| প্রচ্ছদ

বিয়ের দাবিতে এক প্রেমিকের বাড়িতে দুই ছাত্রী

পুণ্ড্রকথা ডেস্ক
পঠিত হয়েছে ১১৩ বার। প্রকাশ: ১৮ মার্চ ২০১৯ । আপডেট: ১৮ মার্চ ২০১৯ ।

টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে এক প্রেমিকের বাড়িতে উঠে বসেছেন দুই প্রেমিকা। দুই প্রেমিকার টানাটানির ঘটনা প্রকাশ হওয়ায় প্রেমিক সাব্বির খানকে (১৯) পুলিশ গ্রেপ্তার করে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠিয়েছে বলে জানা গেছে। ঘটনাটি ঘটেছে মির্জাপুর উপজেলার গোড়াই ইউনিয়নের বাইমাইল গ্রামে। গ্রেপ্তারকৃত সাব্বির উপজেলার বাইমাইল গ্রামের কামরুজ্জামান খানের ছেলে। তিনি মুন্সীগঞ্জ পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের চতুর্থ সেমিস্টারের শিক্ষার্থী।

জানা গেছে, সাব্বির একই উপজেলার ভাদগ্রাম ইউনিয়নের ইচাইল গ্রামের এক এসএসসি পরীক্ষার্থী ও পার্শ্ববর্তী দাসপাড়া গ্রামের এইচএসসি পরীক্ষার্থী ছাত্রীর সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলেন।

গত ১৫ মার্চ সাব্বির এইচএসসি পরীক্ষার্থীকে বিয়ে করার কথা বলে তার বাড়িতে উঠায়। খবর পেয়ে এসএসসি পরীক্ষার্থী শনিবার বিকেলে বিয়ের দাবিতে সাব্বিরের বাড়িতে উঠে বসে। সাব্বিরকে বিয়ের দাবিতে দুজনেই কঠোর অবস্থান নেয়। বিষয়টি বাইমাইল গ্রামে ছড়িয়ে পড়লে আলোচনার খোড়াকে পরিণত হয়। এর আগে এসএসসি পরীক্ষার্থীর মা বাদি হয়ে মেয়েকে অপহরণের অভিযোগ এনে শনিবার সাব্বিরের বিরুদ্ধে থানায় লিখিত অভিযোগ করেন।

অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে রাতে মির্জাপুর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মুরাদের নেতৃত্বে একদল পুলিশ সাব্বিরের বাড়িতে উপস্থিত হয়ে সাব্বিরকে গ্রেপ্তার ও দুই তরুণীকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসেন। রবিবার সকালে পুলিশ সাব্বিরকে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে ও ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য এসএসসি পরীক্ষার্থীকে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে পাঠায়। অন্যদিকে এইচএসসি পরীক্ষার্থী ছাত্রীর বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার জন্য টাঙ্গাইল সদর থানায় হস্তান্তর করা হয় বলে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই মুরাদ জানিয়েছেন।  

মির্জাপুর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মুরাদ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, দুই ছাত্রীই সাব্বিরকে প্রেমিক দাবি করছে। কিন্তু এক ছাত্রীর মা সাব্বিরের বিরুদ্ধে থানায় অপহরণের অভিযোগ দেয়ায় তার বিরুদ্ধে অপহরণ মামলা হয়েছে। সাব্বিরকে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।

মন্তব্য