিক সংগঠন একুশে পরিষদ নওগাঁর সভাপতি অ্যাডভোকেট আব্দুল বারী বলেন, রাজশাহী বিভাগের মধ্যে নওগাঁ জেলা করোনা হটস্পটে পরিনত হয়েছে। দোকানপাট চালুর পর সামাজিক সচেতনতা মেনে চলার যে নিয়ম কানুন ছিল তার কোন কিছুই মানা হয়নি। এতে করোনা সংক্রমনের হার দ্রুত বৃদ্ধি পেয়েছে বলে মনে করছি। হাট-বাজারে ‘মনে হয় যেন কিছুই ঘটেনি, সবকিছুই স্বাভাবিক এমন অবস্থা দেখা গেছে।’ যেহেতু বিশ্বে এখনো করোনার কোন প্রতিষেধক আবিস্কার হয়নি। সেহেতু সামাজিক সচেতনতা আমাদের রক্ষা করতে হবে। দোকানপাট বন্ধ করা জেলা প্রশাসনের একটি যৌক্তিক সিদ্ধান্ত বলে মনে করছি। যা অনেক আগেই করা উচিত ছিল।
নওগাঁ জেলা প্রশাসক মো. হারুন অর রশীদ বলেন, গত ১০ মে হতে সরকারি সিদ্ধান্ত মোতাবেক সকল হাট-বাজার, ব্যবসা কেন্দ্র, দোকানপাট ও শপিং মল সকাল ১০ টা হতে বিকেল ৪ টা পর্যন্ত সীমিত আকারে শর্ত সাপক্ষে খোলা রাখার অনুমতি দেয়া হয়েছিল। যেখানে ক্রেতা ও বিক্রেতা উভয়ে মাস্ক, হ্যান্ড গ্লাভস ব্যবহার, ক্রয়-বিক্রয়ের সময় সামাজিক দূরুত্ব বজায় রাখা, দোকানের সামনে হাত ধোয়ার ব্যবস্থা রাখাসহ স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলতে বলা হয়েছিল। যার কোন কিছুই মানা হয়নি। ফলে দ্রুত আবারও শপিং মল বন্ধের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। আগামী সিদ্ধান্ত না নেয়া পর্যন্ত যা বলবৎ থাকবে।
করোনাভাইরাসকে উপেক্ষা করে নওগাঁ শহরসহ উপজেলার শপিং মলগুলোতে মানুষের ব্যাপক উপস্থিতি দেখা গেছে। শপিং মলগুলোতে সামাজিক সচেতনতার কোন কিছুই মানা হয়নি। ফলে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে দ্রুত সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। উল্লেখ্য, জেলায় এ পর্যন্ত ৮৩ জন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে। এর মধ্যে ১৬ জন সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন।

 

মন্তব্য