| প্রচ্ছদ

মহাসড়কে অবৈধ যানবাহনে চাঁদাবাজি ও দূর্ঘটনায় প্রানহানির ঘটনায় হাটিকুমরুল হাইওয়ে থানার ওসি প্রত্যাহার

সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি
পঠিত হয়েছে বার। প্রকাশ: ০৩ জুন ২০২০ ২৩:৪৫:৫৬ ।

সিরাজগঞ্জের দু’টি মহাসড়কে উচ্চ আদালত কর্তৃক নিষিদ্ধ অবৈধ যানবাহনের বেপরোয়া চলাচলের সুযোগ করে দেওয়ার পাশাপাশি  সড়ক দূর্ঘটনায়  প্রানহানির কারনে হাটিকুমরুল হাইওয়ে থানার ওসি খাইরুল ইসলামকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। হাইওয়ে পুলিশ সুপার, বগুড়া আঞ্চলিক কার্যালয় থেকে বুধবার (৩ জুন) সকালে তাকে প্রত্যাহার করা হয়। প্রত্যাহার করার পর হাইওয়ে পুলিশের বগুড়া আঞ্চলিক কার্যালয়ে তাকে সংযুক্ত করা হয়েছে। প্রত্যাহারের বিষয়টি বুধবার হাইওয়ে পুলিশের বগুড়া আঞ্চলিক কার্যালয়ের পুলিশ সুপার মোঃ শহিদুল্লাহ নিশ্চিত করেন। এদিকে, প্রত্যাহার কৃত ওসির বিপরীতে স্থলাভিষক্ত হচ্ছেন পঞ্চগর জেলার তেতুঁলিয়া হাইওয়ে থানার ইন্সপেক্টর মোঃ নুরুন্নবী।
ওসি খাইরুল ইসলামের বিরুদ্ধে করোনা কারনে লকডাউন চলাকালীন উৎকোচের বিনিময়ে অনৈতিক ভাবে সিরাজগঞ্জের মহাসড়কে বাস, প্রাইভেটকার ও মাইক্রোবাসে যাত্রী পারাপারে সুযোগ প্রদান এবং অবৈধ থ্রি-হুইলার, কাটা-মাইক্রো, নসিমন ও করিমন সহ পন্যবাহী  ট্রাকে যাত্রী চলাচলের সুযোগ কওে দেওয়ার অভিযোগ উঠে । এমনকি, স্থানীয় একটি দালাল চক্র হাটিকুমরুল মোড়ে প্রতি দিনই পরিবহনে ব্যাপক চাঁদাবাজি করলেও অজ্ঞাত কারনে ওসি খাইরুল ইসলাম তা এড়িয়ে চলতেন । এব্যাপারে তার বিরুদ্ধে একাধিকবার অভিযোগ উঠে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ বরাবর। সর্বশেষ মঙ্গলবার বিকেলে বগুড়া-নগরবাড়ি মহাসড়কে শাহজাদপুর উপজেলার সরিষাকোল নামক স্থানে পাবনা থেকে ঢাকা গামী সরকার ট্রাভেল্স-এর সাথে অবৈধ ভাবে চলাচলরত একটি সিএনজি চালিত থ্রি-হাইলারের সংর্ঘর্ষ বাধে। এতে বাবা-মা ও মেয়েসহ একই পরিবারের ৩জন নিহত হয়। বেশ ক’টি গণমাধ্যমে এ নিয়ে খবর প্রকাশ হলে টনক নড়ে হাইওয়ে পুলিশের উর্দ্বতন কর্মকর্তাদের। অবশেষে বুধবার সকালে হাটিকুমরুল হাইওয়ে থানার ওসি খাইরুল ইসলামকে প্রত্যাহার করা হয়।
হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খাইরুল ইসলাম জানান, প্রত্যাহারের পত্র হাতে পেয়েছি । বুধবার বিকেলের মধ্যে আমি বগুড়া আঞ্চলিক কার্যালয়ে যোগদান করবো।
হাইওয়ে পুলিশের বগুড়া আঞ্চলিক কার্যালয়ের পুলিশ সুপার মোঃ শহিদুল্লাহ অভিযোগের বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, ‘জনস্বার্থে ও উর্ধ্বতনদের নির্দেশেই তাকে প্রত্যাহার করা হয়েছে।

মন্তব্য