| প্রচ্ছদ

‘অস্ট্রেলিয়া জয় বিশ্বকাপের চেয়েও বড়’

পুণ্ড্রকথা ডেস্ক
পঠিত হয়েছে ৭২ বার

বিশ্বকাপ ট্রফি ছুঁয়ে দেখার আকাঙ্ক্ষা সব ক্রিকেটারের মনেই থাকে। ২২ গজের কত রথী-মহারথীকে বিশ্ব শ্রেষ্ঠত্বের স্বাদ না পেয়েই বিদায় নিতে হয়েছে। এই জায়গাতে বিরাট কোহলি চরম ভাগ্যবান, ক্যারিয়ারের ঊষালগ্নেই হয়েছেন বিশ্বসেরা। অথচ সেই তিনিই কিনা বিশ্বকাপকে নামিয়ে দিলেন অস্ট্রেলিয়ার সিরিজ জয়ের সামনে!

২০১১ সালে শ্রীলঙ্কাকে হারিয়ে বিশ্বকাপ জেতে ভারত। দেশটির দ্বিতীয় বিশ্বকাপ শিরোপা জয়ের পথে তরুণ কোহলি খেলেছেন প্রায় সব ম্যাচই। সেই কোহলির নেতৃত্বেই ভারত প্রথমবারের মতো টেস্ট সিরিজ জিতেছে অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে। ৭১ বছর পর প্রথমবার সাফল্যের আনন্দে উৎসবের আমেজে ভারতীয়রা। সিডনি টেস্ট ড্রয়ের পর ইতিহাস গড়া কোহলি সংবাদ সম্মেলনে অস্ট্রেলিয়ার সিরিজ জয়কেই এগিয়ে রেখেছেন বিশ্বকাপ থেকে।

ভারতীয় অধিনায়ক বলেছেন, ‘২০১১ সালের বিশ্বকাপ দলের অংশ ছিলাম আমি। তবে আগে বিশ্বকাপ জিততে পারিনি, এমন অনুভূতি আমার একেবারেই ছিল না। ঘরের মাঠে খেলা এবং সেটা জেতা... সিনিয়র অনেক খেলোয়াড়ের মধ্যে এই অনুভূতি ছিল। হ্যাঁ, আমারও দারুণ অনুভূতি ছিল, তবে যদি জিজ্ঞেস করা হয় কোনটাতে আমি আবেগপ্রবণ বেশি হয়েছি, আমি বলব এটা (অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে সিরিজ জয়)।’

কারণও ব্যাখ্যা করেছেন কোহলি পরের কথায়, ‘কারণ এখানে (অস্ট্রেলিয়া) এটা আমার তৃতীয় সফর এবং দেখেছি এখানে জেতা কতটা কঠিন। তাই এই দিক থেকে আমার কাছে অস্ট্রেলিয়ার জয়টি বেশি আবেগময়। নিশ্চিতভাবেই এটা খুব বেশি স্পেশাল। কারণটা হলো আমরা খুব করে চেয়েছি দেশের বাইরে একটি সিরিজ জিততে।’

ভারতীয় অধিনায়কের মতো তাদের কোচও বিশ্বকাপ জয়ী খেলোয়াড়। ১৯৮৩ সালে ভারতের প্রথম বিশ্বকাপ জয়ী দলের সদস্য রবি শাস্ত্রী। কপিল দেবের নেতৃত্বে পাওয়া প্রথম বিশ্বকাপের ফাইনালে অবশ্য খেলা হয়নি তার। এই কোচও বিশ্বকাপ থেকে এগিয়ে রাখছেন অস্ট্রেলিয়ার জয়কে, ‘১৯৮৩ সালের বিশ্বকাপ। ১৯৮৫ সালের চ্যাম্পিয়নশিপ। এগুলোর চেয়েও এটা (অস্ট্রেলিয়া জয়) বড়, আমি বলব অনেক বড়, কারণ টেস্ট হলো ক্রিকেটের আসল ফরম্যাট। এটা টেস্ট ক্রিকেট, যেটা সবচেয়ে কঠিন।’ ক্রিকইনফো

মন্তব্য