| প্রচ্ছদ

ভ্রমণ কন্যারা এসেছেন বগুড়ায়

মুজাহিদুল ইসলাম জাহিদ
পঠিত হয়েছে ২৫৯ বার। প্রকাশ: ২৩ জানুয়ারী ২০১৯ । আপডেট: ২৩ জানুয়ারী ২০১৯ ।

পাঁচ ভ্রমণ কন্যা এসেছেন বগুড়া সরকারী বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ে (ভিএম)। তারা সেখানে ঘণ্টাব্যাপী কর্মশালা করেন। তাতে মেয়েদের আত্মরক্ষা ও স্বাস্থ্য সচেতনতা শেখান এবং তাদের কার্যকলাপ তুলে ধরার মাধ্যমে ছাত্রীদের আত্মবিশ্বাসী করেন। বুধবার সকালে ভিএম স্কুলে ওই কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়।  

নারীর ক্ষমতায়ন প্রতিষ্ঠার লক্ষে তারা ভ্রমণের পাশাপাশি ভ্রমণরত জেলার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে মেয়েদের নিয়ে কর্মশালা করে । এর আগে ঠাকুরগাঁ থেকে ভ্রমণ শুরু করে ৪৩ তম জেলা হিসেবে তারা বগুড়া আসেন। পরে পর্যায়ক্রমে দেশের ৬৪ টি জেলায় যাওয়ার কথা জানা যায়। ভ্রমণ দলের নেতৃত্ব দিচ্ছেন ট্রাভেলেটস অব বাংলাদেশ—ভ্রমণকন্যার প্রতিষ্ঠাতা ও ঢাকা মেডিকেল কলেজের ইন্টার্ন চিকিৎসক সাকিয়া হক। তাঁর সহযোগী সদস্যরা হলেন ঢাকা মেডিকেল কলেজের ইন্টার্ন চিকিৎসক মানসি সাহা তুলি, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী সিল্ভি রহমান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফারসি ভাষা ও সাহিত্য বিভাগের (সম্মান, চতুর্থ বর্ষ) শিক্ষার্থী শামসুন নাহার সুমা ও ঢাকার বিএএফ শাহীন ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলের দশম শ্রেণির ছাত্রী মুশফিকা রহমান নিঝুম।
‘নারীর চোখে বাংলাদেশ’ স্লোগান নিয়ে ভ্রমণপ্রেমী পাঁচ কন্যা স্কুটিতে চড়ে পুরো দেশ ঘুরে বেড়ান। ‘ট্রাভেলেটস অব বাংলাদেশ—ভ্রমণকন্যা’ নামে একটি ভ্রমণভিত্তিক সংগঠন এই কর্মসূচিতে পৃষ্ঠপোষকতা করছে। তবে তাদের
শুরু ফেসবুকে। ভ্রমণ পিপাসু দুই বন্ধুর দেশ ঘোরার কল্পনা নিয়ে গড়ে তোলে সংগঠনটি। ২০১৭ সালের ৬ এপ্রিল ঢাকা মেডিকেলের দুই ইন্টার্ন চিকিৎসক সাকিয়া হক ও মানসী সাহা তুলি প্রাথমিক যাত্রা শুরু করেন। এখন তাদের সদস্য সংখ্যা হাজার ছাড়িয়েছে। তাদের দুটি স্কুটি দিয়ে সহযোগীতা করে কর্নফুলি নামক বেসরকারি প্রতিষ্ঠান।

দলটির প্রধান সমন্বয়ক সাকিয়া হক বলেন, ‘পর্যায়ক্রমে আমরা পুরো বাংলাদেশ ঘুরব। যত দ্রুত সম্ভব আমাদের পুরো দেশ ভ্রমণ শেষ হবে। ভ্রমণকালে প্রত্যেকটি জেলায় অন্তত একটি বিদ্যালয়ের নারী শিক্ষার্থীদের সঙ্গে মতবিনিময় করা হবে। এ সময় সড়ক নিরাপত্তা, বাল্যবিবাহ, মুক্তিযুদ্ধ, পর্যটন সম্ভাবনা, খাদ্য পুষ্টি, বিভিন্ন রকম সামাজিক প্রতিবন্ধকতা, বয়ঃসন্ধিকালীন নানা সমস্যা, নারী স্বাস্থ্যের সচেতনতা, বিপদে নারী শিক্ষার্থীদের আত্মরক্ষার জন্য করণীয় বিষয়ে ধারণা দেওয়া হবে।’ তিনি বলেন, ‘দেশের সার্বিক উন্নয়নে সুস্থ-সচেতন, উদারমনা নারী সমাজের কোনো বিকল্প নেই। সঠিক শিক্ষা আর ভ্রমণই পারে নারীর দৃষ্টিভঙ্গি প্রসারিত করে তাঁকে মানবসম্পদে পরিণত করতে।’

মন্তব্য