| প্রচ্ছদ

২২ দিন পর বগুড়ার সঙ্গে রেল যোগাযোগ স্বাভাবিক

স্টাফ রিপোর্টার
পঠিত হয়েছে ৬৬ বার। প্রকাশ: ০৮ অগাস্ট ২০১৯ ।

টানা ২২ দিন পর বগুড়ার সাথে লালমনিরহাট ও ঢাকার সাথে যোগাযোগ স্বাভাবিক হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকাল থেকে ট্রেন চলাচল আগের নিয়মে চলছে বলে নিশ্চিত করেছেন বগুড়া রেল স্টেশন। বগুড়ার উপর দিয়ে ২৪ ঘন্টায় ১৮টি ট্রেন যাতায়াত করলেও গত ১৭ জুলাই থেকে বন্যার কারণে  সান্তাহার থেকে বোনাপাড়া পর্যন্ত মাত্র ৮ টি ট্রেন যাতায়াত করেছে। এর মধ্যে যাত্রী চাপ কমাতে  ২টি শাটল ট্রেন যুক্ত করা হয়েছিল।

রেল বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, বানের পানির প্রবল চাপে গাইবান্ধা সদর উপজেলার বাদিয়াখালী থেকে ত্রিমোহিনী পর্যন্ত ৯৭ জায়গায় ছয় কিলোমিটার রেলপথ ক্ষতিগ্রস্ত হয়। কোথাও কোথাও দেবে যায় রেললাইন। রেললাইন দেবে যাওয়ার ৯ দিন পর শুক্রবার সকাল থেকে গাইবান্ধা সদর উপজেলার বাদিয়াখালী স্টেশন এলাকায় মেরামত কাজ শুরু করা হয়। মেরামত কাজ চারটি প্যাকেজে চার ঠিকাদারকে দেওয়া হয়েছিল।

সূত্র আরও জানায়, গাইবান্ধায় বাঁধ ভাঙার কারণে চারটি ইউনিয়ন প্লাবিত হয়। ব্রহ্মপুত্র নদের ওপর সোনালি বাঁধ ভেঙে যাওয়ায় বাদিয়াখালী ইউনিয়নে পানির চাপ বেড়ে যায়। একই সঙ্গে ফুলছড়ি উপজেলায় কয়েকটি জায়গায় বাঁধ ভাঙায় বাদিয়াখালী ইউনিয়নের পূর্বদিকে পানির ব্যাপক চাপ সৃষ্টি হয়। ১৭ জুলাই রেলপথের ওপর দিয়ে পানি প্রবাহিত হতে শুরু করে। স্রোতের মাত্রা বেড়ে গেলে লাইন থেকে পাথর ও মাটি সরে যেতে থাকে। একপর্যায়ে প্রবল স্রোতে বাদিয়াখালীর বিভিন্ন স্থানে রেললাইন ভেঙে যায়, কোথাও দেবে যায়, রেল কর্তৃপক্ষের ভাষায় যেটাকে ‘ওয়াশ আউট’ বলা হয়। তবে রেলমন্ত্রীর নির্দেশনায় দ্রুত সমস্যা সমাধানে কাজ করে রেল কর্তৃপক্ষ। গত বুধবারে রেল লাইন সংস্কারের কাজ শেষ হলে বৃহস্পতিবার সকাল থেকে ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক হয়।

বগুড়া রেল স্টেশনের স্টেশন মাস্টার আবুল কাশেম পুণ্ড্রকথাকে জানান, বগুড়ায় গত ২২ দিন ধরে আন্তঃনগর ট্রেন চলাচল বন্ধ ছিল। কিন্তু যাত্রীদের সুবিধায় সান্তাহার থেকে বোনারপাড়া পর্যন্ত মোট ৮ টি ট্রেন যাতায়াত করেছে। তবে এখন বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ রেল লাইন মেরামত শেষে বৃহস্পতিবার সকাল থেকে ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক হয়েছে। এখন থেকে প্রতিদিনের মতো সময়ানুযায়ী ১৮ টি ট্রেনই বগুড়ার উপর দিয়ে চলাচল করবে। 

 

মন্তব্য