| প্রচ্ছদ

পদ্মা সেতুতে মানুষের মাথা লাগবে গুজব ছড়ানোয় গ্রেপ্তার ৩

পুণ্ড্রকথা ডেস্ক
পঠিত হয়েছে ৫৭ বার

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ‘পদ্মা সেতুর জন্য মানুষের মাথা লাগবে’ গুজব ছড়ানোর অভিযোগে চট্টগ্রামের আনোয়ারা, কুমিল্লার লাকসাম এবং নড়াইলের লোহাগড়া থেকে তিনজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

শুক্রবার রাতে আনোয়ারা উপজেলার বারখাইন ইউনিয়নের তৈলারদ্বীপ গ্রামের সার্কুলার সড়ক থেকে আরমান হোসেন (২০) নামে একজনকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব-৭। খবর দেশ রুপান্তর 

এ সময় তার কাছ থেকে গুজবের আলামতসহ একটি মোবাইল সেট জব্দ করে র‌্যাব সদস্যরা। এ ঘটনায় গতকাল র‌্যাব-৭ এর সিপিসি-৩ চান্দগাঁও ক্যাম্পের সদস্য আবদুল হক বাদী হয়ে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে আনোয়ারা থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

আনোয়ারা থানার এসআই ও মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা খুরশীদ আলম জানান, গ্রেপ্তার আরমানের মুঠোফোনের ফেসবুক ও মেসেঞ্জারে মাথা কাটার গুজব ছড়ানোর সত্যতা পাওয়া গেছে। আসামিকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য সাত দিনের রিমান্ডের আবেদন করে আদালতে পাঠানো হবে।

কয়েক দিন ধরে একটি চক্র ফেসবুকে পদ্মা সেতুর জন্য কাটা মাথা লাগবে বলে গুজব ছড়ায়। এতে দেশজুড়ে আতঙ্ক দেখা দেয়। পদ্মাসেতু কর্তৃপক্ষ এক বিবৃতিতে বিষয়টি গুজব বলে জানায়। সরকারের মন্ত্রীরাও এ ঘটনাকে গুজব বলে উল্লেখ করেন।

ফেসবুকে এমন গুজব ছড়ানোর অভিযোগে কুমিল্লার হায়াতুন্নবী নামে এক ব্যক্তিকেও আটক করেছে র‌্যাব। শুক্রবার ভোরে জেলার লাকসাম উপজেলার আশাথী গ্রাম থেকে তাকে আটক করা হয়। আটক ব্যক্তি জামায়াত সমর্থক বলে জানয় কুমিল্লা র‌্যাব-১১।

কুমিল্লা র‌্যাব-১১ এর ভারপ্রাপ্ত কোম্পানি কমান্ডার প্রণব কুমার জানান, সে ‘নবী লাকসাম’ নামে একটি ফেসবুক আইডি ব্যবহার করে জনমনে বিভ্রান্ত সৃষ্টি করতে পদ্মাসেতু নিয়ে গুজব ছড়ায় এবং বিভিন্ন আইডি ব্যবহার করে বিভিন্ন সময়ে সরকারবিরোধী অপপ্রচার চালায়।

র‌্যাব জানায়, আটকের পর জিজ্ঞাসাবাদে ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার কথা শিকার করে হায়াতুন্নবী।

একই অভিযোগে নড়াইলের লোহাগড়া উপজেলার মাকড়াইল গ্রাম থেকে শহিদুল ইসলাম সোহেল (২৫) নামে এক যুবকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব-৬। শুক্রবার সকালে লোহাগড়া থানায় তার বিরুদ্ধে তথ্যপ্রযুক্তি আইনে মামলা হয়েছে।

এর আগে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় র‌্যাব-৬ এর এএসপি শাহিনুর ইসলামের নেতৃত্বে সোহেলকে তার বাড়ি থেকে গ্রেপ্তার করা হয়।

র‌্যাব জানায়, পদ্মা সেতু নির্মাণে মানুষের মাথা লাগবে- সোহেল তার দুটি ইউটিউব চ্যানেল থেকে এমন গুজব ছড়ায়। সোহেল যশোর শহরের শিশু হাসপাতাল এলাকায় একটি আইটি অফিসে কাজ করে। এ ঘটনায় তার কাছ থেকে একটি করে মোবাইল ফোন, ল্যাপটপ, ট্যাব, কম্পিউটার ও যন্ত্রাংশ জব্দ করা হয়েছে। 

লোহাগড়া থানার ওসি মোকাররম হোসেন জানান, পদ্মা সেতু নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অপপ্রচার ও গুজব ছড়ানোর অভিযোগে শহিদুল ইসলাম সোহেলকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব। তার বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা হয়েছে।

মন্তব্য