| প্রচ্ছদ

আংশিক চন্দ্রগ্রহণ বুধবার

পুণ্ড্রকথা ডেস্ক
পঠিত হয়েছে ৭৮ বার। প্রকাশ: ১৫ জুলাই ২০১৯ ।

আগামী বুধবার আকাশ পরিষ্কার থাকলে সারাদেশ থেকে আংশিক চন্দ্র গ্রহণ দেখা যাবে। বাংলাদেশের পাশাপাশি এশিয়ার অন্যান্য দেশ, ক্যারিবিয়ান অঞ্চল, দক্ষিণ আমেরিকা, ইউরোপ, আফ্রিকা থেকেও এ চন্দ্রগ্রহণ দেখা যাবে।

সোমবার আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তর (আইএসপিআর) এ তথ্য জানিয়েছে। সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, বুধবার রাত ১২টা ৪২ মিনিট ১২ সেকেন্ডে বাংলাদেশ সময় (বিএসটি) গ্রহণটি শুরু হয়ে ৬ টা ১৯ মিনিট ২৪ সেকেন্ডে শেষ হবে। ৩ টা ৩০ মিনিট ৪৮ সেকেন্ডে সর্বোচ্চ গ্রহণ ঘটবে। গ্রহণটির সর্বোচ্চ মাত্রা হবে ০.৬৫৮। গ্রহণটি ভারত মহাসাগরে মরিশাসের পূর্ব দিক থেকে দক্ষিণ আটলান্টিক মহাসাগরে সেন্ট হেলেনা অ্যাসেনশিওন ও ত্রিস্তান দ্য কুনহা দক্ষিণ-পশ্চিম দিক পর্যন্ত দেখা যাবে। খবর সমকাল অনলাইন 

অপর এক বিজ্ঞপ্তিতে অনুসন্ধিৎসু চক্র বিজ্ঞান সংগঠন জানিয়েছে, চন্দ্রগ্রহণের সময় যখন সূর্য ও চাঁদের মাঝখানে পৃথিবী একই সরলরেখায় চলে আসে, তখন পৃথিবীর ছায়া চাঁদের ওপর পড়ে। ফলে পৃথিবী থেকে মনে হয় চাঁদ ধীরে ধীরে ঢেকে যাচ্ছে। চাঁদকে অনেকটা তামাটে বা লালচে চাকতির মতো মনে হবে।

অনুসন্ধিৎসু চক্রের জ্যোতির্বিজ্ঞান বিভাগের সভাপতি শাহজাহান মৃধা জানান, সূর্যগ্রহণ খালি চোখে দেখা অত্যন্ত ক্ষতিকর হলেও চন্দ্রগ্রহণ খালি চোখে দেখা ক্ষতিকর নয়।

আগামী বুধবার আকাশ পরিষ্কার থাকলে সারাদেশ থেকে আংশিক চন্দ্র গ্রহণ দেখা যাবে। বাংলাদেশের পাশাপাশি এশিয়ার অন্যান্য দেশ, ক্যারিবিয়ান অঞ্চল, দক্ষিণ আমেরিকা, ইউরোপ, আফ্রিকা থেকেও এ চন্দ্রগ্রহণ দেখা যাবে।

সোমবার আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তর (আইএসপিআর) এ তথ্য জানিয়েছে। সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, বুধবার রাত ১২টা ৪২ মিনিট ১২ সেকেন্ডে বাংলাদেশ সময় (বিএসটি) গ্রহণটি শুরু হয়ে ৬ টা ১৯ মিনিট ২৪ সেকেন্ডে শেষ হবে। ৩ টা ৩০ মিনিট ৪৮ সেকেন্ডে সর্বোচ্চ গ্রহণ ঘটবে। গ্রহণটির সর্বোচ্চ মাত্রা হবে ০.৬৫৮। গ্রহণটি ভারত মহাসাগরে মরিশাসের পূর্ব দিক থেকে দক্ষিণ আটলান্টিক মহাসাগরে সেন্ট হেলেনা অ্যাসেনশিওন ও ত্রিস্তান দ্য কুনহা দক্ষিণ-পশ্চিম দিক পর্যন্ত দেখা যাবে।

অপর এক বিজ্ঞপ্তিতে অনুসন্ধিৎসু চক্র বিজ্ঞান সংগঠন জানিয়েছে, চন্দ্রগ্রহণের সময় যখন সূর্য ও চাঁদের মাঝখানে পৃথিবী একই সরলরেখায় চলে আসে, তখন পৃথিবীর ছায়া চাঁদের ওপর পড়ে। ফলে পৃথিবী থেকে মনে হয় চাঁদ ধীরে ধীরে ঢেকে যাচ্ছে। চাঁদকে অনেকটা তামাটে বা লালচে চাকতির মতো মনে হবে।

অনুসন্ধিৎসু চক্রের জ্যোতির্বিজ্ঞান বিভাগের সভাপতি শাহজাহান মৃধা জানান, সূর্যগ্রহণ খালি চোখে দেখা অত্যন্ত ক্ষতিকর হলেও চন্দ্রগ্রহণ খালি চোখে দেখা ক্ষতিকর নয়।

মন্তব্য