| প্রচ্ছদ

মানববন্ধন : অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ ও করতোয়া নদীর উপর জনস্বার্থে ব্রীজ নির্মাণের দাবী

পুণ্ড্রকথা রিপোর্টঃ
পঠিত হয়েছে ১৬৪ বার। প্রকাশ: ১৩ জানুয়ারী ২০১৯ । আপডেট: ১৩ জানুয়ারী ২০১৯ ।

বগুড়ায় নবাববাড়ী রোডে অবস্থিত শেখ সরিফ উদ্দীন সুপার মার্কেট ও টিএমএসএস মহিলা মার্কেটের মধ্যবর্তী সরকারি রাস্তা বন্ধ করে নির্মান করা অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের দাবীতে রবিবার শহরের সাতমাথায় মানববন্ধন করে পূর্ব বগুড়ার চেলোপাড়া ও নাটাইপাড়া এলাকাবাসী। একই সঙ্গে তারা ওই রাস্তা সোজা করতোয়া নদীর উপর ব্রীজ নির্মাণের দাবীও করেন।
মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন বগুড়া পৌরসভার সাবেক কাউন্সিলর ও ৬ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি সুকুমার ঘোষ, হিন্দু, বৌদ্ধ খৃষ্ট্রান ঐক্য পরিষদের সহ-সভাপতি শ্যামল মোহন্ত, সাধারণ সম্পাদক নিরঞ্জন সিংহ, সাংগঠনিক সম্পাদক শুভ শংকর গুহ রায়, জহুরুল প্লাজার স্বত্ত্বাধিকারী মোহাম্মদ শিবলী, বীর মুক্তিযোদ্ধা সত্যেন্দ্র নাথ সরকার, সিডিএল এর মোঃ আব্দুল খালেক, বীর মুক্তিযোদ্ধা মাহফুজুল হক দুলু, পীযুষ কান্তি সাহা, ডলি রানী দাস, মিলন কুমার সাহা, নির্মল দাস প্রমূখ।
মানববন্ধনে বক্তারা বলেন করতোয়া নদী বগুড়া শহরকে দুটি ভাগে ভাগ করেছে। পশ্চিমের মূল শহরে আসতে পূর্ব অংশের বাসিন্দাদের অনেক ঘুরে ফতেহ আলী সেতু পার হতে হয়। কিন্তু প্রায় অর্ধশত বছরের পুরানো ওই সেতুটি ইতিমধ্যে সড়ক ও জনপথ (সওজ) বিভাগ কর্তৃক ঝুঁকিপূর্ণ ঘোষণা করা হয়েছে। ফলে জনগণের দাবির মুখে প্রায় ছয় বছর আগে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল বিভাগ শেখ সরিফ উদ্দিন মার্কেট ও টিএমএসএস মহিলা মার্কেটের মাঝের রাস্তাটি একটি আরসিসি গার্ডার সেতু দ্বারা বিপরীত প্রান্তের সাথে যুক্ত করে দেয়ার একটি প্রকল্প গ্রহন করে। প্রকল্প বাস্তবায়নের জন্য ১ কোটি ২১ লাখ টাকা অনুমোদনের পর্যায়ে রয়েছে। এমন পরিস্থিতিতে নদীর পশ্চিম অংশে সরকারি রাস্তার মাঝখানে শেখ শরীফ উদ্দিন সুপার মার্কেটের স্বত্ত্বাধিকারী আনোয়ার হোসেন রানা অবৈধ ভাবে পাকা দোকান ঘর নির্মাণ করায় সেতু নির্মাণে অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে। ব্রীজটি নির্মাণ হলে তিনটি মার্কেটের বিক্রি বাড়বে এবং উভয় পাশের জনসাধারণের চলাচলের সুবিধা হবে।
পূর্ব বগুড়ার ভূক্তভোগী জনগণ অবিলম্বে নির্মিত অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন এবং মানববন্ধন শেষে তারা জেলা প্রশাসকের বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করেন।

 

মন্তব্য