| প্রচ্ছদ

নওয়াজকে ফাঁসানো হয়েছে, ইমরানের পদত্যাগের দাবিতে সরব মরিয়ম

পুণ্ড্রকথা ডেস্ক
পঠিত হয়েছে ৪৬ বার। প্রকাশ: ০৯ জুলাই ২০১৯ ।

২০১৮ সালের ডিসেম্বরে আল আজিজিয়া স্টিল দুর্নীতি মামলায় দোষী সাব্যস্ত হওয়ায় পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফের ৭ বছরের জেল হয়েছে। আপাতত লাহোরের কোট লাখপত জেলেই বন্দি রয়েছেন তিনি।

কিন্তু নওয়াজ শরিফকে অন্যায়ভাবে শাস্তি দেওয়া হয়েছে বলে দাবি করলেন তার মেয়ে মরিয়ম নওয়াজ। মরিয়মের দাবি, চাপ দিয়ে বিচার প্রক্রিয়াকে প্রভাবিত করে তার বাবাকে শাস্তি দেওয়া হয়েছে।

গত শনিবারই নিজের অভিযোগ প্রমাণ করতে একটি ভিডিও প্রকাশ করেন পাকিস্তানের প্রধান বিরোধীদল ‘পাকিস্তান মুসলিম লিগ-নওয়াজ’-এর নেত্রী মরিয়ম নওয়াজ।

এই ভিডিওতে পিএমএল-এন নেতা নাসির বাটকে ইসলামাবাদ আদালতের বিচারপতি আরশাদ মালিকের সঙ্গে কথা বলতে দেখা যায়। এই ভিডিও-এর মাধ্যমে সামনে আসা তথ্যানুযায়ী, নওয়াজ শরিফকে দুর্নীতি মামলায় দোষী সাব্যস্ত করতে তাকে বার বার হুমকি দেওয়া হয়েছে বলে দাবি করেন মামলার বিচারপতি আরশাদ মালিক।

শেষমেশ তাই চাপের মুখে উপযুক্ত প্রমাণ ছাড়াই আজিজিয়া স্টিল দুর্নীতি মামলায় পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রীকে দোষী সাব্যস্ত করতে বাধ্য হন তিনি।

এই ভিডিও প্রকাশের পর থেকেই পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের বিরুদ্ধে সুর চড়াতে শুরু করেন নওয়াজ-কন্যা মরিয়ম। ইমরান খানের পদত্যাগ দাবি করেছেন তিনি।

দুর্নীতি মামলায় নওয়াজকে ফাঁসানোর ঘটনায় কড়া ভাষায় ইমরানের নিন্দা করেন মরিয়ম। ইমরানের পদত্যাগ দাবি করার পাশাপাশি নওয়াজ শরিফের মুক্তির দাবিতে রবিবার রাতে পাক পাঞ্জাব প্রদেশের মান্ডি বাহাউদ্দিন শহরে মিছিলও বের হয় মরিয়মের নেতৃত্বে।

যদিও যে ভিডিও’র ভিত্তিতে নওয়াজ শরিফের বিরুদ্ধে চক্রান্ত বা দুর্নীতি মামলার বিচার প্রক্রিয়াকে প্রভাবিত করার অভিযোগ করছেন মরিয়ম, সেই ভিডিওকে ভুয়ো বলেই দাবি করেছেন মামলার বিচারপতি আরশাদ মালিক।

সোমবার তিনি জানিয়েছেন, যথাযথ প্রমাণের ভিত্তিতেই নওয়াজের শাস্তি ঘোষণা করা হয়েছে। এই মামলায় কোনও চাপ ছিল না তার উপর।

মন্তব্য