| প্রচ্ছদ

আজ থেকে মুক্ত স্মিথ-ওয়ার্নার

পুণ্ড্রকথা ডেস্ক
পঠিত হয়েছে ১২৬ বার। প্রকাশ: ২৯ মার্চ ২০১৯ । আপডেট: ২৯ মার্চ ২০১৯ ।

অবশেষে মুক্তি! গত বছর কেপটাউন টেস্টে বল টেম্পারিং কাণ্ডে জড়িত থাকার অভিযোগে এক বছরের নিষেধাজ্ঞা পেয়েছিলেন দুই অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটার স্টিভেন স্মিথ ও ডেভিড ওয়ার্নার। আর মাঠে বল টেম্পারিংয়ের চেষ্টা করা ক্যামেরন ব্যানক্রফটের কপালে জুটেছিল নয় মাসের নিষেধাজ্ঞা।

গত ডিসেম্বরেই ব্যানক্রফটের নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ শেষ হয়েছে। আর আজ শেষ হচ্ছে স্মিথ ও ওয়ার্নারের নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ। আজ থেকে অস্ট্রেলিয়ার হয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলতে আর কোনো বাধা রইল না দু'জনের।

পাকিস্তানের বিপক্ষে পাঁচ ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ খেলতে অস্ট্রেলিয়া জাতীয় দল এখন অবস্থান করছে সংযুক্ত আরব আমিরাতে। প্রথম তিন ম্যাচের সবক'টিতে জিতে এরই মধ্যে সিরিজ নিজেদের করে নিয়েছে অসিরা। এই সিরিজের শেষ দুই ম্যাচেই জাতীয় দলের হয়ে আবার মাঠে নামার সুযোগ ছিল স্মিথ ও ওয়ার্নারের। তবে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার (সিএ) চাওয়া ছিল, এভাবে কোনো একটা সিরিজের মাঝপথে যেন প্রত্যাবর্তন না হয় তাদের।

দুই ক্রিকেটার তাই এখন ব্যস্ত আইপিএলে, যেখানে স্মিথ খেলছেন রাজস্থান রয়্যালসের হয়ে আর ওয়ার্নারের দল সানরাইজার্স হায়দরাবাদ। আইপিএলে যোগ দেওয়ার আগেই অবশ্য সতীর্থদের সঙ্গে একবার সংযুক্ত আরব আমিরাতে দেখা করে এসেছেন দুই ক্রিকেটার। সেখানে পেয়েছেন উষ্ণ অভ্যর্থনাও। বিশ্বকাপের আগে প্রস্তুতি ম্যাচ দিয়েই জাতীয় দলে ফেরার কথা রয়েছে এ দুই ক্রিকেটারের। গত বছরের মার্চে অস্ট্রেলিয়া দলের দক্ষিণ আফ্রিকা সফরের সময় কেপটাউন টেস্টে শিরিষ কাগজ দিয়ে ঘষে বলের অবস্থা পরিবর্তনের (টেম্পারিং) চেষ্টা করেছিলেন ক্যামেরন ব্যানক্রফট।

টিভি ক্যামেরায় সেই ঘটনা ধরা পড়ার পর সংবাদ সম্মেলনে টেম্পারিংয়ে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেন সে সময়কার অস্ট্রেলিয়া দলের অধিনায়ক স্টিভেন স্মিথ ও ব্যানক্রফট। দু'জনের কথা থেকে জানা যায়, টেম্পারিংয়ের পরিকল্পনা ছিল ওয়ার্নারের। পরে ঘটনার তদন্তশেষে স্মিথ-ওয়ার্নারকে এক বছর এবং ব্যানক্রফটকে নয় মাসের জন্য নিষিদ্ধ করে সিএ। সেই ঘটনার পর পদত্যাগ করেছিলেন দলের তখনকার কোচ ড্যারেন লেহম্যান।

মন্তব্য