| প্রচ্ছদ

এবার ব্রিটিশ তেল ট্যাংকার আটক করল ইরান

পুণ্ড্রকথা ডেস্ক
পঠিত হয়েছে ৪৩ বার। প্রকাশ: ২০ জুলাই ২০১৯ ।

ব্রিটিশ মেরিন ইউনিটের হাতে জিব্রাল্টার প্রণালিতে ইরানি তেল ট্যাংকার আটকের জবাবে এবার হরমুজ প্রণালিতে ২৩ জন নাবিকসহ দেশটির একটি তেল ট্যাংকার আটক করেছে ইরানি রেভ্যুলিউশনারি গার্ড কর্পস (আইআরজিসি)।  

আন্তর্জাতিক আইন লঙ্ঘন করায় ব্রিটিশ তেল ট্যাংকারটি আটক করা হয় বলে আইআরজিসি’র দাপ্তরিক ওয়েবসাইট সেপাহনিউজ জানিয়েছে।

ইরানের ওপর মার্কিন নিষেধাজ্ঞা, দুদশের পাল্টাপাল্টি ড্রোন ভূপাতিত করা এবং জিব্রাল্টায় ইরানি তেল ট্যাংকার আটকে সৃষ্ট উত্তেজনার মধ্যেই এ ঘটনা ঘটল।

আইআরজিসি জানায়, হরমোজগান পোর্টস অ্যান্ড ম্যারিটাইম অর্গানাইজেশনের অনুরোধে ‘আন্তর্জাতিক আইন লঙ্ঘন করায়’ স্টেনা ইম্পেরো ট্যাংকারটি আটক করে রেভ্যুলিউশনারি গার্ড। আইন ব্যবস্থা গ্রহণ এবং তদন্তের জন্য এটি সংগঠনটির কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

আলজাজিরা জানায়, ‘ছোট নৌযান এবং হেলিকপ্টার’ ব্যবহার করে শুক্রবার স্থানীয় সময় সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে ট্যাংকারটি আটক করা হয়। ট্যাংকারটির সঙ্গে যোগাযোগ করা যাচ্ছে না বলে জানিয়েছেন এটির মালিক স্টেনা বাল্ক এবং নর্দান মেরিন ম্যানেজমেন্ট।

ব্রিটিশ প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র বলেছেন, “উপসাগরে এ ধরনের একটি ঘটনার খবর পেয়ে আমরা জরুরি ভিত্তিতে আরও তথ্য চেয়েছি এবং পরিস্থিতি পর্যালোচনা করছি।”

এদিকে ঘটনার পর পরিস্থিতি পর্যালোচনায় নিরাপত্তা বৈঠকে  বসেছেন ব্রিটিশ প্রতিরক্ষামন্ত্রী জেরেমি হান্ট। তিনি ইরান কর্তৃক নৌযান আটকের ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন।

গত সপ্তাহে যুক্তরাজ্যের মেরিন ইউনিটের সদস্যদের সহায়তায় জিব্রাল্টার কর্মকর্তারা ইরানি সুপার-ট্যাংকার গ্রেস ১ জব্দ করে।  তখন ব্রিটিশ সরকারের বিরুদ্ধে ‘কঠোর’ পদক্ষেপ নেওয়ার ঘোষণা দেয় তেহরান।

এরপর পারস্য উপসাগর থেকে হরমুজ প্রণালি অতিক্রমের সময় ব্রিটিশ হেরিটেজ ট্যাংকার আটকের চেষ্টা করেছিল আইআরজিসি। তবে ওই এলাকায় থাকা একটি ব্রিটিশ যুদ্ধজাহাজ থেকে সতর্কবার্তা পাঠানো হলে পিছু হটে আইআরজিসি সদস্যরা।

মন্তব্য