| প্রচ্ছদ

বলিউডে আসছে বছর যাঁদের বিয়ে!

পুণ্ড্রকথা ডেস্ক
পঠিত হয়েছে ৪৪ বার

বলিউডে ২০১৮ সালে বিয়ের ধুম পড়েছে। কিছুদিন পরপর বিয়ের সানাই বেজে উঠেছে বলিউডপাড়ার এখানে সেখানে। এই যেমন, সোনম কাপুর-আনন্দ আহুজা, দীপিকা পাড়ুকোন-রণবীর সিং, নেহা ধুপিয়া-অঙ্গদ বেদি, প্রিয়াঙ্কা চোপরা-নিক জোনাস। ২০১৯ সালে কয়েকজন বলিউড তারকা জুটি বেঁধে চুটিয়ে প্রেম করেছেন। সংবাদমাধ্যমগুলো পেয়েছে যথেষ্ট রসদ। প্রায় প্রতিদিন দিস্তার পর দিস্তা ছাপা হয়েছে সেসব প্রেমকাহিনি। তাই আশা করা যায়, সামনের বছর বিয়ের আসরে বসবেন এই তারকা জুটিরা। গাঁটছড়া বাঁধবেন। অগ্নিসাক্ষী রেখে সাত পাক ঘুরবেন। নাচ, গান আর মেহেদিময় হবে ক্যালেন্ডারের অনেকগুলো দিন।

কিন্তু এসবের জন্য একটা অপরিহার্য শর্ত আছে। বিয়েতে গড়ানো পর্যন্ত সম্পর্ক তত দিন টিকে থাকতে হবে! সম্পর্কসহ অন্য সবকিছু ঠিক থাকলে আগামী বছর যে তারকা জুটিরা নামীদামি ডিজাইনারদের বানানো পোশাক পরে বিয়ের আসর মাতাবেন, তাঁদের সম্ভাব্য তালিকা নিয়ে এই আয়োজন।

বরুণ ধাওয়ান ও নাতাশা দালাল

বরুণ ধাওয়ান ও নাতাশা দালাল 
তাঁরা দীর্ঘদিনের বন্ধু। যাকে বলে শৈশবের বন্ধু আর কী। তখন থেকেই তাঁদের প্রেম কি না, তা বলা দুষ্কর। যদিও ৩২ বছর বয়সী বরুণ ধাওয়ান তাঁর ব্যক্তিগত সম্পর্ক আড়ালে রাখতেই স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন। তবুও নাতাশাকে নিয়ে আলোকচিত্রীদের সামনে দাঁড়াতে কখনো কুণ্ঠাবোধ করেননি। কিন্তু করণ জোহরের ‘কফি উইথ করণ’ অনুষ্ঠানে এসে স্বীকার করেছেন, তাঁর ভালোবাসার পাত্রী ফ্যাশন ডিজাইনার নাতাশা দালাল।

ফিল্মফেয়ারের সাক্ষাৎকারেও সেই সত্যি স্বীকার করেছেন। বিয়ে কবে? অবধারিত এই প্রশ্নের উত্তরে জানিয়েছেন, ‘এই বছর না। আমি বলছি না যে বিয়ে করব না। তবে এত তাড়াতাড়ি না। আমি এই মুহূর্তে অনেকগুলো ছবিতে চুক্তিবদ্ধ। তাই ঠিকঠাক সময় বের করতে হবে।’

তবে দীর্ঘদিনের এই লাভবার্ড যে বিয়ে করবেন বলে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন, আপাতত তাতেই খুশি ভক্তরা। তবে ই টাইমসের প্রতিবেদন অনুসারে সেই শুভ সময় আসতে নাকি আর দেরি নেই। সেই মাহেন্দ্রক্ষণ নাকি ২০২০ সালেই।

রণবীর কাপুর ও আলিয়া ভাট

রণবীর কাপুর ও আলিয়া ভাট 
২০১৮ সালের শুরু থেকেই খবরের শিরোনাম হয়ে আসছেন রণবীর কাপুর ও আলিয়া ভাট। ‘ব্রহ্মাস্ত্র’ ছবির শুটিংয়ের একেবারে শুরু থেকেই নাকি প্রেম করছেন এই জুটি। কিন্তু স্বীকার করতে সময় লেগেছে আরও ছয় মাস। আর এখন প্রতিদিন তাঁদের সম্পর্কের বাঁধন নাকি কেবলই শক্ত হচ্ছে! হিন্দুস্তান টাইমসকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে আলিয়া বলেন, ‘এ মুহূর্তে আমি বিয়ে নিয়ে মোটেও ভাবছি না। আমি আসলে বিয়ে নিয়ে ভাবার মতো মানুষ না। যখন সময় হবে, করে ফেলব। এত ভাবার কী আছে! আমি আসলে চিন্তা করে কিছুই করি না।’

কাপুর আর ভাটবাড়িতে যে বিয়ের তোড়জোড় শুরু হয়ে গেছে, এটা বুঝতে আর বাকি নেই। কারণ, বাবা ঋষি কাপুরের ক্যানসারের চিকিৎসা আনুষ্ঠানিকভাবে শেষ হয়েছে। তাই রণবীর কাপুর ও আলিয়া ভাট মনোযোগ দিয়েছেন নিজেদের বিয়ের পরিকল্পনায়। জানা গেছে, আলিয়া ভাট বিয়েতে কেমন পোশাক পরবেন, এ নিয়ে গত এপ্রিল থেকে পরিকল্পনা শুরু করেছেন। এরই মধ্যে বলিউডের আলোচিত ডিজাইনার সব্যসাচীর সঙ্গে নাকি কয়েক দফা বৈঠক করেছেন আলিয়া। শোনা যাচ্ছে, ২০২০ সালের শুরুর দিকেই বিয়ের বাদ্যি বাজবে রণবীর আর আলিয়ার বাড়িতে।

মালাইকা আরোরা ও অর্জুন কাপুর

অর্জুন কাপুর ও মালাইকা আরোরা 
এই তো কিছুদিন হলো দীর্ঘদিন ডুবে ডুবে জল খাওয়ার পর অবশেষে অর্জুন কাপুর ও মালাইকা আরোরা তাঁদের সম্পর্ককে ‘অফিশিয়াল’ করেছেন। মানে উভয়েই সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন, একে অপরকে হৃদয় দিয়েছেন। বিভিন্ন অনুষ্ঠানে তাঁদের একসঙ্গে দেখা যাচ্ছে। এখন তাঁদের চারপাশে শুধু একটা প্রশ্ন ভেসে বেড়াচ্ছে, বিয়েটা কবে? অর্জুন কাপুর অবশ্য ডেকান ক্রনিকলকে জানিয়েছেন, ‘আপাতত বিয়ের প্রশ্নই আসছে না। আমি ব্যক্তিগত আর পেশাজীবন নিয়ে সুখে আছি। সব সময়ই আমার সব বিষয় নিয়ে প্রকাশ্যে কথা বলেছি। শুধু এটুকু বলব, আমি আপনাদের চমকে দেব না। জানিয়েই বিয়ে করব। গণমাধ্যম অবশ্যই আমার বিয়ের দাওয়াত পাবে।’

শোনা যাচ্ছে, তাঁরা নাকি নতুন অ্যাপার্টমেন্ট নিয়েছেন। সেখানেই একসঙ্গে থাকছেন। বিয়ের সব প্রস্তুতিও সেরে ফেলছেন এক এক করে।

ফারহান আখতার ও শিবানী দান্ডেকর

ফারহান আখতার ও শিবানী দান্ডেকর 
২০১৬ সালে ১৬ বছরের দাম্পত্য সম্পর্কের ইতি ঘটে ফারহান আখতার ও স্টাইলিশ অধুনা ভবানীর। এরপর ফারহানের সঙ্গে কিছুদিন শ্রদ্ধা কাপুরের নাম শোনা গিয়েছিল। তারপর ফারহানের জীবনে আসেন শিবানী দান্ডেকার। আসেন এবং হৃদয়ে স্থায়ী আসন নেন। প্রায়ই সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে তাঁদের ছবি ভালোবাসার উষ্ণতা ছড়ায়। প্রথম তাঁদের একসঙ্গে দেখা গেছে দীপিকা পাড়ুকোন ও রণবীর সিংয়ের বিয়েতে। তারপর নিউইয়র্কের রাস্তায় হাত ধরে হাঁটার ছবি এসেছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে।

তারপর তো প্রায় নিয়ম করেই এই জুটি ভক্তদের সঙ্গে শেয়ার করেন তাঁদের ভালোবাসার মুহূর্ত। ফারহানের দুই কন্যা সাক্ষ্য ও আকিরা নাকি শিবানীকে খুব পছন্দ করে। তাহলে বাধা কোথায়! এবার ফারহান-শিবানীর পরবর্তী কদম যে বিয়ে, তা বলার অপেক্ষা রাখে না। আর সেই বিয়ে সামনের বছরে হতে বাধা কোথায়?

রোহমান শল ও সুস্মিতা সেন

সুস্মিতা সেন ও রোহমান শল 
২৭ বছর বয়সের র‌্যাম্প মডেল কাশ্মীরের ছেলে রোহমান শলের সঙ্গে ৪৩ বছরের সুস্মিতা সেনের প্রেম এরই মধ্যে বেশ জমে গেছে। এ বছর ফেব্রুয়ারি মাসে বলিউড তারকা সুস্মিতা সেন বলেছেন, বিয়ে নয়, এখনো প্রেম করে বেড়াচ্ছেন। প্রেমের মধ্যেই তিনি খুঁজে পেয়েছেন আনন্দ। সুস্মিতা সেনের দুই দত্তক নেওয়া কন্যা রেনি আর আলিশাও রোহমানকে খুব পছন্দ করে।

এবার জানা গেছে, সস্মিতা সেন বিয়ে করতে যাচ্ছেন। প্রেমিক রোহমান শলকে বিয়ের ব্যাপারে সম্মতি জানিয়েছেন ১৯৯৪ সালের ‘মিস ইউনিভার্স’ সুস্মিতা সেন। ‘ভোগ’ ম্যাগাজিনের ভারতীয় সংস্করণ জানিয়েছে, এ বছর নভেম্বর বা ডিসেম্বরে বিয়ে করবেন সুস্মিতা সেন ও রোহমান শল। আর এই বছরে যদি নাও হয়, তবে পরের বছর হবে, তা নিশ্চিত।

রোহান শ্রেষ্ঠা ও শ্রদ্ধা কাপুর

শ্রদ্ধা কাপুর ও রোহান শ্রেষ্ঠা
ব্যক্তিজীবন সব সময়ই গণমাধ্যম থেকে আড়ালে রেখেছেন শ্রদ্ধা কাপুর। এর আগে ফারহান আখতার আর আদিত্য রয় কাপুরের সঙ্গে সম্পর্কের গুঞ্জন উঠেছে। শ্রদ্ধার বাবা শক্তি কাপুর অবশ্য এসব বিশ্বাস করেননি। বলে দিয়েছেন, এগুলো ডাহা মিথ্যা। কিন্তু কাছের বন্ধু ও আলোকচিত্রী রোহান শ্রেষ্ঠার সঙ্গে সম্পর্কের বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে বাবা আর মেয়ে দুজনই ঘুরিয়ে–পেঁচিয়ে এমন সব উত্তর দিয়েছেন, যাকে ইংরেজিতে বলে ‘ডিপ্লোম্যাটিক’।

এর আগে শ্রদ্ধা কাপুর নিজের বিয়ে নিয়ে বলেছেন, ‘বিয়ে একটা চমৎকার ব্যাপার। বিয়ে করার জন্য একটা মানুষকে পাগলের মতো ভালোবাসা দরকার। তাঁর সঙ্গে পুরো জীবনটা দেখতে পেতে হবে। এটা সারা জীবনের প্রতিশ্রুতি। সবচেয়ে বড় সিদ্ধান্ত।’

মুম্বাই মিরর বলছে, আগামী বছর বিয়ের পিঁড়িতে বসতে চলেছেন দুই তারকা শ্রদ্ধা কাপুর ও রোহান শ্রেষ্ঠ। এমনকি বিয়ের আয়োজনের প্রস্তুতি ইতিমধ্যে শুরু হয়েছে। শ্রদ্ধার মা শিবাঙ্গি কাপুর বিয়ে নিয়ে আইডিয়ার বিশাল তালিকা তৈরি করেছেন। যদিও শ্রদ্ধার আগামী বছর যাবে বেশ ব্যস্ততায়। কারণ, ‘স্ট্রিট ড্যান্সার থ্রিডি’ ও ‘বাঘি থ্রি’ সিনেমা দুটি রুপালি পর্দায় আসবে ২০২০ সালে। অবশ্য শ্রদ্ধা বিয়ে করেও সিনেমা চালিয়ে যেতে পারেন। বিয়ে হওয়ার পরে ক্যারিয়ার শেষ হবে, এমন আশঙ্কা নেই বলিউডে।

মন্তব্য