| প্রচ্ছদ

নওগাঁর মহাদেবপুরে ডায়রিয়ায় পিতা-পুত্রের মৃত্যু

নওগাঁ প্রতিনিধি
পঠিত হয়েছে ১১৪ বার। প্রকাশ: ২৯ এপ্রিল ২০১৯ । আপডেট: ২৯ এপ্রিল ২০১৯ ।

নওগাঁর মহাদেবপুরে ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়ে পিতা-পুত্রের মৃত্যু হয়েছে। নিহতরা হলো- পিতা অরুণ চন্দ্র কুন্ডু(৬৫) ও পুত্র চন্দন কুমার কুন্ডুর(২৫)। রোববার রাতে উপজেলার উত্তরগ্রাম ইউনিয়নের দরিয়াপুর গ্রামে ওই ঘটনাটি ঘটেছে। এতে করে ওই পরিবারে শোকের ছায়া নেমে এসেছে। সোমবার বেলা ১১টার দিকে ওই দুই জনের লাশ উদ্ধার করে থানা হেফাজতে নেয় পুলিশ। পরে আইনী প্রক্রিয়ায় ওইদিন দুপুরে লাশের সৎকার সম্পন্ন করা হয়েছে। তবে চিকিৎসকদের ধারনা অত্যাধিক ঘরম ও খাদ্যে বিষ ক্রিয়ায় তাদের মৃত্যু হয়েছে। 


পুলিশ জানায়, রোববার সন্ধ্যায় অরুন চন্দ্র কুন্ডু তার ছেলেকে নিয়ে উপজেলার সদরের শিবগঞ্জ মোড় এলাকায় নিজস্ব ব্যবসা প্রতিষ্ঠান আয়োজিত বনভোজনে খাবার খেয়ে বাড়ি চলে যায়।  এরপর তারা দু'জনই অসুস্থ হয়ে পড়ে। ঘন ঘন বমি ও পাতলা পায়খানা শুরু হয়। রাত সাড়ে ৯টার দিকে পাতলা পায়খানা ও বমি নিয়ন্ত্রনণ না হওয়ায় প্রতিবেশী লোকজন তাদের উদ্ধার করে দ্রুত উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করায়। রাত সাড়ে ১০টার দিকে অরুন চন্দ্র কুন্ডু চিকিৎসাধীন অবস্থায় সেখানে মারা যায়। অপরদিকে ছেলে চন্দন কুমার কুন্ডুর অবস্থার অবনতি হলে তাকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। সেখানে চিসিৎসাধীন অবস্থায় চন্দন কুমার কুন্ডু রাত ৩টার দিকে মারা যায়। 
 

এ ব্যাপারে মহাদেবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. দেবাশীস বিশ্বাস জানান, তাপদাহ ও ভ্যাপসা গরমে অসুস্থ হয়ে পিতা-পুত্রের একাধিকবার পাতলা পায়খানা ও একাধিকবার বমির ঘটনা ঘটে। এতে করে তারা উভয় অসুস্থ অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তির পর পিতা অরুন কুন্ডু মহাদেবপুরে এবং পুত্র চন্দন কুন্ডু রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন। ধারনা করা হচ্ছে অত্যাধিক ঘরম ও খাদ্যে বিষ ক্রিয়ায় তাদের মৃত্যু হয়েছে।
 

মহাদেবপুর থানার ওসি সাজ্জাদ হোসেন বলেন, 'আইনগত প্রক্রিয়ার মাধ্যমে লাশ দাহ করা হয়েছে। গত প্রায় দু মাস আগে চন্দন কুন্ডু কুড়িগ্রাম জেলায় বিয়ে করেন। কয়েক ঘন্টার ব্যবধানে ডায়রিয়ায় পিত-পুত্রের মৃত্যুর ঘটনায় প্রতিবেশীদের মধ্যে শোকের ছায়া নেমে এসেছে।'

মন্তব্য