| প্রচ্ছদ

রোনালদোর চেয়েও বেশি কার্যকরী ইব্রা?

পুণ্ড্রকথা ডেস্ক
পঠিত হয়েছে বার। প্রকাশ: ২৬ অক্টোবর ২০২০ ২২:৩৪:১৯ ।

ফেব্রুয়ারিতে মিলান ডার্বিতে ৪-২ গোলে জয়ের পর ইন্টার মিলান ফরোয়ার্ড রোমেলো লুকাকু বলেছিলেন, 'শহরে নতুন রাজা এসেছে'।

গেল সপ্তাহে সেই হারের শোধ নিয়েছে এসি মিলান। এবার মিলান ডার্বিতে তারা জিতেছে ২-১ গোলে। ২টি গোলই করেছেন এসি মিলানের সুইডিশ ফরোয়ার্ড জ্লাতান ইব্রাহিমোভিচ। এরপর তিনি লিখেছেন, 'মিলানে কখনোই রাজা ছিল না, ছিল একজন গড'। 

এমন বিস্ফোরক মন্তব্য ইব্রার মুখে প্রায়ই শোনা যায়। তবে ৩৯ বছর বয়সী এই তারকার মুখে এসব কথা একেবারে অমূলকও শোনায় না। কারণ এই বয়সেও যে সমানতালে পারফর্ম করে যাচ্ছেন তিনি!

জানুয়ারিতে আবারো সান সিরোতে ফেরার পর থেকেই এসি মিলানের উদ্ধারকর্তা হয়ে উঠেছেন ইব্রা। ৩৯ বছর বয়সেও তিনি ইতালিয়ান সিরিআ'র সবচেয়ে কার্যকরী ফুটবলার!

সাবেক মিলান এবং য়্যুভেন্তাস কোচ আলবার্তো জাচ্চেরোনি মনে করেন, ইতালিতে এমনকি ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর চেয়েও বেশি কার্যকরী ইব্রাহিমোভিচ!

তিনি বলেন, মাঠে যেমন সে কার্যকর তেমনি মাঠের বাইরেও। ইব্রার উপস্থিতিতে দলের তরুণরাও নিজেদের খোলস ছেড়ে বেরিয়ে আসতে পারে।

জাচ্চেরোনির পক্ষে মত দিচ্ছে ইতালিয়ান গণমাধ্যমগুলোও। অবশ্য দোষটা রোনালদোরও নয়। তিনি য়্যুভেন্তাসে যোগ দিয়েছেন, যে দলটি তার আসার আগেই ৭ বার টানা লিগ শিরোপা জিতেছে। সেক্ষেত্রে তার আগমনে বাড়তি কোন রসদ পায়নি য়্যুভরা।

অন্যদিকে ২য় বারের মতো ইব্রাহিমোভিচের এসি মিলানে আগমনের পর এখন পর্যন্ত কোন ট্রফি জেতেনি ক্লাবটি ঠিকই। তবে মাঠে তার প্রভাবটা দুর্দান্ত। বিশেষ করে চলতি মৌসুমে এখন পর্যন্ত অপরাজিত ক্লাবটি। আছে টেবিলের শীর্ষে। ২০১৪ সালের পর থেকে চ্যাম্পিয়ন্স লিগে খেলতে না পারা ক্লাবটির এবার জোর সম্ভাবনা জেগেছে ইউরোপের শীর্ষ আসরে খেলার।

ব্যক্তি ইব্রাও আছেন দুর্দান্ত ফর্মে। এ বছর সিরিআ'য় ১২টি গোল এবং ৫টি অ্যাসিস্ট তার। সুইডিশ তারকার ফর্মই ড্রেসিংরুমে উজ্জীবিত করছে অন্যদেরকে।

সাবেক মিলান এবং য়্যুভ কোচ ফ্যাবিও কাপেলো বিস্মিত এই বয়সেও ইব্রার এমন পারফর্ম্যান্সে। 

তিনি বলেন, জ্লাতান এমন একজন ফুটবলার যে তার পেশাদার ক্যারিয়ারকে ব্যক্তিজীবন থেকে অনেক উপরে নিয়ে গেছে। এই ৩৯ বছর বয়সেও সে কেবল খেলার জন্য খেলে না, সে খেলে জয়ের জন্য। তার মতো একজন চ্যাম্পিয়ন দলে থাকলে পুরো দলটাই উজ্জীবিত হয়। মিলানের সবচেয়ে তরুণ ফুটবলারটা যখন দেখবে এই বয়সেও ইব্রা শতভাগ দিয়ে ট্রেনিং করে, তখন সে ভাববে তারও পিছপা হওয়ার সুযোগ নেই।

গেল বছরের অক্টোবরে যখন মিলান কোচ মার্কো গিয়াম্পাওলোকে বরখাস্ত করা হয়, পুরো ক্লাবে তখন বিপর্যয় দেখা দেয়। ছন্নছাড়া ক্লাবটা তখন পয়েন্ট টেবিলের ১৩ নম্বরে। এরপরই নতুন করে ভাবনাচিন্তা শুরু করে ক্লাবটি। আনা হয় ইব্রাকে। এরপরের গল্পটা ইতিহাস!

টানা ২৪ ম্যাচে গোল করেছে এসি মিলান। ক্লাবটি এমন ফর্ম দেখিয়েছে সবশেষ ১৯৭৩ সালে। এছাড়া টানা ১০ ম্যাচে তারা ২ গোল কিংবা তার বেশি করেছে এমন রেকর্ড নেই গত ৫৫ বছরেও!

পুরো দলটার আক্রমনভাগের চেহারাই পাল্টে দিয়েছেন ইব্রা। নিজেও বিপজ্জনক ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়েছেন, অন্যদেরকে দিয়েও কাজ করিয়ে নিচ্ছেন।

কোচ পিওলিও তাকে নিয়ে বেশ উচ্ছ্বসিত। তিনি বলেন, আমি মনে করি সবকিছু বদলে গেছে গেল জানুয়ারিতে। যখন আমরা এমন একজনকে নিয়ে আসি যে আমাদের কৌশলটা বেশ ভালো বুঝে এবং যে আমাদের শূন্যস্থানটা ভালোভাবে পূরণ করতে পারে।

ইব্রাহিমোভিচের কথায় ফেরা যাক। নিজেকে তিনি 'গড' দাবি করেছেন। সেটি হয়তো তিনি নন। তবে ঐতিহ্যবাহী মিলানকে ইতিহাসের পথে ফেরানোর যে মূল কারিগর সেটি নিশ্চিতভাবেই বলা যায়।

মন্তব্য