| প্রচ্ছদ

স্ত্রীর কাণ্ডে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি পেতে পারেন ধোনি!

পুন্ড্রকথা ডেস্ক
পঠিত হয়েছে ৮৮ বার। প্রকাশ: ০৯ জুন ২০১৯ ।

সমালোচনা আর বিতর্ক যেন থামছেই না ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড আর দলের খেলোয়াড়দের নিয়ে। একের পর বিতর্কে জড়াচ্ছেন তারা। বিশ্বকাপ চলাকালীন নিজের কিপিং গ্লাভসে সেনাবাহিনীর লোগো ব্যবহারের মাধ্যমে আলোচনায় এসেছেন ভারতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনি।

এর আগে ভারতে একটি ব্রিজের থামে আইএসের প্রশংসাসূচক বার্তায় কেজরিওয়ালের মতো রাজনৈতিক নেতার সঙ্গে ধোনির নাম জুড়ে দেয়ায় বেশ আলোচিত হয়েছিলেন তিনি। এবার নিজের নয়, স্ত্রীর কারণে সমালোচিত হলেন এমএসডি। এক নতুন ঘটনার জন্ম দিলেন ধোনির স্ত্রী সাক্ষী ধোনি।

ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিসিাই) নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে নির্ধারিত সময়ের আগেই বিশ্বকাপের মাঠে হাজির হয়ে তিনি বিপদে ফেলে দিলেন ধোনিকে।

এবারের বিশ্বকাপে বিসিসিআইয়ের কড়া নির্দেশ ছিল, বিশ্বকাপে ভারতের প্রথম ম্যাচের পর থেকে বিশ দিন পর্যন্ত অর্থাৎ ২৬ জুনের আগে কোনো খেলোয়াড় নিজেদের স্ত্রী ও পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে রাখতে পারবে না। এর ব্যত্যয় ঘটলে বোর্ড ব্যবস্থা নিবে। কিন্তু সে নিয়মকে বুড়ো আঙ্গুল দেখিয়ে বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচ থেকেই মেয়ে জিভাকে নিয়ে মাঠে উপস্থিত হচ্ছেন সাক্ষী ধোনি।

৫ জুন (বুধবার) দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে নিজেদের প্রথম ম্যাচে উপস্থিত ছিলেন ধোনির স্ত্রী সাক্ষী ও কন্যা জিভা। ইনস্টাগ্রামে নিজেদের হাস্যোজ্জ্বল ছবিও আপলোড করেছেন সাক্ষী।

এরপর থেকেই নিয়ম ভাঙার অভিযোগে সমালোচনায় মেতে ওথেন ক্রিকেটভক্তরা। ধোনি বলে নিয়ম মানা হবে না এমন কথাও উঠতে থাকে।

অনেকেই বলেন, স্টার ক্রিকেটার বলে যা খুশি করার অধিকার নেই ভারতের সাবেক অধিনায়কের। তবে ধোনির পক্ষ নিয়ে কথা বলেছেন তার ভক্তরা। তার বলছেন, বিসিসিআইইয়ের কোনো নিয়ম ভাঙ্গেননি ধোনির স্ত্রী। তিনি শুধু নিজে নিজে মাঠে গিয়েছিলেন দলকে উৎসাহ দিতে।

খেলোয়াড়ের পরিবারের কেউ যদি নিজেদের মতো ইংল্যান্ডে গিয়ে মাঠে খেলা উপভোগ করেন, সেক্ষেত্রে বোর্ডের কিছু করার নেই বলে মত দেন তারা। তবে যে যাই বলুক, বিষয়টি আমলে নিয়েছে বিসিসিআই। কিপিং গ্লাভসে সেনাবাহিনীর লোগো রাখার ঘটনায় বোর্ডকে পাশে পেয়েছেন ধোনি। 

তবে এ ঘটনায় ধোনিকে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দেয়া হতে পারে বলে জানিয়েছেন ভারতীয় গণমাধ্যমের কয়েকটি সূত্র।

মন্তব্য