| প্রচ্ছদ

বিশ্বকাপে ভারতের দল ঘোষণা

রাইডু-পান্ত বাদ, রাহুল-কার্তিক যাচ্ছেন বিশ্বকাপে

পুন্ড্রকথা ডেস্ক
পঠিত হয়েছে ৭৬ বার। প্রকাশ: ১৫ এপ্রিল ২০১৯ । আপডেট: ১৫ এপ্রিল ২০১৯ ।

ভারতের বিশ্বকাপ দল নিয়ে বেশ জল্পনা-কল্পনা হয়েছে। সোমবার দল ঘোষণা হবে আগেই জানা ছিল। দল কেমন হবে তাও প্রায় জানা। দুটি-তিনটি জায়গা নিয়ে শুধু চিন্তা ছিল দেশটির ক্রিকেট বোর্ডের নির্বাচকদের। চার নম্বর পজিশনে কাকে খেলানো হবে। হার্ডিক পান্ডিয়ার বিকল্প অলরাউন্ডার হিসেবে দলে কে থাকছেন। ধোনীর ইনজুরি চিন্তায় কাকে বিশ্বকাপ বহরে রাখা হবে।  

সেই প্রশ্নের উত্তর বিসিসিআইয়ের ঘোষিত দল থেকে পেয়ে যাওয়ার কথা। ভারতের ঘোষিত বিশ্বকাপ দলে চারের বিকল্প এবং ধোনীর বিকল্প উইকেটরক্ষক হিসেবে রাখা হয়েছে দিনেশ কার্তিককে। সঙ্গে আছেন কেএল রাহুলও। এছাড়া ভারতের ঘোষিত বিশ্বকাপে দলে অলরাউন্ডার হিসেবে হার্ডিক পান্ডিয়ার সঙ্গে রাখা হয়েছে রবীন্দ্র জাদেজা এবং বিজয় শঙ্করকে। দলে যায়গা পায়নি আম্বাতি রাইডু এবং ঋষভ পান্ত।

বাকি জায়গাগুলো প্রত্যাশা মতোই পূরণ হয়েছে। বিরাট কোহলির নেতৃত্বে ইংল্যান্ডে বিশ্বকাপ খেলবে ভারত। তার ডেপুটি রাখা হয়েছে রোহিত শর্মাকে। আছেন শেখর ধাওয়ান। ওপেনিং এবং চারের চিন্তায় দলে আছেন কেএল রাহুল। পেস আক্রমণে বুমরাহ, শামি এবং ভুবনেশ্বর আছেন। স্পিন আক্রমণে ভারতের ভরসা কুলদীপ যাদব এবং যুজবেন্দ্র চাহালে।

ভারতের নির্বাচক প্যানেলের প্রধান এমএসকে প্রসাদের নেতৃত্বে ভারতের সেরা ১৫ জনকে বেছে নেওয়া হয়েছে। তার আগে ভারতীয় অধিনায়ক বিরাট কোহলি মুম্বাইয়ে বিসিসিআইয়ের সদর দপ্তরে প্রসাদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। বোর্ডে চারে ব্যাটিংয়ের জন্য পান্ত এবং রাইডুর নামও উঠে আসে। কিন্তু রাহুল এবং কার্তিককেই বেছে নিতে হয় নির্বাচকদের। 

দল নিয়ে এমএসকে প্রসাদ বলেন, 'ধোনী ইনজুরিতে পড়লেই বিকল্প উইকেটরক্ষকে খেলতে হবে। উইকেটের পেছনে পান্তের চেয়ে কার্তিক ভালো হওয়ায় তাকে আমরা বেছে নিয়েছি। বিজয় শঙ্করও চারের চিন্তায় দলে আছে। রাহুল দলে ওপেনারের বিকল্প হিসেবে।' রাইডু চ্যাম্পিয়নস ট্রফির পরে সুযোগটা নিতে পারেননি বলে মত প্রসাদের।    

ভারতের ১৫ সদস্যের বিশ্বকাপ দল: বিরাট কোহলি (অধি.) রোহিত শর্মা (সহ-অধি.), শেখর ধাওয়ান, কেএল রাহুল, এমএস ধোনী, কেদার যাদব, হার্ডিক পান্ডিয়া, ভুবনেশ্বর কুমার, জসপ্রিত বুমরাহ, যুজবেন্দ্র চাহাল, কুলদীপ যাদব, মোহাম্মদ শামি, রবীন্দ্র জাদেজা, দিনেশ কার্তিক, বিজয় শঙ্কর।

মন্তব্য