| প্রচ্ছদ

বগুড়ার শেরপুরে ইউপি চেয়ারম্যানের স্বাক্ষর নকল করে ভিজিএফের চাল উত্তোলন, আটক ১

শেরপুর (বগুড়া) প্রতিনিধি
পঠিত হয়েছে ৪৩ বার

বগুড়ার শেরপুরে ইউপি চেয়ারম্যানের স্বাক্ষর ও সীলমোহর জাল করে ভিজিএফের চাল উত্তোলন করায় ইমন হাসান (১৮) নামে এক যুবককে আটক করেছে পুলিশ। সে একই ইউনিয়নের খামারকান্দি গ্রামের আব্দুর রশিদের ছেলে। পবিত্র ঈদুল আজহা উপলক্ষে রোববার উপজেলার খামারকান্দি ইউনিয়নে দরিদ্রদের মাঝে বিতরণকালে এই ঘটনা ঘটে।

খামারকান্দি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুল ওহাব বলেন, 'পবিত্র ঈদুল আজহা উপলক্ষে তার ইউনিয়নে অসহায় দরিদ্র মানুষের জন্য ভিজিএফের চাল বরাদ্দ দেয়া হয়। সুবিধাভোগী ১হাজার ২১৪ টি কার্ডের বিপরীতে ১৮ দশমিক ২১০ মেট্রিকটন ভিজিএফের চাল রোববার সকাল থেকে বিতরণ কার্যক্রম শুরু করা হয়। উপজেলা চেয়ারম্যান মজিবর রহমান মজনু প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে এই বিতরণ কার্যক্রমের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন। কিন্তু চাল বিতরণের কিছু সময় পরেই ইমনের নেতৃত্বে একটি চক্র তাঁর স্বাক্ষর ও সীলমোহরযুক্ত ক্যানিং করে জাল করেন। পাশাপাশি শতাধিক স্লীপ স্থানীয় শামীম নামের এক ব্যক্তির কাছে ২০০ টাকা করে বিক্রিও করে দেন। এছাড়া জালিয়াত চক্রের প্রধান ইমন আরও অর্ধশতাধিক জাল স্লীপ নিয়ে ভিজিএফের চাল উত্তোলন করতে আসেন। এমনকি তার পছন্দের বিভিন্ন ব্যক্তির মাধ্যমে একের এক ভিজিএফের ওইসব চাল উত্তোলন করতে থাকেন। একপর্যায়ে ইমনের এই জালিয়াতির বিষয়টি ধরা পড়লে তাকে আটক করে থানায় সংবাদ দেয়া হয়। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে এলে অর্ধশতাধিক জাল স্লীপসহ তাকে সোপর্দ করা হয়েছে।'

তিনি আরও বলেন, 'আমাকে ফাঁসানোর নানামুখি ষড়যন্ত্র চলছে। এরই ধারাবাহিকতায় ওই চক্রটি জাল স্লীপ তৈরী ও চাল উত্তোলনের মাধ্যমে দরিদ্র ওইসব ভিজিএফের চাল আত্মসাত চেষ্টা চালান। তবে সৃষ্টিকর্তার কৃপায় ষড়যন্ত্রকারীদের মুখে ছাই পড়লো বলে মন্তব্য করেন তিনি।'

শেরপুর থানার পুলিশ পরিদর্শক (ওসি তদন্ত) বুলবুল ইসলাম জানান, খবর পেয়ে সেখানে পুলিশ পাঠানো হয়। একইসঙ্গে ইমন নামের এক ব্যক্তিকে জাল স্লীপসহ আটক করা হয়েছে। ওই ঘটনায় আইন অনুযায়ী পরবর্তীতে ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানান এই পুলিশ কর্মকর্তা।

মন্তব্য