| প্রচ্ছদ

পঁচিশ টাকায় সাপের সঙ্গে সেলফি!

পুণ্ড্রকথা ডেস্ক
পঠিত হয়েছে ৪৯ বার। প্রকাশ: ৩০ জুলাই ২০১৯ ।

পুণ্যের আশায় গোখরো-কালকেউটে সাপকে স্পর্শ করে সেলফি তুলছে মানুষ। এর জন্য খরচ হচ্ছে মাত্র ২০ রুপি, বাংলাদেশি মুদ্রায় যা প্রায় ২৫ টাকা।

শ্রাবণ মাসে নাগ স্পর্শকে পুণ্যের কাজ হিসেবে মনে করা হয় উত্তরপ্রদেশে। এ সময় সাপ ও সাপুড়েদের দৌরাত্ম্য বেড়ে যায় এবং কামিয়ে নেয় অর্থ। ভারতের রাজ্যটি এই কর্মকাণ্ডের বিরুদ্ধে কড়া অবস্থান নিয়ে থাকে। 

ফলে সাপুড়েরা অন্য রাজ্যগুলোতে ঢুকে পড়ে। পশ্চিমবঙ্গেও মন্দিরের সামনে সাপুড়েদের দেখা যাচ্ছে। তাদের ঘিরে পূজা দিতে আসা লোকদের ভিড়।

সংবাদ প্রতিদিন জানায়, কলকাতার জগদীশ সৎসঙ্গ ভবনের সামনে দেখা গেছে সাপুড়েদের। তাদের হাত থেকে সাপ নিয়ে গলায় পেঁচিয়ে সেলফি তুলছেন অনেকেই। জ্যান্ত এই সাপের সঙ্গে সেলফি তুলতে তাদের দিতে হচ্ছে ২০ রুপি করে।

দর্শন নামে এক সাপুড়ে বলেন, “এই বছরই প্রথম এখানে সাপ নিয়ে এসেছি। কয়েকজনের দলে এসে বিভিন্ন মন্দিরে ছড়িয়ে ছিটিয়ে কাজ করছি। শিবজির ভক্তরা সাপ গলায় নিয়ে ছবি তুলতে পছন্দ করে।”

প্রতি মিনিটে একজন করে সেলফি তুলছে বলে তিনি জানালেন।

হাওড়ার বাসিন্দা গৌতম জয়সওয়াল বললেন, “খুব অল্প বয়স থেকেই শ্রাবণ মাসের প্রতি সোমবার ভূতনাথ মন্দিরে আসি। এবারই দেখলাম নাগ এসেছে। শ্রাবণ মাসে নাগ স্পর্শ পুণ্যের শুনেছি। তাই সুযোগ পেয়ে গলায় নিয়ে ছবি তুলে রাখলাম।”

আবার শ্যামবাজার থেকে আসা রোহিত সেনের কথায়, “ধর্মের নামে কোনো প্রাণীকে কষ্ট দেওয়া উচিত নয়। এটা হুজুগ ছাড়া আর কিছুই নয়।”

এ দিকে মথুরা ও বারাণসীর শিবমন্দিরের বাইরে সাপ নিয়ে বেআইনি ব্যবসা বন্ধে তৎপর হয়েছে সরকার। রাজ্য বন কর্তৃপক্ষ ও স্বেচ্ছাসেবী সংস্থাগুলোর অভিযানে প্রচুর সাপ উদ্ধার করা হয়েছে। ভারতে প্রদর্শনের জন্য সাপের ব্যবহার আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ।

মন্তব্য