| প্রচ্ছদ

অনেক তারকার জন্ম দিয়ে চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন নৃত্য গুরু পলাশ

নাসিমা মীরঃ
পঠিত হয়েছে ৫০২ বার। প্রকাশ: ০৯ অগাস্ট ২০১৮ । আপডেট: ০৯ অগাস্ট ২০১৮ ।

শেষ যাত্রায় ফুলে ফুলে সিক্ত হলেন বগুড়া তথা এই অঞ্চলের নৃত্যগুরু আমরা ক’জন শিল্পী গোষ্ঠীর প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি আব্দুস সামাদ পলাশ। বৃহস্পতিবার বাদ যোহর তার নামাজে জানাজা শহরের আলতাফুন্নেছা খেলার মাঠে অনুষ্ঠিত হয়। এর আগে মরহুমের রূহের মাগফেরাত কামনা করে বক্তব্য রাখেন ওই সংগঠনের প্রধান উপদেষ্টা এবং দৈনিক করতোয়ার সম্পাদক মোজাম্মেল হক, বগুড়া জেলা বিএনপির সভাপতি সাইফুল ইসলাম, পুলিশ লাইন্স স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ সাহাদৎ আলম ঝুনু, বগুড়া চেম্বারের সভাপতি ও জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক মাছুদুর রহমান মিলন, জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি শাহ মোঃ মেহেদী হাসান হিমু, বিআইআইটি‘র অধ্যক্ষ প্রকৌশলী সাহাবুদ্দিন সৈকত, করতোয়া কুরিয়ার সার্ভিসের জিএম জাহিদুল ইসলাম দুলাল, জলেশ্বরীতলা ব্যাসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক এ্যাডনিস তালুকদার বাবু, কমিউনিটি পুলিশিং বগুড়া জেলা কমিটির নেতা সাকলায়েন বিটুল এবং মরহুমের ছেলে নৃত্য শিল্পী মাহাবুব হাসান সোহাগ।
এর আগে সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধা নিবেদনের জন্য মরহুমের লাশ দুপুর ১২টায় বগুড়া শহীদ খোকন পার্কের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের বেদির নিচে রাখা হয়। সেখানে সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট, লায়ন্স ক্লাব অব বগুড়া করতোয়া, সাহিত্য জিজ্ঞাসা, বগুড়া নট্যদল, বগুড়া নাট্যগোষ্ঠী, বগুড়া পদাতিক, বাংলার মুখ, জাতীয় কবিতা পরিষদ, বাংলাদেশ মিউজিশিয়ানস ফাউন্ডেশনসহ বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের পক্ষ থেকে আব্দুস সামাদ পলাশকে শ্রেষ শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়। এসময় গুণী এ শিল্পীর সম্মানে এক মিনিট নিরবতা পালন করা হয়।
আমরা ক’জন শিল্পী গোষ্ঠী বগুড়ার প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ও দেশের সুনামধন্য সংস্কৃতজন আব্দুস সামাদ পলাশ গত বুধবার রাত সাড়ে ৯টা ৪০ মিনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ (শজিমেক) হাসপাতালে ইন্তেকাল করেছেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৭০ বছর। তিনি স্ত্রী, এক ছেলে ও এক মেয়েসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। আব্দুস সামাদ পলাশ দীর্ঘ দিন কিডনিসহ বিভিন্ন দুরারোগ্যব্যাধিতে আক্রান্ত ছিলেন। ভারতে চিকিৎসা শেষে তিনি প্রায় ছয় মাস আগে দেশে আসেন। গত মঙ্গলবার তার অবস্থার অবণতি হলে তাকে শজিমেক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল।  আব্দুস সামাদ পলাশ বগুড়ার বিশিষ্ট ব্যবসায়ী এবং পুণ্ড্রকথা উদ্যোক্তা পরিষদের সহ-সভাপতি রাজেদুর রহমান রাজুর চাচা ছিলেন।  তার মৃত্যুতে পুণ্ড্রকথা  পরিবারের পক্ষ থেকে শোক প্রকাশ করা হয়েছে।  
আব্দুস সামাদ পলাশ ও তার হাতে গড়ে ওঠা সংগঠন ‘আমরা ক’জন শিল্পীগোষ্ঠী’ এ অঞ্চলের স্বনামধন্য সংগঠনের স্বীকৃতি পেয়েছে। তাঁর হাতে গড়া অনেক শিল্পীই এখন বাংলাদেশের চলচ্চিত্র, নাটক ও মডেলিং এ শীর্ষ স্থান দখল করে বেশ দাপট নিয়ে কাজ করে যাচ্ছেন। সদা হাসি-খুশি এই মানুষটি প্রথম জীবনে সরকারি চাকরি করলেও নাচের প্রতি ভালোবাসা থেকে সেই চাকরি ছেড়ে দিয়ে পুরোপুরি মনোনিবেশ করেন নাচে। গড়ে তোলেন এই অঞ্চলের শিশুদের নাচে পটু করে তোলার জন্য ১৯৮৮ সালের ১১ নভেম্বও আমরা ক’জন শিল্পী গোষ্ঠী নামে সংগঠন প্রতিষ্ঠা করেন। তারপর সেই সংগঠনের ছাত্র-ছাত্রীরাই যেন হয়ে উঠেছিল তার প্রাণ। ‘পলাশ মামা’ বা ‘মামা’ এই নামেই তিনি প্রজন্মের পর প্রজন্মের কাছে পরিচিত ছিলেন। এই নৃত্যগুরুর মৃত্যুর পর গতকাল রাতে যখন  ফেসবুকে তার ছবি দিয়ে নিজ নিজ ওয়ালে শোক প্রকাশ করছিলেন তখন সেই ছবিতে দেশ ও দেশের বাইরে ছড়িয়ে থাকা তার শত-শত ছাত্র-ছাত্রীরা স্মৃতি চারণ ও দুঃখ প্রকাশ করে বিভিন্ন কমেন্ট করেছেন। ঢাকার একটি বেসরকারি ব্যাংকে কর্মরত জিন্নত জহুরা জিতু তাকে নিয়ে ‘পুন্ড্রকথা’র নিউজ শেয়ার করে কমেন্ট করেন, ‘এই সেই দিনের কথা, মামা আমাদের বিভিন্ন নাচের মুদ্রা দেখিয়ে দিচ্ছিলেন। কত প্রাণবন্তই না ছিলেন মামা। মামা যেন ওপারে শান্তিতে থাকেন।  

আব্দুস সামাদ পলাশের কারণে যারা আজ তারকা

আব্দুস সামাদ পলাশ-এর হাত ধরে যারা সাফল্যের সিড়িঁতে হাটছে তাদের মধ্যে অন্যতম চলচ্চিত্র নায়িকা অপু বিশ্বাস, চ্যানেল আই সেরা নাচিয়ে ২০১২-এর চ্যাম্পিয়ন মোহনা মোস্তফা মীম, বাংলাদেশ চলচ্চিত্রের কৌতুক অভিনেতা বাদল শেখ, বাংলাদেশ সেরা মার্কস অল রাউন্ডার ২০০৯-এর হুমায়রা নওশীন রথী, ইমামি ফেয়ার হ্যান্ডসাম দ্য আলটিমেট ম্যান সিজন টু ২০১৪-এর চ্যাম্পিয়ন আবুল কালাম আজাদ এবং তার নিজ সন্তান মাহাবুব হাসান সোহাগ (নৃত্য শিল্পী ও প্রশিক্ষক) সহ তার হাতে গড়া শিল্পীরা দেশ ও বিদেশে বাংলাদেশের লোকজ নৃত্য নিয়ে কাজ করছে।
যত সম্মাননা
নাচের এই খ্যাতিমান গুরু দেশ-বিদেশে যেসব সম্মাননা পেয়েছেন তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য  বাংলাদেশ জাতীয় নৃত্য শিল্পী সংস্থা কর্তৃক গওহর জামিল পদক, কলকাতার কথা প্রসঙ্গ নাট্যদলের দুই যুগ পূর্তি উপলক্ষে সম্মাননা, ভারতের রবীন্দ্র সদনে বাংলাদেশের লোক নৃত্যে বিশেষ অবদানের জন্য তড়িৎ সরকার ব্যালেট্রুপ-এর আয়োজনে সম্মাননা, সোনাতলা দূর্জয় সঙ্গীত একাডেমী কর্তৃক সংবর্ধনা, বগুড়া সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক আসর কর্তৃক সম্মাননা, বিশ্বললিতকলা একাডেমী কর্তৃক সংবর্ধনা, আমতলী মডেল স্কুল শিবগঞ্জ বগুড়া কর্তৃক সম্মাননা, বগুড়া গ্রন্থ কেন্দ্র কর্তৃক শারদ পদক, ডান্স গাইবান্ধা ডান্স কর্তৃক সম্মাননা, সপ্তস্বর শিল্পী গোষ্ঠী কর্তৃক সম্মাননা, রোমেনা আফাজ স্মৃতি পরিষদ কর্তৃক সংবর্ধনা, অনুশীলন ৯৫ সাংস্কৃতিক গোষ্ঠী, উৎপত্তি নৃত্যাশ্রম রাজশাহী, চর্চা সাংস্কৃতিক একাডেমী কর্তৃক সংবর্ধনা, শহীদ মান্নান-হান্নান স্মৃতি সাংস্কৃতিক সংসদ ও স্মৃতি পাঠাগার কর্তৃক সম্মাননা, নান্দনিক নাট্যদল কর্তৃক সম্মাননাসহ বহু সম্মাননা ও পদক পেয়েছেন।

মন্তব্য