| প্রচ্ছদ

মহাকাশে লাখ লাখ ছায়াপথ

পুণ্ড্রকথা ডেস্ক
পঠিত হয়েছে ৭৪ বার। প্রকাশ: ২০ মে ২০১৯ ।

১৮টি দেশের ২০০ জনের বেশি জ্যোতির্বিজ্ঞানী লো-ফ্রিকয়েন্সি ‘লোফার’ টেলিস্কোপ ব্যবহার করেন।

দূরদর্শনের অত্যাধুনিক এই প্রযুক্তির সাহয্যেই জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা সম্প্রতি মহাকাশে প্রায় ৩ লাখ ছায়াপথ আবিষ্কার করেছেন। খবর সিএনএনের।

‘লোফার’ একটি সংবেদনশীল রেডিও সার্ভে। যার মাধ্যম মহাকাশের যাবতীয় বিষয়গুলো সুন্দরভাবে ম্যাপ করা হয়। গবেষকরা এখানে দেখতে সক্ষম হয়েছেন কৃষ্ণগহ্বর, ছায়াপথগুচ্ছ এবং চৌম্বক ক্ষেত্র। হামবুর্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের জ্যোতিপদার্থবিদ মারকুস ব্রুগেন বলেন, লোফারের মাধ্যমে আমরা জানার চেষ্টা করেছি, ছায়াপথের যেখানে কৃষ্ণগহ্বর রয়েছে, সেখানে এটা থাকার কারণ কি?

গবেষক ফিলিপ বেস্ট বলেন, ছায়াপথগুচ্ছ দেখতে অনেকটা তারার স্তূপের মতো। যেখানে কয়েক লাখ ছায়াপথ একসঙ্গে জ্বলজ্বল করছে। কখনও কখনও দুটো ছায়াপথ একত্রিত হয় এবং রেডিও তরঙ্গ তৈরি করে, যা কয়েক মিলিয়ন আলোকবর্ষ ধরে চলতে থাকে।

গবেষক ও’ সুলিভান বলেন, লোফার পরিমাণ করতে সক্ষম হয়েছে, মহাজাগতিক চৌম্বক ক্ষেত্র কতটুকু প্রভাব বিস্তার করে ১১ মিলিয়ন আলোকবর্ষ বড় ছায়াপথের রেডিও তরঙ্গের ওপর। ছায়াপথগুচ্ছ থেকে গবেষকরা এত বেশি তথ্য পেয়েছেন যা অন্তত এক কোটি ডিভিডিতে ধারণ করা যায়।

এম ৫১ ঘূর্ণাবত ছায়াপথের সন্ধান পাওয়া গেছে যার অবস্থান পৃথিবী থেকে সাড়ে তিন কোটি আলোকবর্ষ দূরে। এর কেন্দ্রে রয়েছে বেশ বড় কৃষ্ণগহ্বর।

মন্তব্য