| প্রচ্ছদ

হ্যাটট্রিকে প্রথম স্পিনার হিসেবে রশিদের ইতিহাস

পুণ্ড্রকথা ডেস্ক
পঠিত হয়েছে ৮৫ বার। প্রকাশ: ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ । আপডেট: ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ ।

১৬তম ওভারের শেষ বলে কেভিন ও’ব্রাইনকে আউট করে শুরু করেন রশিদ খান। পরে নিজের তৃতীয় ও দলীয় ১৮তম ওভারের প্রথম দুই বলে দুই উইকেট নিয়ে পূরণ করেন স্বপ্নের হ্যাটট্রিক। আর তাতেই বিরল এক রেকর্ডের পাতায় আফগানিস্তান লেগস্পিনার। আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে প্রথম স্পিনার হিসেবে হ্যাটট্রিক করার মর্যাদা পান তিনি।

রশিদের আগে আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে ছয়জন বোলার হ্যাটট্রিক করেছিলেন। তবে তারা সবাই ছিলেন পেসার বা মিডিয়াম পেসার। ২০০৭ দক্ষিণ আফ্রিকায় টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে অস্ট্রেলিয়ার ব্রেট লি শুরুটা করেন। পরে নিউজিল্যান্ডের জ্যাকব ওরাম এবং টিম সাউদি, শ্রীলঙ্কার থিসারা পেরেরা এবং লাসিথ মালিঙ্গা ও পাকিস্তানের ফাহিম আশরাফ পেয়েছিলেন হ্যাটট্রিক।

আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে সিরিজের তৃতীয় ও শেষ টি-টোয়েন্টিতে যেন রেকর্ড গড়ার ঝুড়ি নিয়ে এসেছিলেন রশিদ। সোমবার আরও দুটি রেকর্ডেও পা রাখেন তিনি।

হ্যাটট্রিক করার পর ১৮তম ওভারের তৃতীয় বলেও উইকেট লাভ করেন এই ডানহাতি। ফলে চার বলে তুলে নেন চার উইকেট। যা ক্রিকেটের ভাষায় ‘ডাবল হ্যাটট্রিক’ হিসেবে পরিচিত। আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে এর আগে এমনটি কেউ করে দেখাতে পারেননি। আর ইনিংসে ৪ ওভার বল করে ২৭ রানের বিনিময়ে মোট ৫টি উইকেট দখল করেন। শ্রীলঙ্কার অজন্তা মেন্ডিস, পাকিস্তানের উমর গুল ও দক্ষিণ আফ্রিকার ইমরান তাহিরের পর চতুর্থ বোলার হিসেবে টি-টোয়েন্টিতে একের বেশি পাঁচ উইকেট নিলেন রশিদ।

এর আগে ম্যাচে মোহাম্মদ নবীর ৩৬ বলে টর্নেডো ৮১ রানে ভর করে আফগানরা নির্ধারিত ২০ ওভার শেষে ২১০ রানের বিশাল সংগ্রহ দাঁড় করায়। জবাবে ৮ উইকেট হারিয়ে আইরিশরা ১৭৮ রান করলে ৩২ রানে জয় পায় আফগানিস্তান। ফলে প্রতিপক্ষকে হোয়াইটওয়াশের লজ্জাও দিল যুদ্ধ বিধ্বস্ত দেশটি।

মন্তব্য