| প্রচ্ছদ

জাতীয় পার্টির সম্মেলন ৩০ নভেম্বর

পুণ্ড্রকথা ডেস্ক
পঠিত হয়েছে ১৯ বার

৩০ নভেম্বর জাতীয় পার্টির জাতীয় সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। দলটির চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ (জি এম) কাদের  শনিবার এ ঘোষণা দেন। 

তিনি বলেন, ‘জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম ও সংসদ সদস্যদের যৌথ সভায় সর্বসম্মতিক্রমে জাতীয় সম্মেলনের তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে।

শনিবার দুপুরে জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যানের বনানী অফিসে জাতীয় পার্টির (কাজী জাফর) প্রেসিডিয়াম সদস্য এয়ার আহমদ সেলিম জাতীয় পার্টিতে যোগ দেন। সেলিমের এই যোগদান উপলক্ষে আয়োজিত সভায় জি এম কাদের এসব কথা বলেন।

গেল সপ্তাহে নিজেকে জাতীয় সংসদে বিরোধীদলীয় নেতা নির্বাচিত করার জন্য স্পিকারের কাছে চিঠি দেন জি এম কাদের। এরপরই দলটির অভ্যন্তরীণ কোন্দল প্রকাশ্য হয়ে পড়ে। 

তার এ সিদ্ধান্তে ক্ষুব্ধ রওশনপন্থীরা স্পিকারকে পাল্টা চিঠি দেন। 

তাদের বক্তব্য, দলের পার্লামেন্টারি পার্টির কোনো বৈঠক ছাড়াই কাদের এ সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। 

বৃহস্পতিবার দলটির প্রেসিডিয়াম সদস্য আনিসুল ইসলাম মাহমুদ দলের চেয়ারম্যান হিসেবে রওশন এরশাদের নাম ঘোষণা করেন। ওই দিনই আরেক সংবাদ সম্মেলনে কাদের নিজের চেয়ারম্যান হওয়া এবং বিরোধীদলীয় নেতা হওয়ার পেছনে যুক্তি তুলে ধরেন। কাদের দাবি করেন, সবই তিনি করেছেন দলীয় গঠনতন্ত্র মেনে।  

এর আগে রওশনকে চেয়ারম্যান ঘোষণা করে তারা সংবাদ সম্মেলন করা হয়।

শনিবার জি এম কাদের বলেন, ‘সম্মেলনে দলের নেতা-কর্মীরাই জাতীয় পার্টির আগামী দিনের নেতৃত্ব নির্বাচন করবেন। নেতা-কর্মীদের সিদ্ধান্তই আমি মেনে নেব।’

জি এম কাদের বলেন, ‘পদ-পদবি বা ব্যক্তিগত সম্পদ অর্জনের জন্য আমি রাজনীতি করি না। দেশ, দেশের মানুষ ও জাতীয় পার্টির জন্য আমাদের রাজনীতি। কোনো লোভ-লালসার জন্য আমাদের রাজনীতি নয়।’

এ সময় জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জি এম কাদের আরও বলেন, জাতীয় পার্টি বাংলাদেশের বড় তিনটি রাজনৈতিক দলের অন্যতম। জাতীয় পার্টির দেশ পরিচালনায় অভিজ্ঞতা ও ঐতিহ্য রয়েছে। দেশের রাজনৈতিক শূন্যতায় দেশের মানুষ এখন জাতীয় পার্টির দিকে তাকিয়ে আছে। দেশের নতুন প্রজন্মের সামনে রাজনীতি করার অন্যতম প্ল্যাটফর্ম এই দল। তাই এখনই দলকে আরও শক্তিশালী করতে পারলে আগামী দিনের রাজনীতিতে এবং দেশ পরিচালনার প্রতিযোগিতায় জাতীয় পার্টি আরও এগিয়ে যাবে।

সভাপতির বক্তৃতায় জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য কাজী ফিরোজ রশীদ বলেন, জাতীয় পার্টির ওপরে বারবার আঘাত এসেছে। নানা ষড়যন্ত্রের মধ্য দিয়েই জাতীয় পার্টি এগিয়ে যাচ্ছে। 

ফিরোজ রশীদ বলেন, রওশন এরশাদ আমাদের মায়ের মত, তিনি আমাদের অভিভাবক। আমরা বিশ্বাস করি কিছু মানুষের পরামর্শে বেগম রওশন এরশাদকে বিভ্রান্ত করা যাবেনা। রওশন এরশাদ অবশ্যই অনুধাবন করবেন এবং জাতীয় পার্টির এগিয়ে চলার রাজনীতিতে আমাদের অভিভাবক হয়েই থাকবেন।

অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য দেন সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা, সালমা ইসলাম, রেজাউল ইসলাম ভূঁইয়া, ভাইস চেয়ারম্যান এইচ.এন.এম. শফিকুর রহমান, যুগ্ম মহাসচিব গোলাম মোহাম্মদ। দপ্তর সম্পাদক সুলতান মাহমুদের উপস্থাপনায় যোগদান অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য সৈয়দ আব্দুল মান্নান, সুনীল শুভ রায়, মাহমুদুল ইসলাম চৌধুরী, আলমগীর সিকদার লোটন, নাজমা আখতার প্রমুখ।

মন্তব্য