| প্রচ্ছদ

নওগাঁর ধামইরহাটে কমিটি প্রত্যাখান করে দলীয় কার্যালয়ে তালা দিয়েছে বিএনপির বিক্ষুদ্ধ নেতাকর্মী

নওগাঁ প্রতিনিধি
পঠিত হয়েছে ৪৩ বার। প্রকাশ: ২০ জুলাই ২০১৯ ।

নওগাঁর ধামইরহাটে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপির উপজেলা ও পৌর আহবায়ক কমিটি প্রত্যাখান করে দলীয় কার্যালয়ে তালা দিয়ে বন্ধ করে দিয়েছে বিক্ষুদ্ধ নেতাকর্মীরা। গত শুক্রবার সন্ধ্যায় দলীয় কার্যালয়ে তালা ঝুলিয়ে দেয়া হয়েছে। এসময় বিক্ষুদ্ধ নেতাকর্মীরা কার্ডারয়ের সামনে বিক্ষোভ মিছিলও করে।
জানা গেছে,ধামইরহাট উপজেলা ও পৌর বিএনপির মেয়াদোত্তীর্ণ কমিটি গত ১২ জুলাই ধামইরহাটের ফার্শিপাড়া মোজাফফর রহমানিয়া দাখিল মাদরাসা মাঠে কর্মী সভায় মাধ্যমে বিলুপ্ত ঘোষনা করা হয়। ওই সভায় জেলা বিএনপির আহবায়ক হাফিজুর রহমান মাস্টারসহ জেলা নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। পরবর্র্তীতে গত ১৮ জুলাই রাতে জেলা থেকে ধামইরহাট উপজেলা ও পৌর বিএনপির আহবায়ক কমিটি ঘোষনা করা হয়। উপজেলা সদর থেকে প্রায় ১২ কিলোমিটার দূরের জাহানপুর ইউনিয়নের কাজিপাড়া গ্রামের মো.কাউসার হোসেন বুলবুলকে আহবায়ক ফেরদৌস হাসান ও আখড়াজুল ইসলাম চৌধুরীকে যুগ্ম আহবায়ক মনোনীত করে ২১ সদস্য বিশিষ্ট উপজেলা আহবায়ক কমিটি ঘোষনা করা হয়। অপর দিকে আজমল হোসেন চৌধুরী শাহানকে আহবায়ক আমিনুল ইসলাম ও নুরল ইসলামকে যুগ্ম আহবায়ক মনোনীত করে ২১ সদস্য বিশিষ্ট পৌর বিএনপির আহবায়ক কমিটি ঘোষনা করা হয়। কমিটি ঘোষনার খবর ধামইরহাটে ছড়িয়ে পড়লে গত শুক্রবার সন্ধ্যায় বিএনপির বিক্ষুদ্ধ নেতাকর্মীরা আহবায়ক কমিটি প্রত্যাখান করে দলীয় কার্যালয়ে তালা ঝুলিয়ে বিক্ষোভ করতে থাকে। ঘোষিত উপজেলা বিএনপির আহবায়ক কমিটিতে একই ব্যক্তি প্রভাষক আনিছুর রহমান মিন্টু এবং আনিছুর রহমান মিন্টুকে দুই বার সদস্য করা হয়েছে। সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রব নিস্তারকে উপজেলা ও পৌর বিএনপির দুই আহবায়ক কমিটিতে সদস্য রাখা হয়েছে। উপজেলা বিএনপির সদ্য বিলুপ্ত কমিটির সভাপতি মাহবুবার রহমান চৌধুরী চপল বলেন,বিগত লড়াই সংগ্রামের রাজপথের ত্যাগি নেতাদের বাদ দিয়ে অপরিচিতদের দিয়ে উপজেলা আহবায়ক কমিটি গঠন করা হয়েছে। যার ফলে বিএনপির ত্যাগী নেতাকর্মী এ আহবায়ক কমিটি মেনে নিতে পারেনি। কমিটি বাতিল না হওয়া পর্যন্ত তারা নিয়মতান্ত্রিক বিভিন্ন কর্মসূচী চালিয়ে যাবে প্রয়োজনে আহবায়ক কমিটিতে পদত্যাগ করার জন্য তারা প্রস্তুত রয়েছে। সদ্য বিলুপ্ত পৌর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মো.রেজুয়ান হোসেন বলেন,ত্যাগী নেতাদের মূল্যায়ন না করে ব্যক্তি স্বার্থে এ আহবায়ক কমিটি করা হয়েছে। কমিটি বাতিল করা না হলে অধিকাংশ সদস্য স্বেচ্ছায় পদত্যাগ করবে। এব্যাপারে জেলা বিএনপির আহবায়ক হাফিজুর রহমান মাস্টার বলেন,বড় দলের কমিটি করতে কিছুটা অসন্তোষ থাকবে। সকলেই যোগ্য কাকে ছেড়ে কাকে পদ দেয়া বড় কষ্টের। তবে অচিরেই এ সমস্যা কেটে যাবে। যাদের নাম দুই কমিটিতে এসেছে তাদের ব্যাপারে সংশোধনী দেয়া হবে। আহবায়ক কমিটির সদস্যদের স্বেচ্ছায় পদত্যাগের প্রস্তুতির খবর আমার জানা নেই। 

 

মন্তব্য