| প্রচ্ছদ

মৃত্যুর তিন দিন পরে উদ্ধার হয়েছিল অশীতিপর এই নায়িকার দেহ!

পুণ্ড্রকথা ডেস্ক
পঠিত হয়েছে ৭৪ বার। প্রকাশ: ২১ জুলাই ২০১৯ ।

বাংলোর ঘরে তিন দিন ধরে পড়ে ছিলেন মৃত অবস্থায়। টের পাননি প্রতিবেশীরাও। তাঁর পোষা কুকুরদের রাস্তায় ঘুরে বেড়াতে দেখে সন্দেহ হয় তাঁদের। পুলিশে খবর দেওয়া হলে দরজার তালা ভেঙে উদ্ধার করা হয় ৮৪ বছর বয়সি বৃদ্ধার দেহ। এতটাই করুণ ছিল নায়িকা নলিনী জয়বন্তের মৃত্যু।

অথচ চার ও পাঁচের দশকে তিনি ছিলেন দাপুটে অভিনেত্রী। কেরিয়ার বড় না হলেও যা কাজ করেছেন, তা ছিল নজরকাড়া। নলিনীর জন্ম ১৯২৬ সালের ১৮ ফেব্রুয়ারি, আজকের মুম্বই, সে দিনের বম্বেতে। নূতন ও তনুজার মা শোভনা সমর্থের আত্মীয়া ছিলেন তিনি।

পর্দায় আত্মপ্রকাশ মাত্র পনেরো বছর বয়সে। ১৯৪১ সালে মুক্তি পেয়েছিল তাঁর প্রথম ছবি ‘বহেন’। ১৯৫০ সালে অশোক কুমারের সঙ্গে তাঁর দু’টি ছবি ‘সমাধি’ ও ‘সংগ্রাম’ বক্স অফিসে বেশ সফল হয়।

নলিনী-অশোক কুমার জুটিতে বাকি সফল ছবিগুলো হল ‘জলপরি’, ‘কাফিলা’, ‘সালোনি’ এবং ‘নাজ’। পাশাপাশি, পাঁচের দশকের মাঝামাঝি আরও বেশ কিছু ছবিতে নিজেকে বলিষ্ঠ অভিনেত্রী হিসেবে তুলে ধরেছিলেন। ‘রাহী’, ‘মুনিমজি’, ‘হম সব চোর হ্যায়’ এবং ‘কালাপানি’ তাঁর অভিনীত উল্লেখযোগ্য ছবি। ১৯৫৮ সালে মুক্তি পাওয়া ‘কালাপানি’ ছবির জন্য তিনি সেরা সহঅভিনেত্রীর পুরস্কার পান।

অভিনয় জগতকে বিদায় জানানোর আগে নলিনীকে শেষ বার পর্দায় দেখা গিয়েছিল ‘বম্বে রেসকোর্স’ ছবিতে। এর আঠেরো বছর পরে তাঁকে আবার দেখা গিয়েছিল ‘নাস্তিক’ ছবিতে। সেটাই তাঁর সিনেমার শেষ কাজ।

১৯৮৩ সালে ‘নাস্তিক’ মুক্তি পাওয়ার পর নিজেকে স্বেচ্ছা নির্বাসনে পাঠিয়েছিলেন এই অভিনেত্রী। ইন্ডাস্ট্রি তো বটেই, নলিনী সম্পর্ক রাখতেন না পরিজনদের সঙ্গেও। নিজেকে সম্পূর্ণ বিচ্ছিন্ন করে নিয়েছিলেন। পড়শিদের সঙ্গেও ছিল না মেলামেশা।

এরপর থেকে দীর্ঘ সাতাশ বছর মুম্বইয়ের চেম্বুরে নিজের পুরনো বাংলোয় নিজেকে বন্দি করে রেখেছিলেন নলিনী। ২০১০ সালের ২০ ডিসেম্বর তাঁর দেহ উদ্ধার হয়েছিল। চিকিৎসকদের অনুমান, অন্তত তিন দিন আগে তাঁর মৃত্যু হয়েছিল। দূর সম্পর্কের এক আত্মীয়র হাতে তাঁর দেহ তুলে দিয়েছিল পুলিশ।

অশোক কুমারের সঙ্গে নলিনীকে জড়িয়ে কিছু রটনা গুঞ্জরিত হয়েছিল। কিন্তু সে বিষয়ে নলিনী কোনও দিন মুখ খোলেননি। দাদামণিকে জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি সব রটনাকে গুজব বলে হেসে উড়িয়ে দিয়েছিলেন।

কেরিয়ার সংক্ষিপ্ত হলেও দেব আনন্দ, অশোক কুমার, দিলীপ কুমারের মতো অভিনেতাদের সঙ্গে কাজ করেছিলেন নলিনী জয়বন্ত। তাঁর রেখে যাওয়া ব্যাটন পরবর্তী সময়ে তুলে নিয়েছিলেন নূতন, মীনাকুমারী, মধুবালা, ওয়াহিদা রহমান, বৈজয়ন্তী মালার মতো অভিনেত্রীরা। সূত্র-আনন্দবাজার পত্রিকা।

মন্তব্য