| প্রচ্ছদ

কোরআনের কিছু কথা- ৪

কোরআনের উপমা হৃদয়ে দোলা দেয়

জুবাইর হাসান মোহাম্মদ জুলফিকার আলী
পঠিত হয়েছে ২২০ বার। প্রকাশ: ০৮ মে ২০১৯ । আপডেট: ০৮ মে ২০১৯ ।

যিকির শব্দের সাধারণ অর্থ আল্লাহর স্মরণ। তবে আল্লাহতায়ালা যিকির শব্দ দ্বারা কোরআনকেও বুঝিয়েছেন। কোরআন নাযিল করার সময়ে, আল্লাহতায়ালা কোরআনের শিক্ষা ধারার ব্যাখ্যা বিশ্লেষণ মানুষের সামনে পেশ করার জন্য রাসূল সাঃ -কে নির্দেশ দিয়েছেন। যেন মানুষ নিজেরাও কোরআন নিয়ে চিন্তা-ভাবনা করে। মহান আল্লাহতায়ালা বলছেন,
“(এ সব নবীকে) আমি সুস্পষ্ট দলিল প্রমাণ ও কেতাব সহকারে পাঠিয়েছি, (একইভাবে আজ) তোমার কাছেও যিকির (কোরআন) নাযিল করেছি, যাতে করে যে (শিক্ষা) মানুষদের জন্যে তাদের কাছে পাঠানো হয়েছে, তুমি তা তাদের সুস্পষ্টভাবে বোঝাতে পারো, যেন তারা (নিজেরাও একটু) চিন্তা ভাবনা করে।”-সূরা নাহল:৪৪
রাসূল সাঃ ছিলেন কোরআনের সবচেয়ে বড় আলেম, আমাদের সর্বশ্রেষ্ঠ শিক্ষক। তিনি কোরআনকে মানুষের কাছে সুস্পষ্টভাবে বোঝাতে গিয়ে যেসব ব্যাখ্যা বিশ্লেষণ করেছেন তার সবই আমাদের সামনে সহীহ হাদিসরূপে উপস্থিত রয়েছে। এই সহীহ হাদীস ছাড়া কোরআন ব্যাখ্যা বিশ্লেষণ সম্ভব নয় এবং সহীহ হাদিস অমান্য করারও কোনো সুযোগ নাই।
যাহোক, কোরআন নিয়ে-চিন্তা গবেষণা করার অর্থ শুধু এটাই নয় যে, প্রত্যেক মানুষকেই পণ্ডিত হবার জন্য সারা দিন-রাত সেটা নিয়ে পড়ে থাকতে হবে এবং তা না হলে তো পাণ্ডিত্য অর্জিত হবে না। আসলে সাধারণ মানুষের সহজ সরল ক্ষুদ্র জ্ঞান দিয়েও কোরআন সম্পর্কে চিন্তা-গবেষণা করা যায়। কোরআনে বর্ণিত অসংখ্য নিরেট সহজ সরল উপমা-উদাহরণ-নমুনা নিয়েই চিন্তা গবেষণা করা যায়। তা থেকে শিক্ষা লাভ করা যায়। প্রসঙ্গক্রমে এমনই একটা সহজ-সরল উপমা পেশ করছি। মহান আল্লাহতায়ালা বলেন-
“যদি আমি এ কোরআন পর্বতের ওপর অবতীর্ণ করতাম তাহলে তুমি দেখতে যে, ওটা আল্লাহর ভয়ে বিনীত ও বিদীর্ণ হয়ে গেছে। আমি এসব দৃষ্টান্ত বর্ণনা করি মানুষের জন্যে যাতে তারা চিন্তা করে।”-সূরা হাশর-২১।
অর্থাৎ যদি মহামহিমান্বিত আল্লাহ এই কোরআনকে কোনো কঠিন ও উঁচু পর্বতের ওপর অবতীর্ণ করতেন এবং সেটাকে চিন্তা ও অনুভূতি শক্তি দান করতেন, তাহলে সেটাও আল্লাহর ভয়ে চূর্ণ-বিচূর্ণ হয়ে যেত। পাহাড়ের তুলনায় মানুষের অন্তর বহুগুণ নরম ও ক্ষুদ্র। মানুষকে পূর্ণমাত্রার বোধ ও অনুভূতি শক্তি দেয়া হয়েছে। সুতরাং কোরআন অবতীর্ণ হওয়ার কারণে মানুষের অন্তর পাহাড়ের চেয়ে অধিকতর ক্রিয়াশীল হওয়া উচিত। মানুষ যেন এই বিষয়টাই চিন্তা ভাবনা করে। আর এজন্যেই আল্লাহ তায়ালা মানুষের সামনে এসব দৃষ্টান্ত উপস্থাপন করেছেন।

চলবে...
 

মন্তব্য