| প্রচ্ছদ

ভাষা আন্দোলনের চেতনা ছড়িয়ে দিতে প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শহীদ মিনার নির্মান অত্যাবশ্যকীয় -খাদ্যমন্ত্রী

নওগাঁ প্রতিনিধি
পঠিত হয়েছে ৬৭ বার। প্রকাশ: ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ । আপডেট: ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ ।

দেশের প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শহীদমিনার নির্মান করে বর্তমান প্রজন্মের নিকট ভাষা আন্দোলনের ইতিহাস ও চেতনা তুলে ধরতে হবে। কারন পৃথিবীতে একমাত্র বাঙালী জাতিকে তাদের ভাষা ও সংস্কৃতি রক্ষার জন্য রক্ত দিতে হয়েছে। ভাষা আন্দোলনের চেতনা থেকেই বাঙালীর হৃদয়ে স্বাধীনতার তাগিদ অনুভুত হয়েছে। তাই আমাদের জাতীয় চেতনায় ভাষা আন্দোলনের গুরুত্ব অপরিসীম- বলেছেন খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার।

শনিবার দুপুর ১টায় নওগাঁ জেলার নিয়ামতপুর উপজেলা পরিষদ চত্বরে শহীদ মিনার নির্মান কাজের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

নিয়ামতপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার আবু সালেহ মাহফুজুল আলমের সভাপতিত্বে আয়োজি উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক কামাল হোসেন, এবং ওই উপজেলা চেয়ারম্যান এনামুল হকসহ স্থানীয় আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখেন।  
 

মন্ত্রী বলেন, বাঙালীর ভাষা দিবস এখন আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দুরদর্শীতার কারনে ২১শে ফেব্রুয়ারী আমাদের ভাষা দিবসের গুরুত্ব ও তাৎপর্য আন্তর্জাতিক মহলে নাড়া দিতে সক্ষম হয়েছে। যার কারেেন এই অহংকার অর্জন সম্ভব হয়েছে।  
 

শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শহীদ মিনার স্থাপনের কথা উল্লেখ করে খাদ্যমন্ত্রী বলেন, মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় পরিচালিত হওয়া বর্তমান সরকারের নানা উদ্যোগের ফলে বাংলাদেশের মানুষের চেতনায় ভাষা আন্দোলন, মুক্তিযুদ্ধ, দেশপ্রেম দেশীয় সংস্কৃতি চর্চ্চা ইত্যাদি বৃদ্ধি পেয়েছে। সেই চেতনা থেকে বর্তমান প্রজন্মের মধ্যে ভাষা আন্দোলনের মর্মার্থ ছড়িয়ে দেয়ার জন্য প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শহীদমিনার নির্মান করা অত্যাবশকীয়। যেসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শহীদ মিনার নাই সেখানে শহীদ মিনার স্থাপন করা হবে। সেক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠানের আর্থিক সংগতি না থাকলে টিআর-এর অর্থ থেকে সেসব স্কুল, কলেজ ও মাদ্রাসায় শহীদ মিনার তৈরী করা হবে।

পরে খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার নিয়ামতপুর উপজেলা অডিটোরিয়ামে উপজেলা ক্ষুদ্র-নৃতাত্ত্বিক জনগোষ্ঠী আয়োজিত এক সম্বর্ধনা সভায় যোগদান করেন।

মন্তব্য