| প্রচ্ছদ

আক্ষেপ থাকলেও হতাশ নন টাইগার সমর্থকরা

পুণ্ড্রকথা ডেস্ক
পঠিত হয়েছে ৭৮ বার। প্রকাশ: ২১ জুন ২০১৯ ।

৩৮২ রানের পাহাড়সম লক্ষ্য সামনে নিয়ে বৃহস্পতিবার দুর্দান্ত লড়াই করে হেরেছে বাংলাদেশ। এই পরাজয়ে আক্ষেপ থাকলেও হতাশ নন টাইগার সমর্থকরা।টাইগার সমর্থকরা বলছেন, জয়টাই বড় কথা নয়, বাংলাদেশ যে বিশ্ব ক্রিকেটের অন্যতম দাপুটে টিম, বৃহস্পতিবার নটিংহামের ট্রেন্ট ব্রিজে তার প্রমাণ আবারও দিয়েছেন মাশরাফিরা।

সমর্থকদের মতে, বৃহস্পতিবার মাশরাফিরা বিজয়ের হাসি হাসতে না পারলেও বিশ্বের কোটি ক্রিকেটপ্রেমীর হৃদয় জয় করে নিয়েছে তারা।

অস্ট্রেলিয়ার কাছে হেরে যাওয়ায় সেমিফাইনালে যাওয়ার সমীকরণটা কঠিন হলেও বাড়ি ফিরতে এবার অন্তত ‘মন খারাপের গাড়ি’ খুজেননি টাইগার সমর্থকরা। অস্ট্রেলিয়াকে হারাতে পারলে পরের তিন ম্যাচের দুটিতে জয় পেলেই সেমিফাইনালে যাওয়ার সুযোগ হতো বাংলাদেশের। খেলায় হেরে সেই রাস্তা আপাতত পিচ্ছিল করে দিলো অজিরা। এরপরও খেলায় টাইগারদের দাপুটে মুভমেন্ট ক্রিকেট সাম্রাজ্যের অধিপতি দাবিদারদের মনে ভয় ঢুকিয়ে দিয়েছে, এমনটিই মনে করছেন টাইগার সমর্থকরা। আর তাই শূন্য হাতে দর্শক গ্যালারি থেকে ফিরেছেন, এমনটা মানতে রাজি নন তারা।

খালি হাতে ফেরেনি টাইগাররাও। খেলার মাধ্যমে এই বার্তাটি তারা দিতে পেরেছে ন, বাংলাদেশের বিরুদ্ধে নামার আগে নিজেদের শ্রেষ্ঠত্ব প্রমাণের প্রস্তুতি নিতে হবে যে কোন দলকে, মাঠে খেলতে হবে সেরাটুকু উজাড় করে দিয়ে। একমাত্র তাহলেই সম্ভব আজকের বাংলাদেশকে হারানো। অবশ্য ট্রেন্ট ব্রিজে সেটাই করেছে অজিরা।

ইংল্যান্ডের বাংলা পত্রিকা সত্যবাণীর উপদেষ্ঠা সম্পাদক আবু মুসা হাসান টাইগারদের উৎসাহ দিতে বাংলাদেশের প্রতিটি খেলায় উপস্থিত থাকেন গ্যালারিতে। নটিংহামের ট্রেন্ট ব্রিজ স্টেডিয়ামে যাওয়ার আগে সত্যবাণীতে প্রকাশিত তার কলামে আশাবাদ ব্যক্ত করে বলেছিলেন, ‘অস্ট্রেলিয়াকে হারালেই সেমিফাইনালের হাতছানি’। খেলা শেষে তাকে জিজ্ঞেস করা হলো, খুবই কী হতাশ? বললেন, ‘ক্রিকেট ইজ এ গেইম অফ মোস্ট আনসারটেইনিটি। জয় ছিনিয়ে আনতে না পারলেও ক্রিকেট সাম্রাজ্যের বর্তমান দখলদারদের মধ্যে টাইগাররা যে ভয় ঢুকিয়ে দিতে পেরেছে এটি আমি নিশ্চিত।’

এবারের বিশ্বকাপে শুরু থেকেই অন্য বাংলাদেশকে দেখছে বিশ্ব। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষেও বৃহস্পতিবার সেই দুর্বার বাংলাদেশেরই দেখা মিলেছে। ৩৮২ রানের পাহাড়সম লক্ষ্য নিয়েও মাঠ দাপিয়েছে টাইগাররা, প্রবল আত্মবিশ্বাসে খেলেই শেষ পর্যন্ত ৪৮ রানে পরাজয় মানতে হয়েছে তাদের।

অন্য খেলাগুলোর মতো বৃহস্পতিবারও ট্রেন্ট ব্রিজ ক্রিকেট গ্যালারি ছিলো লাল সবুজের দখলে। সর্বক্ষণ উৎসাহ দিয়েছেন টাইগারদের। শুধু ব্রিটেন নয়, ইউরোপ ও আমেরিকা থেকেও এসেছিলেন বিপুল সংখ্যক টাইগার সমর্থক। অবাঙালি সাদা সমর্থকের সংখ্যাও ছিলো বিপুল। পছন্দের দল পরাজয় নিয়ে মাঠ থেকে বের হলেও টাইগারদের নেতিবাচক সমালোচনা কারো মুখে শোনা যায়নি। 

খেলায় জিতলে টাইগারদের বাহবা আর হারলে চৌদ্ধগোষ্ঠী উদ্ধার, অতীতে টাইগার সমর্থকদের মধ্যে এমন প্রবণতা দেখা গেলেও বৃহস্পতিবার অষ্ট্রেলিয়া বনাম বাংলাদেশ খেলা শেষে তেমনটা বলতে শোনা যায়নি। সবার একই মন্তব্য ‘লড়াই করেই হেরেছে বাংলাদেশ’। জিতলেও খেলার মাঠে টাইগারদের আক্রমণই শুধু নয়, লাল-সবুজ সমর্থকদের স্নায়ুবিক চাপ মোকাবিলা করেই জিততে হয়েছে অজিদের। পরাজিত হয়েও টাইগার সমর্থকদের প্রত্যেকেই চেহারায় অহংকারের ঔজ্জ্বল্য নিয়ে বের হয়েছেন ট্রেন্ট ব্রিজ থেকে। গর্বের সাথেই তারা বলছেন, প্রতিপক্ষ যেই হোক, লড়বে টাইগার। খবর সমকাল অনলাইন।

মন্তব্য